স্বাস্থ্যকথা

পেয়ারার স্বাস্থ্যগুণ

  

পিএনএস ডেস্ক: পেয়ারা অত্যন্ত উপকারী এখটি ফল। ডাঁসা পেয়ারা যেমন সুস্বাদু, তেমনই পুষ্টিকর। দাঁত মজবুত করতে দন্ত চিকিৎসকরা পেয়ারা খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। মাড়ি শক্ত আর মজবুত করা ছাড়াও পেয়ারায় একাধিক স্বাস্থ্যগুণ রয়েছে। আসুন সেগুলো সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক-উচ্চ রক্তচাপের সমস্যায় ভুগে থাকেন অনেকেই। জানেন কি, এই উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা নিয়ন্ত্রণে রাখতে পেয়ারা অত্যন্ত কার্যকর! শরীরে পটাশিয়ামের অভাব হলে উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা মাথা চাড়া দেয়। আর পেয়ারা শরীরে পর্যাপ্ত পটাশিয়ামের যোগান

রোজায় ত্বকের যত্ন

  

পিএনএস ডেস্ক : প্রচণ্ড গরম ও সারাদিন না খেয়ে থাকার কারণে অনেকেরই ত্বকে ক্লান্তির ছাপ পড়ে। এ কারণে এ সময় ত্বকের বিশেষ যত্ন নেওয়া প্রয়োজন। সেহরি ও ইফতারে এমন কিছু খাবার খাওয়া উচিত যাতে শরীরে ভিটামিনের ঘাটতি না পড়ে।রোজা থাকার কিছু সুবিধাও আছে। সারাদিন রোজা থাকার কারণে শরীর থেকে টক্সিন ও দূষিত পদার্থ বের হয়ে যায়। এতে ত্বকও পরিষ্কার হয়।ইফতারিতে সাইট্রাস জাতীয় ফল অর্থাৎ ভিটামিন সি সমৃদ্ধ এমন কিছু ফল রাখা উচিত যাতে ত্বক সজীব থাকে। এছাড়া ত্বক সুস্থ রাখতে ইফতারে পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি পান করা উচিত।

যে ৪ কারণে হঠাৎ বেড়ে যেতে পারে রক্তে সুগারের মাত্রা

  

পিএনএস ডেস্ক : রক্তে সুগারের মাত্রা বেড়ে গেলে শরীরে কী কী ধরণের সমস্যার সৃষ্টি হয়, সে সম্পর্কে আমরা কমবেশি সকলেই অবগত। বিশেষ করে যারা ডায়াবেটিসে আক্রান্ত, মাঝে মধ্যেই রক্তে সুগারের মাত্রা বেড়ে যায় বলে তাদের বিভিন্ন সমস্যায় পড়তে হয়। সবকিছু মেনে চলার পরও হঠাৎ করেই রক্তে সুগারের মাত্রা বেড়ে যেতে পারে। জানেন কেন এমনটা হয়? আসুন, আমাদের আজকের এই প্রতিবেদন থেকে কারণগুলি সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক-১) নির্দিষ্ট পরিমাণের বেশি কার্বোহাইড্রেট যুক্ত খাবার খাওয়া হলে রক্তে সুগারের মাত্রা হঠাৎ

ইফতারে লেবুর শরবত সারাবে হাজারো রোগ

  

পিএনএস ডেস্ক : বাইরে বের হলেই প্রচণ্ড গরম, প্রাণ হাসফাঁস। গরমে প্রাণ জুড়াতে শরবতের জুড়ি নেই। গরমে লেবুর শরবত শরীরের জন্য বেশ উপকারি। আর ইফতারে খেতে পারেন লেবুর শরবত। লেবুর শরবত সারাদিনের ইফতারের ক্লান্তি দূর করবে। এছাড়া নিয়মিত লেবু পানি খাওয়া শুরু করলে ছোট-বড় কোনও রোগই ধারে কাছে ঘেঁষতে পারে না। আসুন জেনে নেই লেবুর শরবত সারাবে যেসব রোগ:১. একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে, লেবু শরবত লিভারে উপস্থিত ক্ষতিকর টক্সিক উপাদানেরা বের করে। ফলে লিভারের যে কোনও ধরনের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা যায়

কামরাঙা খেলে মৃত্যুও হতে পারে!

  

পিএনএস ডেস্ক :পর্তুগীজরা ভারতীয় উপমহাদেশে যে কয়টি গাছ নিয়ে এসেছিল তার মধ্যে কামরাঙা অন্যতম। পর্তুগীজদের আনা এ ফল এখন অনেকেরই প্রিয়অ টক-মিষ্টি স্বাদের জন্য অনেকেই কামরাঙা পছন্দ করলেও হয়তো উপকারের কথা জানেন না। চলুন কামরাঙার কিছু গুণের পাশাপাশি একটি মারাক্তক ক্ষতিকর দিকের কথা জেনে নিই- ১. কামরাঙায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার যা হজমে সাহায্য করে। এটি কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করে।২. কামরাঙায় প্রচুর পরিমাণে পলিফেনোলিক ফ্লাভনয়েড নামের অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট রয়েছে যা খাদ্যনালির ক্যানসারের

নারী ধূমপায়ীদের তালিকায় শীর্ষে বাংলাদেশ

  

পিএনএস ডেস্ক : তামাকজাত যেকোনও দ্রব্য ব্যবহারের মধ্যেই এক ধরনের আসক্তি থাকে। কিন্তু আসক্তির চেয়েও বড় হয়ে সামনে এসেছে ফ্যাশন। নিজেকে ফ্যাশনেবল হিসেবে জাহির করতেই পুরুষদের পাশাপাশি মেয়েরাও অভ্যস্ত হচ্ছে ধূমপানে। অনেকেই আবার পুরুষের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে নিজেকে পুরুষের সমকক্ষ হিসেবে প্রমাণ করতেও এই ক্ষতিকর পন্থাটি বেছে নেন। বিশেষত বাংলাদেশের মেয়েরা গত ১০-১৫ বছর ধরে এই ধূমপানের দিকে ব্যাপক হারে ঝুকেছে। এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে ধূমপানের হার বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি। এখানকার পুরুষদের মধ্যে ধূমপান করেন

ইফতারে ডাবের পানি

  

পিএনএস ডেস্ক: গরমে একটু স্বস্তি এনে দিতে ডাবের পানির বিকল্প নেই। এই গরমে ডাবের পানির মতো শান্তি ও তৃপ্তি বোধহয় অন্য কিছুতে নেই! সারাদিন রোজা রেখে ইফতারে ঠান্ডা একগ্লাস ডাবের পানি আপনার প্রাণ জুড়িয়ে দেবে। এটি শরীরের নানা ঘাটতিও পূরণ করে।শুধু তেষ্টা মেটাতেই নয়, গরমে শরীর ভালো রাখতেও ডাবের পানি অত্যন্ত উপকারী। জেনে নিতে পারেন ডাবের পানির কয়েকটি গুণ-প্রচন্ড গরমে শরীরে ঘামের সঙ্গে অনেকটা পানি বেরিয়ে যায়। ফলে শরীরে পানির ঘাটতি দেখা দেয়। একই সঙ্গে ডি-হাইড্রেশনের সমস্যাও মাথা চাড়া দিয়ে

ক্যান্সারের জীবাণু ধ্বংস করতে পারে ‘রোজা’

  

পিএনএস ডেস্ক: রোজা হলো অটোফেজি, যা ক্যান্সারের জীবাণু ধ্বংস করতে পারে। মুসলিম সম্প্রদায়ে যা রোজা নামে পরিচিত তা বিজ্ঞানের ভাষায় ‘অটোফেজি’। রোজার উপর গবেষণা করে জাপানি গবেষক ওশিনরি ওসুমি ২০১৬ সালে ‘অটোফেজি’ নামক একটি শারীরিক প্রক্রিয়ার আবিষ্কার করেন এবং নোবেল পুরস্কার পান। অটোফেজি শব্দটি এসেছে গ্রিক শব্দ অটো ও ফাজেইন থেকে। বাংলায় যার অর্থ হচ্ছে আত্মভক্ষণ বা নিজেকে খেয়ে ফেলা। উপবাসের সময় আমাদের শরীরের সক্রিয় কোষগুলো নিষ্ক্রিয় থাকে না। সক্রিয় কোষগুলো সারা বছরে তৈরি হওয়া ক্ষতিকারক আর নিষ্ক্রিয়

এলাচ খেয়ে এড়াতে পারবেন মারাত্বক কিছু রোগ!

  

পিএনএস ডেস্ক: খাবারে স্বাদ বৃদ্ধি করার জন্য এলাচ দেয়া হয়। এলাচ শুধু স্বাদ বৃদ্ধিই করে না, স্বাস্থ্যের অনেক উন্নতিও করে। এলাচ আমাদের শরীরের নানা রোগ-প্রতিরোধে সহযোগিতা করে, চলুন জেনে নেয়া যাক-১. এলাচ সর্দি-কাশিতে খুবই কার্যকরী। চায়েরে সঙ্গে মধু, এলাচ খেলে সর্দি-কাশি কমে যায়। ২. নিয়মিত এলাচ খেলে শরীরে রক্ত সঞ্চালন স্বাভাবিক থাকে।৩. এলাচ ওজন কমাতে সাহায্য করে।৪. এলাচের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট মধ্যে থাকে যা ত্বকে ছাপ, বলিরেখা পড়তে বাধা দেয়।৫. মুখের দুর্গন্ধ হাত থেকে বাঁচতে মুখে

গরমেও সতেজ থাকতে

  

পিএনএস ডেস্ক: রোদ, গুমোট গরম, ধুলোবালি- এই হচ্ছে এই সময়ের চিত্র। আর এসবই আমাদের ত্বকের জন্য বেশ ক্ষতিকর। এসময় যদি আমরা ত্বকের সঠিক যত্ন না নেই তাহলে খুব সহজেই তা মলিন হতে শুরু করবে। ত্বকের যত্ন মানে কিন্তু শুধু মুখ নয়, হাত-পায়ের পরিচর্যাও করতে হবে। জেনে নিন কোন উপায়গুলো মেনে চলতে পারলে গরমকাল সহনীয় হবে, ফুরফুরে থাকতে পারবেন সারাদিন-এক্সফোলিয়েটত্বকের উপরে জমে যাওয়া ডেড সেল নিয়মিত তুলে না ফেললে ত্বক বিবর্ণ ও নিষ্প্রভ দেখায়। সপ্তাহে দুই থেকে তিনদিন গোসলের সময় সারা শরীরে বডি স্ক্রাব দিয়ে

Developed by Diligent InfoTech