কলেজছাত্রীকে পেট্রোল ঢেলে হত্যার চেষ্টা, আটক ১৯

  

পিএনএস ডেস্ক : পাবনার সাঁথিয়া উপজেলায় এক মুক্তিযোদ্ধার বাড়িতে হামলা চালিয়ে তার কলেজ পড়ুয়া মেয়ের শরীরে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। গতকাল রোববার উপজেলার নাগডেমরা গ্রামে ঘটনাটি ঘটেছে।

কলেজছাত্রী মুক্তি খাতুনকে (২০)প্রথমে সাঁথিয়া ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, তার শরীরের ৬২ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে।

ঘটনায় মুক্তির বাবা মুক্তিযোদ্ধা মোজ্জাম্মেল হক বাদী হয়ে ৩২ জনকে আসামি করে রোববার রাতে সাঁথিয়া থানায় একটি মামলা করেছেন। এ ঘটনায় পুলিশ এখনও পর্যন্ত ১৯ জনকে গ্রেপ্তার করেছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে,নাগডেমরা গ্রামের উন্মুক্ত জলাশয় দখলকে কেন্দ্র করে মোজাম্মেল হক ও সালাম গ্রুপের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল।রোববার সালামের নেতৃত্বে ৩০ থেকে ৪০ জন লোক দেশীয় অস্ত্রসহ মোজ্জাম্মেলের বাড়িতে হামলা চালায়। হামলার বিষয়টি টের পেয়ে মোজাম্মেলসহ বাড়ির অন্য পুরুষ সদস্যরা নদী পার হয়ে পালিয়ে যায়। পুরুষদের না পেয়ে হামলাকারীরা মুক্তির গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। এ সময় তার চাচাতো বোন আফরোজা খাতুন (৩০) এগিয়ে এলে হামলাকারীরা তাকেও পিটিয়ে আহত করে। দুর্বৃত্তরা ফিরে যাওয়ার সময় মোজাম্মেলের একটি ঘরে আগুন লাগিয়ে দেয়। আহত মুক্তি ও আফরোজাকে স্থানীয়রা সাঁথিয়া হাসপাতালে ভর্তি করেন।পরে মুক্তিকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

ওই রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন পাবনা পুলিশ সুপার (এসপি) শেখ রফিকুল ইসলাম,সাঁথিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহাঙ্গীর আলম,বেড়া সার্কেল সহকারী পুলিশ কমিশনার (এএসপি) আশিস বিন হাসান ও র্যা বের প্রতিনিধি দল।

ঘটনার পর থেকেই এলাকায় থমথমে পরিবেশ বিরাজ করছে। দুগ্রুপের মধ্যে যে কোনো মুহুর্তে বড় ধরনের সংঘর্ষের আশঙ্কায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

বেড়া সার্কেল এএসপি আশিস বিন হাসান বলেন,‘ঘটনার সংবাদ পেয়ে আমরা দ্রুত ঘটনাস্থলে যাই। অগ্নিদগ্ধ কলেজছাত্রীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠাই। এ ব্যাপারে থানায় মামলা হয়েছে। ১৯ জন আসামী আটক হয়েছে। বাকিদের আটকের জন্য পুলিশ ও ডিবির টিম চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।’

আবারও হামলার ভয়ে মোজাম্মেল হক পালিয়ে বেড়াচ্ছেন বলে তার বক্তব্য জানা যায়নি।

উল্লেখ্য, উন্মুক্ত জলাশয় দখলকে কেন্দ্র করে সালাম ও মোজাম্মেল হক গ্রুপের মধ্যে গত ২৯ জুলাই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ওই সংঘর্ষকে কেন্দ্র করে উভয় পক্ষই থানায় মামলা করে।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech