বেরোবিতে মেয়েদের হল আবাসিকতা: চার মাসেও শেষ করতে পারেনি কার্যক্রম - শিক্ষা - Premier News Syndicate Limited (PNS)

বেরোবিতে মেয়েদের হল আবাসিকতা: চার মাসেও শেষ করতে পারেনি কার্যক্রম

  

পিএনএস, বেরোবি প্রতিনিধি : একাডেমিক সেশনজটের মতোই হলের আবাসিকতার জন্য জটের নাকালে পড়েছে রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ( বেরোবি) শিক্ষার্থীরা। হলের আবাসিকতার জন্য গত বছরের অক্টোবর মাসে ফরম জমাদান থেকে শুরু করে প্রায় চার মাস হতে চললেও ফলাফল দিতে পারছেনা হল কর্তৃপক্ষ।

ইতোমধ্যে সাক্ষাৎকার গ্রহণ থেকে এখন পর্যন্ত এক মাস পেরিয়ে গেছে। প্রভোস্টসহ ৭ জন সহকারি প্রভোস্ট থাকলেও এখন পর্যন্ত ফলাফল দিতে পারেনি হল কর্তৃপক্ষ। পূর্ণ প্রভোস্ট বডি থাকতেও অবহেলায় আটকে রয়েছে হলটির গত বছরের আবাসিকতা কার্যক্রম। সাক্ষাৎকার গ্রহণের এক মাস কেটে গেলেও ‘প্রসেসিং’এর জোরে আটকে রয়েছে ফলাফল।

এ বিষয়ে জিজ্ঞেস করলে হলটির প্রভোস্ট ড. সরিফা সালোয়া ডিনা বলেন, ‘কাজ করছি, বর্তমান সপ্তাহেই (৩ ফেব্রুয়ারি থেকে ৮ ফেব্রুয়ারি) দিয়ে দিবো।’ তিনি আরো বলেন, অনাবাসিক ৩৬ জন সাক্ষাৎকারপ্রার্থীর রেজাল্ট প্রদান করা হবে। তাঁর বক্তব্য অনুযায়ী, ৮ ফেব্রুয়ারি ফলাফল প্রকাশ না হওয়ায় বিষয়টি জানতে কল করলে তিনি তা রিসিভ করেননি।

এ সময় হলের সেকশন অফিসার ( গ্রেড-২) মাহাবুবা আক্তার বলেন, ‘যেহেতু রেজাল্ট দেওয়ার কথা হল প্রভোস্ট আপনাকে বলেছে, তাই তাঁকে কল করেন।’ ফলাফল প্রকাশের ব্যাপারে জানতে সহকারি প্রভোস্ট কুন্তলা চৌধুরীকে কল করা হলে বলেন, রেজাল্টের ব্যাপারে আমরা কয়েকবার বসেছি কিন্তু সম্পন্ন করতে পারেনি।তবে সামনের সপ্তাহের প্রথমদিকে রেজাল্ট দিতে পারবো।

এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন শিক্ষার্থী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, অনেকদিন হলো সাক্ষাৎকার দিয়েছি।রেজাল্ট না হওয়ায় আমরা সমস্যায় আছি।আমরা অতিদ্রুত রেজাল্ট চাই। জানা যায়, শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলে নতুন প্রভোস্টসহ চারজন সহকারি প্রভোস্ট নিয়োগ হয় ২০১৭ সালের ৬ আগস্ট। হলটির আবাসিকতার নোটিশ প্রদান করা হয় ২০১৭ সালের ১৭ অক্টোবর। আবাসিকদের জন্য কাগজপত্র জমাদানের তারিখ নির্ধারণ করা হয় ২২ অক্টোবর এবং অনাবাসিকদের জন্য ২৬ অক্টোবর। ২৭ নভেম্বর প্রভোস্ট বডি পূর্ণ করতে আরেকজন সহকারি প্রভোস্ট নিয়োগ দেওয়া হয়। হল আবাসিকতার জন্য অনাবাসিকদের সাক্ষাৎকারের জন্য তারিখ নির্ধারণ করা হয় ৮ ও ৯ জানুয়ারি।

উল্লেখ্য, মোট ৩৩৫৫ বর্গ মিটার আয়তনের এবং পাঁচতলা বিশিষ্ট হলটি ৬ কোটি ৭০ লাখ টাকা নির্মাণে ব্যয়ে ২০১৩ সালের ১৪ জুলাই উদ্বোধন করা হয় হলটি ।প্রথম প্রভোস্ট ছিলেন বাংলা বিভাগের অধ্যাপক প্রফেসর ড. সরিফা সালোয়া ডিনা।এর পর প্রভোস্ট হিসেবে মার্কেটিং বিভাগের শিক্ষক জাহিদ হাসান ও বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. সাইদুল হককে দায়িত্ব দেওয়া হয়।

২০১৫ সালের মাঝামাঝি সময়ে বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. আবু ছালেহ মোহাম্মদ ওয়াদুদুর রহমানকে প্রভোস্টের দায়িত্ব প্রদান করা হয়।২০১৭ সালে আবারো প্রভোস্টের দায়িত্ব পান ড. সরিফা সালোয়া ডিনা।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech