কুরবানী ঈদকে সামনে রেখে সীমান্ত পথে বাড়ছে পশু আমদানি

  

পিএনএস, বেনাপোল : কুরবানী ঈদকে সামনে রেখে দেশের দক্ষিন পশ্চিমাঞ্চলের শার্শা বেনাপোল সীমান্ত পথে নিরবে পশু আমদানি বাড়তে শুরু করেছে। জমে উঠছে পুটখালি ও সাতমাইল পশু হাট- কমছে মাংসের দাম- ঢাকা চিটাগাং থেকে গরু ব্যাপারীরা সীমান্তের পশু হাটে আসতে শুরু করেছে। গরু বেচা কেনা বাড়ছে বহু গুন। গত জুলাই মাসে যশোরের নাভারন পশু করিডর থেকে ৩২৮৮টি গরুর ভ্যাট রেজিষ্ট্রেশন করা হয়েছে বলে জানান নাভারন পশু করিডরের সহকারি রাজস্ব কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম। তিনি জানান- জুন মাসে গরুর ভ্যাট রেজিষ্টেশন করা হয় ২৭২৩টি। যা গত তিন দিনে ৫২৬টি গরুর ভ্যাট রেজিষ্ট্রেশন করা হয়। গরু আমদানি বাড়ায় স্থানীয় বাজারে ৩৪০ থেকে ৩৬০ টাকা কেজি দরে মাংশ বিক্রি হচ্ছে।

চিটাগাং থেকে মঙ্গরবার বিকালে শার্শা সাতমাইল পশু হাটে গরু কিনতে আসা ব্যাপারী বখতিয়ার ও সুমন হোসেন বলেন-গত ঈদে তারা কোন গরু কিনতে পারেননি। এবার হাটে গরু উঠেছে ভাল। বেচা বিক্রি হচ্ছে বলে জানান তারা। একই কথা বলেন ঝিকর গাছা থেকে গরু কিনতে আসা আশরাফ আলী বলেন,ভারতীয গরু কম বেশী আসছে। দামে নাগালের মধ্যে। ১০টি গরু কিনেছেন বলে জানান তিনি।

মুসলিম সম্প্রদায়ের বৃহৎ ধর্মীয় উৎসব কুরবানীর ঈদ। ঈদকে সামনে রখে যশোরের বেনাপোল পুটখালি ও অগ্রভুলোট সীমান্ত পথে বেড়েছে পশু আমদানি। স্থানীয় বাজারে কমতে শুরু করেছে মাংসের দাম। বাজার ভেদে ৩৮০ টাকার মাংস বিক্রি হচ্ছে ৩৪০ থেকে ৩৫০ টাকা কেজি।ফলে মাংস ক্রেতাদের মধ্যে স্বস্তি ফিরতে শুরু করেছে। সীমান্ত পথে ভারতীয় গরু আসা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বেড়ে যায় গো মাংসের দাম। আবারও ভারতীয় গরু আমদানি শুরু হওয়ায় মাংসের দাম কমেছে বলে জানান ব্যব্সায়ি ও ক্রেতারা।

দেশের বৃহত্তর স্থল বন্দর বেনাপোলের ৫ কিলোমিটার দক্ষিণ পশ্চিম সীমান্তের কোল ঘেষেই অবস্থিত বৃহৎ পুটখালি পশু খাটাল। ভারত থেকে প্রতিদিন খাটালে আসতো হাজার হাজার গরু, মহিস। নাভান শুল্ক করিডর থকে ভ্যট র‌্যাজিষ্ট্রেশন করে সাতমাইল ঝিকরাগাছা নাভারন সহ দেশের বিভিন্ন পশু হাটে রফতানি হতো ভারতীয় গরু। আমিষের চাহিদা পুরন সহ গো মাংসের দাম ছিল ২শ থেকে ৩শ টাকার মধ্যে। ভারতীয় বিএসএফের কড়াকড়ি সহ পানি পথে স্প্রীড বোটে টহল জোরদার করায় বন্ধ হয়ে যায় সীমান্ত পথে গরু আসা। বেকান হয়ে পড়ে গরু ব্যাবসার সাথে জড়িত কয়েক হাজার মানুষ। এক লাফে কেজিতে এক থেকে দেড়শ টাকা বেড়ে যায় গরু মাংসের দাম। বেনাপোল যশোর সহ দেশব্যাপি গোমাংসের দাম বেড়ে দাড়ায় এক কেজি ৩৭০ থেকে ৩৮০টাকা।

নাভারন বাজারের মাংস বিক্রেতা সহিদুল ইসলাম বলেন,ভারতীয় গরু আসা বন্ধ হওয়ায় বেড়ে যায় মাংসের দাম। এখন আসছে গরু কমছে মাংসের দাম।

শার্শা বাজারের মাংস ক্রেতা মিহির আলী বলেন- এক মাস আগে এক কেজি মাংস কিনকে হতো ৩৮০টাকায় এখন ৩২০ থেকে ৩৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে এক কেজি মাংশ।

নাভারন পশু শুল্ক ষ্টেশনে কর্মরত কাষ্টম সুপার আব্দুস সালাম বলেন- ২০১৫ সালের জানুয়ারী থেকে কমতে থাকে ভারত থেকে সীমান্ত দিয়ে পশু আমদানি। ২০১৪ সালের ডিসেম্বর শুধু এক মাসেই শুল্কায়ন করা হয় ৮১হাজার গরুর। যা গত তিন মাসে পশুর শুল্কায়ন করা হয় ৩৭ হাজার। কয়েক মাস কম ছিল পশু করিডর। আবারও কমবেশী গরু আমদানি শুরু হয়েছে। যা গত জুন ১মাসে পশু করিডর হয় ২৭ শ গরু। চলতি জলাই গত ৯দিনে প্রায় ১২শ পশুর শুল্কায়ন করা হয় বলে জানান তিনি।

সীমান্ত পথে গরু আমদানি ওপেন হোক নাগালের মধ্যে থাকুক মাংসের দাম এমনটায় দাবী স্থানীয়দের।

পিএনএস/মো.সাইফুল্লাহ/মানসুর

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech