বাণিজ্যমেলার সময় বাড়ালে আন্দোলনে যাবে ব্যবসায়ীরা

  


পিএনএস ডেস্ক :ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলার সময় বাড়ানো হলে মঙ্গলবার (১২ ফেব্রুয়ারি) থেকে রাজধানীর সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে মিছিলসহ মেলার দিকে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

বুধবার (৬ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীতে এক সংবাদ সম্মেলনে এই ঘোষণা দেন দোকান মালিক সমিতির নেতারা।

নেতারা বলেন, বাণিজ্য মেলার সময় শহরে প্রায় পাঁচ লক্ষ দোকান এক মাস ক্রেতাশূন্য হয়ে পড়ে। যাতে প্রায় ২৫০০ কোটি টাকার ক্ষতি হয়।

সংবাদ সম্মেলনে তারা বলেন, বিশ্বস্ত সূত্রে আমরা জানতে পারেছি এক মাসের পরিবর্তে এই মেলাটি আরো ১০ থেকে ১৫ দিন সময় বৃদ্ধি করার পাঁয়তারা চলছে। এ বিষয়ে আমাদের স্পষ্ট বক্তব্য কোনোক্রমে এই মেলা এক মসের অতিরিক্ত সময় বৃদ্ধি করা হয় তাহলে আগামী ১২ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার ঢাকা শহরের সকল দোকান পাট বন্ধ করে আমরা মেলা অভিমুখে রওনা হব।

দোকান মালিক সমিতির চেয়ারম্যান হেলাল উদ্দিন বলেন, ‘বিশ্বস্ত সূত্রে আমরা জানতে পারেছি এক মাসের পরিবর্তে এই মেলাটি আরো ১০ থেকে ১৫ দিন সময় বৃদ্ধি করার পাঁয়তারা চলছে। এ বিষয়ে আমাদের স্পষ্ট বক্তব্য কোনোক্রমে এই মেলা এক মসের অতিরিক্ত সময় বৃদ্ধি করা হয় তাহলে আগামী ১২ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার ঢাকা শহরের সকল দোকান পাট বন্ধ করে আমরা মেলা অভিমুখে রওনা হব।’

আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা নাম হলেও এখানে বিদেশিদের অংশগ্রহণ শূন্যের কোটায় উল্লেখ করে সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ‘যেখানে নাই কোন পণ্যের গুনগত উৎকর্ষতা।...খুব ভালভাবে লক্ষ্য করলে দেখা যাবে, বেশিরভাগ উৎপাদনকারী ও ব্যবসায়ীরা তাদের গুদামে পড়ে থাকা দীর্ঘদিনের পুরনো পণ্যগুলো বিশেষ ছাড় ও লোভনীয় মূল্য হ্রাস ঘোষণার মধ্য দিয়ে মেলায় আগত ক্রেতারদের নিকট বিক্রি করে।’

‘এক্ষেত্রে বেশির ভাগ ক্রেতাই এসকল পণ্য কিনে প্রতারিত হয়ে থাকে। যা কোনোভাবেই আমরা সচেতন বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতি মেনে নিতে পারি না।’

বাণিজ্য মেলার কারণে ভোক্তাদের ‘প্রতারিত হওয়া ছাড়াও’ ব্যবসায়ীদের ক্ষতি হয় বলেও দাবি করা হয় সংবাদ সম্মেলনে।

মেলার সময় সীমা ৫ থেকে ৭ দিন করা, মানসম্মত পণ্য বিক্রিতে বাধ্য করা, মেলা প্রাঙ্গণ শহরের প্রাণকেন্দ্র থেকে সরিয়ে নেওয়া, এই ধরনের মেলার বদলে বর্হিবিশ^কে আমন্ত্রণ জানিয়ে বাংলাদেশি রপ্তানি মেলা আয়োজন, স্থায়ীভাবে মেলা কেন্দ্র স্থাপনের কাজ শুরু ২০২০ সালে সব মেলা সেখানে স্থানান্তরের দাবিও জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে।

প্রসঙ্গত, প্রতি বছর ১ জানুয়ারি থেকে মাসব্যাপী বাণিজ্য মেলা হয়। তবে এবার একাদশ সংসদ নির্বাচনের কারণে মেলা পেছানো হয় এক সপ্তাহ। ৮ জানুয়ারি থেকে ৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত মেলার ঘোষণা থাকলেও সম্প্রতি মেলার সময় সীমা বাড়ানোর দাবি উঠেছে।

এই মেলাকে ঘিরে প্রতি বছর এক ধরনের উন্মাদনা দেখা যায়। হাজার হাজার দর্শনার্থী প্রতিদিন মেলায় যায় পণ্য কিনতে বা দেখতে। তবে প্রকৃত উদ্দেশ্য যে বিদেশি ক্রেতাদের আকৃষ্ট করা, সেটি হয় কমই।

পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech