রাজধানীতে পৃথক তিন খুন

  

পিএনএস ডেস্ক : রাজধানীর পৃথক স্থানে গৃহবধূসহ তিনটি খুনের ঘটনা ঘটেছে। সবুজবাগে চোরের ছুরিকাঘাতে রাহাত মিয়া (২৬), ডেমরায় ছিনতাইকারীর গুলিতে বিকাশকর্মী রাশেদুল ইসলাম (২৫) ও কামরাঙ্গীরচরে স্বামীর ছুরিকাঘাতে পেয়ারা বেগম (৩৩) নামে এক গৃহবধূ খুনের ঘটনা ঘটেছে।

তিনটি খুনের ঘটনায়ই সুবজবাগ, ডেমরা ও কামরাঙ্গীরচর থানায় ভুক্তভোগীর পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা করা হয়েছে। সবুজবাগ থানা সূত্রে জানা গেছে, শনিবার দিবাগত রাতে মাদারটেক নতুন রাস্তা এলাকার একটি বাড়িতে চোর প্রবেশ করলে বাসার লোকজন টের পেয়ে ধাওয়া করে।

এ সময় চোরটি পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। পালিয়ে যাওয়ার রাস্তায় রাহাত সামনে পড়ে যায়।

পরে রাহাতের পেটে চোরটি ছুরিকাঘাত করে। গুরুতর আহত অবস্থায় রাহাতকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ভোর ৫টার দিকে রাহাত মারা যায়।

সে সবুজবাগ মাদারটেক চৌরাস্তা এলাকার বাবুল মিয়ার একমাত্র সন্তান। সবুজবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল কুদ্দুস বলেন, ছুরিকাঘাতের ঘটনায় নিহতের বাবা বাবুল মিয়া বাদী হয়ে মামলা করেছেন। তদন্ত চলছে তবে এখনও কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি।

রাজধানীর ডেমরার পশ্চিম বক্সনগরে ৭২ হাজার টাকা ছিনতাইকালে ছিনতাইকারীর গুলিতে বিকাশকর্মী রাশেদুল ইসলাম (২৫) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন।

গতকাল দুপুর ১২টার দিকে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। রাশেদুল মোবাইল ব্যাংকিং বিকাশের বিক্রয় প্রতিনিধি ছিলেন। ডেমরা থানা সূত্রে জানা গেছে, নিহত রাশেদুল ইসলামের গ্রামের বাড়ি ঝিনাইদহে। ভাই ও বোনের সঙ্গে সে ডেমরার পশ্চিম বক্সনগর এলাকায় থাকত। পাশাপাশি সে মোবাইল ব্যাংকিং বিকাশে চাকরি করত। ঘটনার দিন সে তার দায়িত্বপালন করছিল।

এ সময় ছিনতাইকারীরা তাকে গুলি করে। ডেমরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. সিদ্দিকুর রহমান জানান, বিকাশের ওই কর্মীর কাছ থেকে ৭২ হাজার টাকা ছিনতাইকালে ছিনতাইকারীরা তাকে গুলি করে। আমরা মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মিটফোর্ড মর্গে পাঠিয়েছি। আর তার পরিবারের লোকজন থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছে। তবে এই ঘটনায় এখনও কাউকে আটক করা হয়নি।

এদিকে রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরে পারিবারিক কলহের জেরে স্বামীর ছুরিকাঘাতে পেয়ারা বেগম (৩৩) নামে এক গৃহবধূ খুন হয়েছেন। গতকাল সকালে এ ঘটনা ঘটে। পেয়ারার বাড়ি বরিশাল বাকেরগঞ্জ উপজেলার কলমকাঠি গ্রামে। তার স্বামীর নাম সোহরাব হোসেন। তারা পরিবার নিয়ে কামরাঙ্গীরচর রনি মার্কেট এলাকায় ভাড়া থাকতেন।

কামরাঙ্গীরচর থানাসূত্রে জানা গেছে, পেয়ারা বেগমের স্বামী সোহরাবের সঙ্গে তার পারিবারিক কলহ ছিল। এ নিয়ে প্রায়ই ঝগড়া বাধত। ঘটনার দিন সকালে পারিবারিক তুচ্ছ বিষয় নিয়ে তাদের মধ্যে আবার ঝগড়া লাগে। একপর্যায়ে সোহরাব পেয়ারার গলায় ছুরিকাঘাত করে।

পরে তার ছেলে শামীম হোসেনসহ অন্যরা দ্রুত তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। কামরাঙ্গীরচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহিন ফকির বলেন, এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। তবে ঘাতক স্বামী সোহরাব পলাতক রয়েছে। তাকে ধরতে অভিযান চলছে।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech