সন্ত্রাসী হামলার আশঙ্কায় নিরাপত্তা চেয়ে রাবির ৯ শিক্ষকের জিডি

  

পিএনএস ডেস্ক : সন্ত্রাসী হামলার আশঙ্কায় নিরাপত্তা চেয়ে থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) নয়জন শিক্ষক। রোববার নগরীর মতিহার থানায় তারা জিডিটি করেন।

রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সিদ্দিকুর রহমান। তিনি বলেন, জিডিটি গ্রহণ করা হয়েছে। আমরা বিষয়টি নিয়ে কাজ করছি।

ওই শিক্ষকরা হলেন, ভুতত্ত্ব ও খনিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক সুলতান-উল ইসলাম, সাবেক প্রক্টর ও মনোবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক মজিবুল হক আজাদ খান, প্রাণরসায়ন ও অণুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের ড. জাহাঙ্গীর আলম, সংগীত বিভাগের অধ্যাপক অসিত রায়, ভূগোল ও পরিবেশবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক মিজানুর রহমান, নাট্যকলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক এসএম ফারুক হোসেন, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক এক্রাম উল্ল্যাহ ও ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক আলী রেজা।

জিডিতে তারা উল্লেখ করেন, গত ১০ সেপ্টেম্বর দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষক ডীনস্ কমপ্লেক্সের শিক্ষক লাউঞ্জে আলোচনা করছিলেন। এ সময় তাদের কাছে খবর আসে আব্দুল্লাহ আল মামুন নামে একজন বহিরাগত ও রাবি স্কুলের সহকারী শিক্ষক হিসেবে সদস্য যোগ দেওয়া সাদ্দাম হোসেনের নেতৃত্বে কিছুসংখ্যক বহিরাগত ডীনস্ কমপ্লেক্সের বাইরে থাকা শিক্ষকদের গাড়িগুলোর গোপনে ভিডিও ধারণ করছে। পরে শিক্ষকরা সেখানে উপস্থিত হলে তারা শিক্ষকদের ছবিও ভিডিও ধারণ করে।

শিক্ষকরা জিডিতে অভিযোগ করেন, ‌‘ছবি ও ভিডিও ধারনের কারণ জানতে চেয়ে শিক্ষকরা এগিয়ে আসলে তারা সেখান থেকে চলে যায়। তবে যাওয়ার সময় তারা শিক্ষকদের লক্ষ্য করে অশ্রাব্য ভাষা ও আক্রমণাত্মক অঙ্গভঙ্গি প্রদর্শন করেন।’ ওই বহিরাতদের দ্বারা যেকোনো সময় হামলা ও তাদের গাড়ির ক্ষতি সাধন হতে পারে আশঙ্কা করে ডায়েরিতে শিক্ষকরা নিজেদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবি জানান।

তবে এ বিষয়ে উল্লেখকৃত রাবি স্কুলের সহকারী শিক্ষক সাদ্দাম হোসেন ও বহিরাগত আব্দুল্লাহ আল মামুনের সঙ্গে যোগাযোগ সম্ভব হয়নি।

প্রসঙ্গত, নিরাপত্তা চেয়ে জিডি করা ৯জন শিক্ষকই রাবির সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক মুহাম্মদ মিজানউদ্দিন পন্থী। তারা বর্তমান প্রশাসনের বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ এনে অপসারণ দাবি করে আসছিলেন। 'দুর্নীতি বিরোধী শিক্ষক সমাজ'র ব্যানারে তারা বর্তমান প্রশাসনের 'অনিয়মের' বিচার চেয়ে আন্দোলন করছিলেন। এতে প্রায় অর্ধশতাধিক শিক্ষক অংশ নেন। শিক্ষকদের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে আগামী ১৯ সেপ্টেম্বর বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনে রাবি উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান ও উপ-উপাচার্য অধ্যাপক চৌধুরী মো. জাকারিয়াকে তলব করা হয়েছে।

পিএনএস-জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন