কালীগঞ্জে খোলা আকাশের নীচে শিক্ষার্থীদের পাঠদান

  

পিএনএস, কালীগঞ্জ (গাজীপুর) থেকে মুজিবুর রহমান : গাজীপুরের কালীগঞ্জে ভুমিকম্পনে ঝুকিপূর্ন হয়েপড়া জাঙ্গালীয়া মুনতলি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে । খোলা আকাশের নীচে । রোদে পূড়ে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের চলছে পাঠদান। এ দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে শিক্ষার্থী, শিক্ষকসহ এলাকা বাসির।

জানা যায়, উপজেলার জাঙ্গালিয়া ইউনিয়নের জাঙ্গালীয়া মুনতলি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ১৯৯৪সালে স্থাপিত হয় ৪ কক্ষ বিশিষ্ট্য ওই স্কুলের একটি সরকারী ভবন করা হয়েছে। তার পর দীর্ঘ দিন যাবৎ সরকারিভাবে ওই ভবনের কোন নির্মাণ কাজ হয়নি।

তবুও কোনো রকম পাঠদান চলছিল। বিগত কালবৈশাখী ঝড় ও পর পর তিন বার ভুমিকম্পনের ফলে স্কুল ভবণটি ঝুকিপূর্ন হয়ে পরেছে। যে কোনো সময় ভবণটি ধ্বসে বড়ধরনের র্দূঘটনা ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা করছে স্কুল পরিচালনা পরিষদ, শিক্ষক, শিক্ষার্থী অভিভাবক, স্থানীয় নেতৃবর্গসহ শিক্ষার্থীরা।

বুধবার সকালে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ভবণটি ঝুকিপূন হওয়ায় খোলা আকাশের নিচে ও প্রচন্ড রোদের তাপের মধ্যেই চলছে ওই কোমলমতি শিক্ষার্থীদের পাঠদান্। এ অবস্থায় শিশু শ্রেণী থেকে ৫ম শ্রেণী পষর্ন্ত ৫টি ক্লাশে প্রায় ১০০ জন শিক্ষার্থীকে রোদ-বৃষ্টি ঝড় মাথায় নিয়ে প্রতিদিন ক্লাস করতে হচ্ছে।

এ বিষয়ে স্কুলের প্রধান শিক্ষক ফজলুল হক, সহকারী নাছিমা বেগম, হাছিনা বেগম ও স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি সোহাগ হোসেন শেখ ও সহ-সভাপতি দেলোয়ার হোসেন ভুইয়া প্রতিবেদকে জানান, স্কুলের ভবনটি দীর্ঘ প্রায় ৬বছর ধরে ঝড়াজীর্ন ও ভয়ংকর ফাটল থাকায় তৎকালীন কালীগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. আবু ইউসুফ খান ৪ মে ২০১৪ ইং সালে শ্রেণী কক্ষে শিক্ষাক্রম পরিচালনা না করে বিকল্প ব্যবস্থায় পাঠদান করার নিদের্শ দেন।

গত প্রায় ৫ বছর যাবত ভবনের ব্যবস্থা না থাকায় শিক্ষার্থীদের খোলা আকাশের নীচে ও গাছ তলায় বাশঁ ও ভাংগা টিন দিয়ে বেড়া দিয়ে কোনো রকম পাঠদান করছি। এ অবস্থায় একটু ঝড়-বৃষ্টি হলেই আমাদের চরম বিপাকে পড়ে ক্লাশ না নিয়ে শিক্ষার্থীদের ছুটি দিতে হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খন্দকার মু. মুশফিকুর রহমান এ বিযয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ব্যাপারটা আমার জানা নাই। তবে আপনার মাধ্যমেই আমি বিষয়টি জানতে পারলাম । আমরা উপজেলায় কনেক গুলো স্কুল সংস্কারসহ ভবন নির্মাণ করেছি। স্কুলের প্রধান শিক্ষককে অফিসে আসতে বলবেন।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(শিক্ষা ও আইসিটি) দিদারে আলম মোহাম্মদ মাকসুদ চৌধুরী প্রতিবেদককে জানান, বিষয়টি আমার জানাছিল না। তবে জানতে পারলাম । আমরা এর দ্রুত ব্যাবস্থা নিব।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech