মুক্তাগাছায় অ্যাম্বুলেন্স থেকে ৩৫ কন্টেইনারে হাজার লিটার মদ উদ্ধার, চালক আটক

  

পিএনএস, ময়মনসিংহ প্রতিনিধি : ময়মনসিংহের মুক্তাগাছায় একটি অ্যাম্বুলেন্স থেকে ৩৫টি প্লাস্টিকের কন্টেইনারে প্রায় হাজার লিটার বাংলা মদ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় অ্যাম্বুলেন্স চালক শহীদুল ইসলামকে আটক করা হয়। তবে এসব মদ বৈধ দাবি করে তা ছাড়িয়ে নিতে সুপারিশ করেছিল জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পরিদর্শক চন্দন গোপাল সুর। মুক্তাগাছা থানা পুলিশ এ কথা জানায়।

বৃহস্পতিবার (২১ মার্চ) দুপুরে ৩৫টি প্লাস্টিকের কন্টেইনারে প্রায় হাজার লিটার বাংলা মদসহ অ্যাম্বুলেন্সটি আটক করা হয়। আটকের পর চালক শহীদুল ইসলাম বলেন, ময়মনসিংহ থেকে ১০০০ লিটার বাংলা মদ টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলার পোড়াপাশা গ্রামে নিয়ে যাচ্ছিলেন তিনি। সেখানকার মোঃ রনি মিয়া নামে একজন ওই মদের মালিক।

মুক্তাগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলী আহমেদ মোল্লা জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে ময়মনসিংহ থেকে একটি অ্যাম্বুলেন্স টাঙ্গাইলের দিকে যাচ্ছিল। মুক্তাগাছা শহরে পৌঁছলে থানার এসআই আলী আজহারের নেতৃত্বে থাকা একদল পুলিশের সন্দেহ হলে অ্যাম্বুলেন্সটি আটক করে। পরে তল্লাশি করলে রোগীর বদলে ভেতরে দেখা মেলে ৩৫টি প্লাস্টিকের কন্টেইনার। প্রত্যেকটি কন্টেইনারে পাওয়া যায় বাংলা মদ। পরে পুলিশ সেটিকে থানায় নিয়ে যায়।

তিনি আরও বলেন, মদসহ অ্যাম্বুলেন্স আটকের খবর পেয়ে ময়মনসিংহ থেকে জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পরিদর্শক চন্দন গোপাল সুর মুক্তাগাছা থানায় গিয়ে এসব মদ বৈধ দাবি করে মদসহ অ্যাম্বুলেন্সটি ছাড়িয়ে নিতে এসেছিলেন। কিন্তু পুলিশ তার কথা রাখেননি।

ওসি আরো বলেন,মাদক নির্মূলে জিরো টলারেন্স নিয়ে কাজ করছে পুলিশ। আটক মদ বিষয়ে তদন্ত করা হচ্ছে। থানায় মাদক মামলার প্রস্তুতি চলছেও বলে জানান তিনি।

এ বিষয়ে জানাতে ময়মনসিংহ জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক পরিতোষ কুমার কুন্ডু'র ফোনে ফোন দিলেও তিনি রিসিভ করেননি।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল




 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech