ভরা মৌসুমে পিঁয়াজের কেজি ৫০ টাকা!

  

পিএনএস (মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম প্রধান) : ভরা মৌসুমে পিঁয়াজের মূল্যবৃদ্ধিতে বিপাকে ক্রেতাসাধারণ। রেকর্ড পরিমাণ উৎপাদন হলেও রমজানকে সামনে রেখে ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট কারসাজি করে পিঁয়াজের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে বলে মনে করেন গ্রাহকরা।

সরে জমিন খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দেশব্যাপী পিঁয়াজের ভালো উৎপাদন হওয়ার পরও ভরা মৌসুমে এই মূল্যবৃদ্ধি হচ্ছে। রমজান আসার আগেই রাজধানীর বাজারে বাড়তে শুরু করেছে পেঁয়াজের দাম। তিন সপ্তাহের ব্যবধানে ধাপে ধাপে খুচরা বাজারে দেশি পেঁয়াজের দাম কেজিতে প্রায় ১৫ টাকা বেড়েছে। প্রতি কেজির দাম এখন মানভেদে ৪৫ থেকে ৫০ টাকা।

যদিও একশ্রেণীর ব্যবসায়ী পিঁয়াজের দাম বাড়ার জন্য তিনটি কারণ দেখাচ্ছেন। আর তা হলো- ১. বছরজুড়ে সংরক্ষণের জন্য স্থানীয় ফড়িয়া ব্যবসায়ীদের পিঁয়াজ কিনে মজুদ করা, ২. কয়েক দিন ধরে বৃষ্টির কারণে পিঁয়াজ নিয়ে চাষিরা হাটে না আসায় সরবরাহে ঘাটতি, ৩. ভারতে দাম কিছুটা বেড়ে যাওয়ার প্রভাব। ভারতীয় পিঁয়াজ বাজারে ৭ টাকা বেড়ে ৩৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে প্রতি কেজি ভালো মানের দেশি পিঁয়াজের দাম ছিল ৫০ টাকা। আকারে ছোট দেশি পিঁয়াজের দাম চাওয়া হয় ৪৫ টাকা। প্রতি কেজি ভারতীয় পিঁয়াজের দাম ৩৫ টাকা। দুই-তিন সপ্তাহ আগেও এক কেজি দেশি পিঁয়াজের সর্বোচ্চ দাম ৩৫ টাকা ছিল। হঠাৎ পিঁয়াজের দাম বেড়ে যাওয়ার জন্য সিন্ডিকেটকে দায়ী করছেন ক্রেতাসাধারণ।

টিসিবির হিসাবে, বাজারে এখন দেশি পিঁয়াজের দাম ৪০ থেকে ৫০ টাকা, যা এক মাস আগের তুলনায় ২৩ শতাংশ বেশি। এ বছর পেঁয়াজের উৎপাদন ভালো হয়েছে। দাম বাড়ার কোনো কারেণ দেখছে না অভিজ্ঞ মহল। তার পরও আকাশ চুম্বি দামে তারা হতাশ। তাদের মতে, রমজান সামনে না থাকলে পিঁয়াজের দাম এ মুহূর্তে কেজি প্রতি হঠাৎ ১৫ টাকা বাড়ত না।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) হিসাবে, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে দেশে পিঁয়াজ উৎপাদিত হয়েছে ১৮ লাখ ৬৬ হাজার টন, যা আগের বছরের চেয়ে ১ লাখ ৩১ হাজার টন বেশি। এবার এর চেয়ে বেশি উৎপাদন হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের হিসাবে, গত অর্থবছরে ১০ লাখ ৪১ হাজার টন পিঁয়াজ আমদানি হয়েছে, যা আগের বছরের চেয়ে ৩ লাখ ৪০ হাজার টন বেশি।

কদিনের বৃষ্টিতে বাজারে পিঁয়াজের সরবরাহ কমে গেছে সত্য। কিন্তু এ জন্য দাম এতটা বাড়বে, তা ভেবে কূল পাচ্ছে না সচেতন জনগোষ্ঠী। আসলে সঠিক তদারকির অভাবে বাজারকে অস্থিতিশীল করে তুলছে সিন্ডিকেট। তা না হলে গত বছর এই সময়ে ভরা মৌসুমে বাজারে পিঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ১৪ থেকে ১৬ টাকা কেজি। সে পিঁয়াজি এখন ৫০ টাকা। ভাবা যায়। এ যেন মগের মুল্লুক কাকে বলে।

লেখক : বার্তা সম্পাদক, পিএনএস

পিএনএস/জে এ /মোহন

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech