স্বাস্থ্যকথা

ঘুম না এলে...

  

পিএনএস ডেস্ক: ঘুম না আসা যেন এক ট্রেন্ডে পরিণত হয়েছে। বিশেষ করে তরুণ-তরুণীদের এই সমস্যায় বেশি ভুগতে দেখা যায়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এর জন্য আমাদের জীবনযাপনের ধরনই দায়ী। আমাদের দৈনন্দিন নানা কর্মকাণ্ডই উসকানি দেয় ঘুম না আসার ক্ষেত্রে। তাই কিছু কাজ মেনে চললে এবং কিছু কাজ এড়িয়ে চললে ঘুম আসতে বাধ্য। চলুন জেনে নেয়া যাক-কী করবেন:রাতে ঘুম আসছে না বলে ল্যাপটপ বা মোবাইলে মুখ গুঁজে বসে থাকবেন না। তাতে ঘুমের আরও বেশি সমস্যা হবে। বরং বই পড়তে পারেন, মৃদু শব্দে গানও শুনতে পারেন। যেসব গ্যাজেট থেকে আলো

দাঁতের ব্যথার ঘরোয়া চিকিৎসা

  

পিএনএস ডেস্ক: দাঁতের সমস্যা যদি বড়সড় হয় তাহলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া ছাড়া ভিন্ন উপায় থাকে না। কিন্তু চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার আগে ব্যথা বা সমস্যা কমার কোনো উপায় জানা থাকলে সে সময় আরাম পাওয়া যায়। ছোটখাটো দাঁতের সমস্যা সারাতেও এসব উপায় কাজে আসে। জেনে নিন এমনই একটি ঘরোয়া উপায় যার মাধ্যমে সহজেই দাঁতের যে কোনো সমস্যা থেকে অনেকটা আরাম পাবেন।খুব সহজে মেলে এমন দুই উপকরণ দিয়েই বানিয়ে ফেলতে পারেন সমাধান। প্রয়োজন কেবল নারিকেল তেল ও লবঙ্গের গুঁড়া। এবার একটি পাত্রে নারিকেল তেলের মধ্যে বেশ কিছুটা

লিভার নষ্টের ৯টি মূল কারণ

  

পিএনএস ডেস্ক : লিভার দেহের একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। লিভার (যকৃৎ) প্রাণীদেহের বিপাকে কাজ করে। এছাড়া এটি শরীরের বিভিন্ন কাজে প্রধান ভূমিকা পালন করে। একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের ক্ষেত্রে লিভারের ওজন প্রায় এক দশমিক ৫০ কেজি। সাধারণত দুই ধরনের কোষ দিয়ে লিভার গঠিত হয়। এগুলো হলো, প্যারেনকাইমাল ও নন-প্যারেনকাইমাল।কিছু বদ অভ্যাসের কারণে শরীরের গুরুত্বপূর্ণ এই অঙ্গটি নষ্ট হয়ে যায়। লিভার নষ্টের ৯টি কারণ পাঠকদের সামনে তুলে হলো: অতিরিক্ত কাঁচা খাবার খাওয়াও লিভারের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। যেমন আপনি যদি

ওষুধ ছাড়াই যেভাবে দাঁতে ব্যথা কমাবেন!

  

পিএনএস ডেস্ক :শীতে বিভিন্ন সমস্যার মধ্যে একটি মারাত্নক সমস্যা হলো দাঁতে ব্যথা। এর প্রধান কারণ ঠাণ্ডা আবহাওয়া দাঁতের ব্যথা বা দাঁতে নানা সমস্যাকে বাড়ায়। এমন কি ঠাণ্ডায় দাঁতে শিরশিরানি বা ব্যথার প্রকোপও বাড়ে।সাধারণত দাঁতের বড় রকমের কোনো সমস্যা হলে চিকিৎসকের কাছে যাওয়া ছাড়া উপায় থাকে না। কিন্তু কিছু সময় চিকিৎসকের কাছ না গিয়ে ছোট সমস্যার সমাধান ঘরোয়া ভাবেই করা সম্ভব।খুব সহজে পাওয়া যায় এমন দুই উপকরণ দিয়েই বানিয়ে ফেলতে পারেন সমাধান। এর জন্য প্রয়োজন কেবল নারিকেল তেল ও লবঙ্গের

শীতে ঠোঁট ফাটার সমাধানে...

  

পিএনএস ডেস্ক: শীত এলে তার প্রভাব সবচেয়ে বেশি পড়ে আমাদের ঠোঁটে। একটুতেই শুষ্ক হয়ে পড়ে এই ঠোঁটজোড়া। মরা চামড়া ওঠা, ফেটে যাওয়ার মতো সমস্যা দেখা দেয়। এটি সৌন্দর্য তো নষ্ট করেই, সেইসঙ্গে ব্যথা আর অস্বস্তিরও কারণ। এই শীতে ঠোঁট নরম রাখতে জেল কেনার আগে খেয়াল করুন পেট্রোলিয়াম জেলি, এসেনশিয়াল অয়েল বা গ্লিসারিন আছে কি না। এছাড়া ঠোঁট ভালো রাখতে বেছে নিন আরো কিছু সহজ উপায়-রাতে ঘুমনোর আগে সামান্য ঘিয়ে মেশান একটু দুধের সর। এরপর এই মিশ্রণ ঠোঁটে লাগিয়ে রাখুন। দীর্ঘ সময় ধরে ত্বককে নরম রাখে ঘি। আর দুধের সর

এইডস রোগীদের ভয় ‘নিগ্রহ’

  

পিএনএস ডেস্ক: এইচআইভি ভাইরাস বা এইডস রোগে আক্রান্তদের এখনো একঘরে করে রাখা হচ্ছে বাংলাদেশে। এমনকি চিকিৎসা নিতে গিয়েও বৈষম্যের শিকার হতে হয় তাদের। প্রচলিত ভ্রান্ত ধারণা ও কুসংস্কারের কারণে দেশে এখনো এ রোগে আক্রান্তদেরই দায়ী করা হয়। সামাজিকভাবে অপমান আর নিগ্রহের পাশাপাশি পরিবারেও অবাঞ্চিত হয়ে পড়েন তারা। তবে বৈষম্যমূলক আচরণের পরিবর্তে যথোপযুক্ত চিকিৎসা পেলে এ রোগে আক্রান্তরাও অন্যদের মতো স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে পারেন।এইডস বিশ্বে মরণব্যাধি হিসেবে পরিচিত। প্রায় সব দেশেরই এ রোগে আক্রান্তদের

এক হেলমেট একাধিক জন পরলে যেসব ক্ষতি

  

পিএনএস ডেস্ক: অ্যাপভিত্তিক রাইড শেয়ারিং চালু হওয়ার পর রাজধানীতে বেড়েছে মোটরবাইক ব্যবহারকারীদের সংখ্যা। এতে যাতায়াত ব্যবস্থা আগের চেয়ে সহজ হয়েছে বলে অনেকেরই মত। তবে একই হেলমেট একাধিক জন ব্যবহার করার ফলে স্বাস্থ্য ঝুঁকি বাড়ছে।বিশেষজ্ঞরা বলছেন, একই হেলমেট একাধিক জন ব্যবহার করলে ফাঙ্গাল ইনফেকশনস, খুশকি, চর্মরোগের মতো সমস্যা সংক্রমিত হতে পারে।হেলমেট পরলে মাথা, কান ঢাকা থাকার কারণে আমাদের শরীরের এই অংশ খুব সহজেই ঘেমে যায়। সেই ঘামে ভেজা হেলমেট যখন অন্য কেউ পরেন তখন খুব সহজেই জীবাণুরা সংক্রমিত

শীতে পা ফাটা সমস্যার সমাধান

  

পিএনএস ডেস্ক: শীত এলেই শ্রীহীন হতে শুরু করে আমাদের ত্বক। সারা শরীর তো খসখসে হয়ই, সেইসঙ্গে ঠোঁট, কনুই, পা ফেটে যায় অনেকেরই। ফাটা পা নিয়ে পড়তে হয় অস্বস্তিতে। বাজার চলতি নানারকম ক্রিম, লোশন মেখেও মেলে না মুক্তি।আমাদের পায়ের পাতার উপর সারা শরীরের ভর থাকে। পথে চলতে ধুলোর সবচেয়ে কাছাকাছি থাকে শরীরের এই অংশই। তাই পায়ের পাতার যত্নের প্রয়োজন হয় সবসময়ই। কিন্তু শরীরের নানা যত্ন নিলেও পায়ের দিকে অতোটা নজর থাকে না আমাদের। তাই শীত এলে সবার আগে সৌন্দর্য হারাতে শুরু করে আমাদের পা জোড়া।শীতের পা জোড়া

ছোট শিশুদের গরুর দুধ খাওয়ানো কি ঠিক?

  

পিএনএস ডেস্ক : আজকাল অনেকেই শিশুর বয়স কয়েক মাস হলেই গরুর দুধ খাওয়াতে শুরু করেন। তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শিশুর বয়স ৬ মাস না হওয়া পর্যন্ত তাকে মায়ের দুধ ছাড়া কিছুই খেতে দেওয়া ঠিক নয়। এরপর থেকে ১ বছর পর্যন্ত অল্প করে গরুর দুধ দেওয়া যেতে পারে। আর বয়স ১ বছর পার হলে শিশুকে বুকের দুধের পরিবর্তে পুরোপুরি গরুর দুধ খাওয়ানো যায়। এক বছর বয়সের পর থেকে শিশুকে গরুর দুধ খাওয়ানো যায়তবে যেহেতু প্রতিটা শিশুর শারীরিক চাহিদা ভিন্ন এ কারণে খাদ্যতালিকায় যেকোন পরিবর্তন আনার ক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞর পরামর্শ নেওয়া উচিত।

খাওয়ার পরে পাঁচটি কাজ করবেন না

  

পিএনএস ডেস্ক: ভরপেট খাওয়ার পর না জেনেই আমরা এমনকিছু কাজ আমরা করে থাকি যা আমাদের শরীরের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। এই স্বভাবগুলো শরীরের রক্ত সঞ্চালনের অস্বাভাবিকতা থেকে শুরু করে, হার্টের অসুস্থতা, মেদবাহুল্য ইত্যাদি নানা সমস্যা অজান্তেই ডেকে আনে। সুতরাং আজ থেকেই সচেতন হোন। জেনে নিন কোন পাঁচটি কাজ খাওয়ার পরে করবেন না-ভরপেট খাওয়ার পরেই ফল খাওয়ার অভ্যাস থাকলে আজই ত্যাগ করুন। ফল এমনিতেই অ্যাসিডিক। ভরপেট খাওয়ার পরেই ফল খেলে শরীরে অ্যাসিডের মাত্রা বাড়ায়। তাই খাওয়ার প্রায় এক-দুই ঘণ্টা পর ফল খেলে তবেই

Developed by Diligent InfoTech