রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি কলিমউল্লাহর নজিরবিহীন অনুপস্থিতি

  

পিএনএস ডেস্ক : রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ( বেরোবি) যোগ দেওয়ার পর থেকে উপাচার্য নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহর বিরুদ্ধে নিয়মিত ক্যাম্পাসে না আসার অভিযোগ উঠেছে। তিনি বেশির ভাগ সময় নজিরবিহীন অনুপস্থিত থাকায় ভোগান্তির অভিযোগ তুলেছেন ভুক্তভোগী শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

জরুরি প্রয়োজনে ঢাকায় গিয়ে কাগজপত্রে স্বাক্ষর নিতে হয় বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অনেক শিক্ষার্থী।

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক গাজী মাজহা রুল আনোয়ার বলেন, উপাচার্য কলিমউল্লাহ ২০১৭ সালের ১ জুন এই বিশ্ববিদ্যালয়ের যোগ দেওয়ার পর থেকে ৬২৫ কার্যদিবসের মধ্যে মাত্র ১৬০ দিন ক্যাম্পাসে ছিলেন। এই হিসেবে তিনি ৪৬৫ দিন ক্যাম্পাসে যাননি।

শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, উপাচার্য দিনের পর দিন ক্যাম্পাসে না থাকায় বিশ্ববিদ্যালয়ের চেইন অব কমান্ড ভেঙে পড়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, উপাচার্য ক্যাম্পাসে থাকেন না সে বিষয়টি সবার জানা।

শিক্ষক-কর্মচারীরা জানান, বিশেষ কারণ ছাড়া ক্যাম্পাসে আসেন না উপাচার্য। সাধারণত সভা-সেমিনারের উদ্বোধন ও পরিচয়পত্র বিতরণসহ কিছু জাতীয় কর্মসূচিতে ক্যাম্পাসে আসেন তিনি। এবং সকালে এসে দুপুরে অথবা দুপুরে এসে রাতে ক্যাম্পাস ত্যাগ করেন তিনি।

উপাচার্যের দপ্তর জানিয়েছে, উপাচার্য কলিমউল্লাহ একাধিক বিভাগের প্রধানের দায়িত্ব ধরে রেখেছেন।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, জরুরি প্রয়োজনে বিভাগীয় প্রধানের স্বাক্ষর নিতে অনেক শিক্ষার্থীকে ঢাকায় যেতে হয়েছে।

উপাচার্য কলিমউল্লাহ যোগ দেওয়ার পর অধিকাংশ সিন্ডিকেট সভা, শিক্ষক নিয়োগ বোর্ড, কর্মকর্তা নিয়োগ বোর্ড ও কর্মচারী নিয়োগ বোর্ড ঢাকায় লিয়াজোঁ অফিসে অনুষ্ঠিত হয়েছে বলে অনেক শিক্ষক-কর্মচারী জানিয়েছেন।

অভিযোগ রয়েছে, এই উপাচার্য বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ক্ষেত্রে ব্যাপক রদবদল করেছেন এবং অনেককেই দুই থেকে চারটি পর্যন্ত প্রশাসনিক পদে বসিয়েছেন।

উপাচার্য বর্তমানে ঢাকায় রয়েছেন বলে জানিয়েছেন জনসংযোগ বিষয়ক কর্মকর্তা আরিফুল ইসলাম।

তিনি বলেন, মিটিং উপলক্ষে উপাচার্য রোববার ঢাকায় গেছেন। দুই দিন থাকবেন।

এ বিষয়ে উপাচার্য কলিমউল্লাহর মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করে বন্ধ পাওয়া গেছে।

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সদস্য অধ্যাপক গাজী মাজহারুল আনোয়ার বলেন, দীর্ঘদিন ধরে আমরা বিষয়টি প্রত্যক্ষ করছি। শিক্ষক সমিতির সাধারণ সভায় বিষয়টি আলোচিত হয়েছে।

বিষয়টি রেজুলেশন আকারে পেশ করার কথাও জানান তিনি।


পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech