ঢাবির ‘ঘ’ ইউনিটে বিশেষ পরীক্ষা চায় ছাত্রলীগ

  

পিএনএস ডেস্ক : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ঘ ইউনিটের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা পুনরায় নেওয়া ও পরীক্ষা পদ্ধতি সংশোধনসহ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে চারটি দাবি জানিয়েছে ছাত্রলীগ। আজ বৃহস্পতিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সঞ্জিত চন্দ্র দাস ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ দাবি জানানো হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে স্বচ্ছ, মানসম্পন্ন, মেধাভিত্তিক পরীক্ষার স্বার্থে এবং সাধারণ শিক্ষার্থীদের প্রত্যাশিত আধুনিক, জ্ঞানভিত্তিক, গবেষণা-বিশ্ববিদ্যালয়ের লক্ষ্যকে সামনে রেখে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় নিম্নলিখিত বিষয়গুলোর আলোকে অনতিবিলম্বে গ্রহণযোগ্য সমাধানের দাবি জানাচ্ছে।

ছাত্রলীগের দাবিগুলো হচ্ছে—১. যাচাই-বাছাই সাপেক্ষে পুনরায় ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া অথবা উত্তীর্ণ পরীক্ষার্থীদের নিয়ে বিশেষ পরীক্ষার মাধ্যমে ঘ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার বিষয়ে সুস্পষ্ট সিদ্ধান্তে আসা, ২. ডিজিটাল জালিয়াতি, প্রশ্নফাঁস বা যেকোনো ধরনের অসদুপায় অবলম্বনকারীর বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ প্রশাসনিক ও আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া, ৩. সুস্পষ্ট তথ্য-প্রমাণ সাপেক্ষে জালিয়াতি বা অসদুপায়ের মাধ্যমে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীদের ছাত্রত্ব বাতিল এবং আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা, ৪. আধুনিক, যুগোপযোগী ও মানসম্পন্ন ভর্তি পরীক্ষার স্বার্থে শিক্ষাবিদ, বিশেষজ্ঞ, সিনেট, সিন্ডিকেট, অংশীজন এবং ছাত্র সংগঠনের প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে পলিসি ডিবেটের মাধ্যমে ভর্তি পরীক্ষা পদ্ধতির সংস্কার করা।

দাবির বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন বলেন, আমাদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে আমরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের ইতিবাচক সাড়া পেয়েছি। আমরা মনে করি ঘ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার ইস্যুতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন দ্রুত সিদ্ধান্ত নেবে এবং ভর্তি পরীক্ষা সংস্কারে সবার সঙ্গে কথা বলবে। তিনি বলেন, এই দাবির বিষয়ে অনশনরত শিক্ষার্থীর পাশেও আছে ছাত্রলীগ।

প্রসঙ্গত, গত ১২ অক্টোবর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে প্রথম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণির ভর্তি পরীক্ষায় ‘ঘ’ ইউনিটের প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ ওঠে। বিষয়টি আমলে নিয়ে গোয়েন্দা পুলিশের সহায়তায় ৬ ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে তাদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল জালিয়াতির অভিযোগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলাও করে ঢাবি কর্তৃপক্ষ। তাদের কাছে ওই প্রশ্নপত্রের হুবহু কপিও পাওয়া যায়। এ কারণে শিক্ষার্থী ও ভর্তি পরীক্ষার্থীদের একাংশের দাবি ছিল পরীক্ষা বাতিল করে নতুন করে পরীক্ষা নেওয়ার। তবে গত ১৬ অক্টোবর ঘ ইউনিটের ফল প্রকাশ করে ঢাবি কর্তৃপক্ষ। এতে ওই ইউনিটে পাসের হার ছিল ২৬ দশমিক ২১ শতাংশ।

আর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে উপাচার্য আখতারুজ্জামান বলেছিলেন, প্রশ্নফাঁসের অভিযোগ উঠলেই ফল প্রকাশ প্রশ্নবিদ্ধ হয় না। এদিকে, ফল প্রকাশের পর থেকেই ঢাবির ঘ ইউনিটের পরীক্ষা বাতিলের দাবিতে অনশন, মানববন্ধন ও সমাবেশ চালিয়ে যাচ্ছে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা বাতিলের দাবিতে আইন বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আখতার হোসেন গত মঙ্গলবার ঘ ইউনিটের ফল ঘোষণার দিন দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে অনশন করছেন। বৃহস্পতিবার দুপুর দুইটার দিকে অনশনরত আখতার হোসেন অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তাঁকে চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech