ঈদের পর ডায়রিয়া হলে যা করবেন

  

পিএনএস ডেস্ক: দীর্ঘ এক মাস রোজা রেখে হঠাৎ ঈদের সময় ভারি ও তেলের খাবার খেয়ে অনেকেরই পেটে সমস্যা হয় বিশেষ করে ডায়রিয়া। তার মধ্যে গরমের এই সময়ে পানিবাহিত অসুখ ডায়রিয়ার প্রকপ বেশি থাকে। মেডিসিন বিশেষজ্ঞদের মতে, শিশুরা এই অসুখে তুলনামূলক বেশি আক্রান্ত হয়। কারণ তাদের রোগ প্রতিরোধ করার ক্ষমতা কম থাকে। তবে বড়দের ক্ষেত্রেও সময় মতো চিকিৎসা শুরু না করলে এই অসুখ মারাত্মক আকার নিতে পারে।

ডায়েরিয়া মূলত পানিবাহিত ব্যাকটেরিয়া থেকে ছড়ায়। আবার অতিরিক্ত ভুরিভোজ করলেও হতে পারে ডায়রিয়া। শরীরের পানি বেরিয়ে যায় বলে এই অসুখ খুবই দুর্বল করে তোলে। এই তীব্র রোদে পানি খাওয়ায় নজর না দিলে এই অসুখের শিকার হতে পারেন ঈদের এই ছুটির মধ্যে। তবে ঈদের ছুটিতে বেড়াতে গিয়ে যদি ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়েই যান তবে কি করবেন জেনে নিন।

চিকিৎসকদের মতে, এই অসুখ হলে প্রথমেই পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে। রান্নাঘর থেকে খাওয়ার জায়গা পরিষ্কার রাখুন। বাসনপত্র পরিষ্কার করতে বিশুদ্ধ পানি ব্যবহার করুন। মুখ ধোয়ার সময় ব্যবহার করুন পরিষ্কার ও শুদ্ধ পানি। সেটাও ফিল্টারের পানি হলে ভাল হয়।

ডায়েরিয়া হলে রাস্তার পানি খাবেন না। ঈদের ছুটিতে গ্রামের বাড়ি গেলে মিনারেল ওয়াটার বা ফোটানো পানি খান।

ডায়রিয়া হলে অনেক আগের রান্না করা খাবার খাবেন না। গরম অবস্থাতেই খান। ঠাণ্ডা হয়ে গেলে আবার গরম করে তবেই খান। কারণ, খাবার ঠাণ্ডা হলে তাতেও কিছু ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া তৈরি হয়।

ঈদের ছুটিতে বেড়াতে গেলে মজা করে ফুচকা, ঘুগনি, মোমো জাতীয় খাবার সবাই খেতে পছন্দ করেন। তবে ডায়রিয়া হলে এই সব খাবার খাওয়া যাবে না। এছাড়াও টক জাতীয় ও স্ট্রিট ফুড খাওয়া যাবে না।

গরমে অনেকেই ফল খেতে ভালোবাসেন কিন্তু তা ভাল ভাবে ধুয়ে পরিষ্কার করেই খেতে হবে। সবজি কিনে রান্না করার আগে বেশ কিছুক্ষণ গরম পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। তারপর রান্না করুন। এতে শাক-সবজির গা থেকে রাসায়নিক, রং ও সারের ক্ষতিকর প্রভাব যেমন মুক্ত হয় কিছুটা, তেমনই সবজি ধোয়ার পানির জীবাণু নষ্ট হয়।

গরমে যতটা সম্ভব সি-ফুড বা অল্প সেদ্ধ মাংস না খাওয়ার চেষ্টা করুন। এসব খাবার থেকে ডায়েরিয়ার জীবাণু ছড়ায়।

পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech