বেড়েছে রেমিটেন্স প্রবাহ

  

পিএনএস ডেস্ক : বিদেশে জনশক্তি রফতানির হার কমলেও রেমিটেন্স প্রবাহ বেড়েছে। মঙ্গলবার মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে উপস্থাপিত মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলোর ২০১৭-১৮ অর্থ বছরের কার্যাবলি সম্পর্কিত বার্ষিক প্রতিবেদনে এ তথ্য দেওয়া হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে আট লাখ ৬৭ হাজার ১২৮ জনকে বিদেশে পাঠানো হয়েছে। আগের অর্থবছরের তুলনায় যা ২৬ হাজার ৯২৬ জন কম। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে আট লাখ ৯৪ হাজার ৫৪ জনকে বিদেশে পাঠানো হয়েছিল।

বৈঠক শেষে সচিবালয়ে বার্ষিক প্রতিবেদনের এসব তথ্য সাংবাদিকদের জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম।

মন্ত্রিসভায় বাংলাদেশ সুগারক্রপ গবেষণা ইনস্টিটিউট আইন ২০১৮-এর খসড়া, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশন আইন ২০১৮-এর খসড়া এবং রফতানি নীতি ২০১৮-২১-এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে মাথাপিছু জাতীয় আয়, আমদানি-রফতানি, সরাসরি বৈদেশিক বিনিয়োগের পরিমাণ এবং রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ও পরিমাণ বেড়েছে। মাথাপিছু আয় গত এক বছরে বেড়েছে ১৪৯ মার্কিন ডলার। গত বছর মাথাপিছু আয় ছিল ১৬০২ মার্কিন ডলার। এ বছর তা ১৭৫১ ডলারে পৌঁছেছে। এছাড়া জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার সাত দশমিক ৮৬ শতাংশ। বিদায়ী অর্থবছরে মোট রফতানির পরিমাণ ৪১ দশমিক এক শতাংশ এবং রফতানি প্রবৃদ্ধির হার সাত দশমিক ৭৫ শতাংশ। রাজস্ব আদায় ১৪ দশমিক ৭৮ শতাংশ এবং রেমিট্যান্স প্রবাহের পরিমাণ ১৭ দশমিক ৩১ শতাংশ বেশি। বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে পূর্ববর্তী অর্থবছরের তুলনায় ৪০,৯৪৭ কোটি টাকা বেশি ব্যয় হয়েছে। বিদায়ী অর্থবছরে সরাসরি বৈদেশিক বিনিয়োগের (ইপিজেড ও নন-ইপিজেড) পরিমাণ দুই দশমিক ৫৮১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার-যা আগের বছরের তুলনায় ৫ দশমিক ১৮ শতাংশ বেশি।

শফিউল আলম বলেন, ২০১৭ সালে দেশে দারিদ্রের হার ছিল ২৩ দশমিক এক শতাংশ, ২০১৮ সালে তা কমে ২১ দশমিক আট শতাংশে দাঁড়িয়েছে। চরম দারিদ্রের হার ১২ দশমিক এক শতাংশ থেকে কমে ১১ দশমিক তিন শতাংশ হয়েছে।

জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার ২০১৮ সালের প্রতিবেদন অনুযায়ী, অভ্যন্তরীণ মুক্ত জলাশয়ে মৎস্য আহরণে সারাবিশ্বে বাংলাদেশ তৃতীয় স্থান অর্জন করে। এছাড়া আগের অর্থবছরের তুলনায় বিদায়ী বছরে চাল, ভুট্টা, আলু, পেঁয়াজ, পাট, মৎস্য, মাংস, দুধ, ডিম গ্যাস, কয়লা, এবং কঠিন শিলার প্রকৃত উৎপাদন বেড়েছে। বাংলাদেশ মাছ ও মাংস উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, বিদায়ী অর্থবছরে শেষ পর্যন্ত দেশের সর্ববৃহৎ পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়নে কাজের অগ্রগতি হয়েছে ৬০ শতাংশ। উন্নয়ন খাতের আওতায় ৪৩ দশমিক ৬৪ কিলোমিটার মহাসড়ক চার লেনে উন্নীতকরণ, ৩৪ দশমিক ৮৭ কিলোমিটার বিদ্যমান রেলপথ পুনর্বাসন এবং ৫০ কি. মি. নতুন রেলপথ নির্মাণ হয়েছে। সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতায় চলমান কর্মসূচিগুলোর অগ্রগতিও তুলে ধরেন তিনি।

শফিউল আলম বলেন, বাংলাদেশ সুগার ক্যান গবেষণা ইনস্টিটিউট আইনকে বাংলাদেশ সুগারক্রপ গবেষণা ইনস্টিটিউট আইনে পরিবর্তন করা হয়েছে। এতে চিনি জাতীয় আরও কিছু পণ্য যুক্ত হয়েছে।

বিআরটিসির ১৯৬১ সালের অর্ডিন্যান্সকে যুগোপযোগী করতে মন্ত্রিসভায় অনুমোদিত বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশন আইন ২০১৮ অনুযায়ী, করপোরেশনের চেয়ারম্যানকে সভাপতি করে নতুন পরিচালনা পর্ষদ গঠন করা হবে। আগে করপোরেশনের অনুমোদিত মূলধন ছিল ছয় কোটি টাকা। নতুন আইনে করপোরেশনের অনুমোদিত মূলধনের পরিমাণ এক হাজার কোটি টাকা করার প্রস্তাব করা হয়েছে। প্রতিটি ১০ টাকা মূল্যের ১০০ কোটি সাধারণ শেয়ারে তা বিভক্ত হবে।
রফতানি নীতি ২০১৮-২১ : মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, রফতানি নীতির সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার ১২টি খাতের সঙ্গে আরও তিনটি এবং বিশেষ উন্নয়নের ২০ টি খাতের সঙ্গে পাঁচটি খাত যুক্ত করা হয়েছে।
মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ প্রস্তুত : বৈঠকের পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেন, নির্বাচনকে সামনে রেখে মন্ত্রিসভা পুনর্গঠনের প্রক্রিয়ায় সরকার যে সিদ্ধান্ত দেবে, সে অনুযায়ী পদক্ষেপ নিতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ প্রস্তুত রয়েছে। নির্বাচনকালীন মন্ত্রিসভায় কী ধরনের পরিবর্তন আসবে, সে বিষয়ে তিনি কোনো ধারণা দিতে পারেননি।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, টেকনোক্র্যাট মন্ত্রীদের পদত্যাগের নির্দেশনা পেলে এ সংক্রান্ত সারসংক্ষেপ রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ে পাঠানো হবে। সারসংক্ষেপ অনুমোদন হলে প্রজ্ঞাপন জারি হবে।

তিনি বলেন, মন্ত্রিসভার আকার যাই হোক না কেন, নিয়মিতভাবেই এই বৈঠক চলবে। অর্ন্তবর্তীকালীন সরকার বা অন্য যে ভাষায়ই বলা হোক না কেন, এই সময় মন্ত্রিসভার বৈঠক অব্যাহত থাকবে।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech