আদা-রসুন-পেঁয়াজের দাম কমছে

  

পিএনএস ডেস্ক : করোনাভাইরাসের মহামারি মধ্যে স্বস্তি ফিরতে শুরু করেছে আদা, রসুন ও পেঁয়াজের বাজারে। প্রায় দুই সপ্তাহ চড়ামূল্যে অবস্থান করা আদার দাম কমেছে। সহনীয় পর্যায়ে নামতে শুরু করেছে পেঁয়াজ আর রসুন। তবে এখনও বেশ চড়া মাছ আর মাংসের বাজার।

বিক্রেতাদের দাবি, প্রতি কেজি আদার দাম এক সপ্তাহের ব্যবধানে ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা কমেছে। বিক্রি হচ্ছে ১৩০ থেকে ১৪০ টাকায়। কেজিতে ১০ থেকে ১৫ টাকা দর নেমেছে পেঁয়াজ। এক কেজি দেশি পেঁয়াজের জন্য গুণতে হবে ৪০ টাকা। আমদানি করা রসুন কেজিতে ৩০ থেকে ৪০ টাকা কমে বিক্রি হচ্ছে ১৩০ থেকে ১৪০ টাকা। বেগুন ছাড়া কেজিতে ১০ থেকে ১৫ টাকা দাম কমেছে সব ধরনের সবজির।

তবে, বেশকিছু দিন স্থির থাকার পর আবারও বাড়ছে সবজি ও মাছের দাম। পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকলেও বেশিরভাগেরই দাম বেশি।

এদিকে বাজার ঘুরে দেখা গেছে আগের মতোই রুই মাছের কেজি বিক্রি হচ্ছে ২২০-৫০০ টাকা। নলা (ছোট রুই) মাছ বিক্রি হচ্ছে ১৬০-২০০ টাকা কেজি। তেলাপিয়া ১৩০-১৭০ টাকা, পাঙাশ ১৪০-১৮০ টাকা কেজি, শিং ৩০০-৪৫০ টাকা, শোল মাছ ৪০০-৭৫০ টাকা, পাবদা ৪৫০-৬০০ টাকা, বোয়াল ৫০০-৮০০ টাকা, টেংরা ৪৫০-৬০০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।

সবজির মধ্যে রোজায় দাম বড়ার এ তালিকায় রয়েছে পাকা টমেটো, চিচিংগা, পটল, পেঁপেও। রোজার আগে ১০-১৫ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া পাকা টমেটো এখন ৩০-৪০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। ২০-২৫ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া চিচিংগার দাম বেড়ে হয়েছে ৪০-৫০ টাকা। ২০-৩০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া পটলের দাম বেড়ে হয়েছে ৪০-৫০ টাকা। আর ১৫-২০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া পেঁপের দাম বেড়ে হয়েছে ৩০-৫০ টাকা। গত এক সপ্তাহ ধরে এ সবজিগুলোর এমন দামেই বিক্রি হচ্ছে।

রোজার আগে বেশকিছু সবজির দাম বাড়লেও করলা, বরবটি, ঝিঙার দাম আগের মতোই স্থির রয়েছে। বাজার ও মানভেদে করলার কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০-৪০ টাকা। বরবটি পাওয়া যাচ্ছে ৪০-৫০ টাকা কেজি। ঝিঙা ৪০-৫০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

এবার রমজানে স্থিতিশীল রয়েছে মুরগি ও ডিমের দাম। মাংসের কোন নির্ধারিত দর নেই বলে এক কেজি গরুর মাংসের জন্য দিতে হচ্ছে ৬শ’ থেকে সাড়ে ৬শ’ টাকা।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন