বিশ্ব ইজতেমায় ১৪ জানুয়ারি আখেরী মোনাজাত

  

পিএনএস ডেস্ক:গাজীপুরের টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে ২০১৮ সালের বিশ্ব ইজতেমার ৮০ শতাংশ প্রস্তুতিমূলক কাজ শেষ হয়েছে। প্রতিবছর বিশ্ব ইজতেমা ময়দানের প্রস্তুতির কাজ তাবলিগ জামায়াতে অংশ নেওয়া মুসল্লিরাসহ আশ পাশের লোকজন নিজেদের উদ্যোগে করে থাকেন। আগামী ১২ জানুয়ারি থেকে শুরু হয়ে ১৪ জানুয়ারি আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম ধাপ। ৪ দিন বিরতির পর ১৯ জানুয়ারি শুক্রবার থেকে শুরু হয়ে ২১ জানুয়ারি আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে ২০১৮ সালের বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় ধাপ।

বিশ্ব ইজতেমার মুরব্বী গিয়াস উদ্দিন জানান, দুই ধাপে ইজতেমার ময়দানে তাবলিগ জামায়াতের মুসল্লিসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে লোকজন এসে প্রতিদিন পর্যায়ক্রমে প্রায় ৫ হাজার লোক মিলে কাজ করছেন। গত বছরের মতো এবারও ২০১৮ সালে দুই ধাপে শুরু হবে বিশ্ব ইজতেমা। ইজতেমায় দেশের ৩২টি জেলার মুসল্লিসহ বিদেশি কয়েক হাজার মুসল্লি অংশগ্রহণ করবেন। আগামী ১২ জানুয়ারির আগেই বিশ্ব ইজতেমার ময়দানের প্রস্তুতির কাজ শেষ হবে। নিয়ম অনুযায়ী আঞ্চলিক পর্যায়ে যে সব জেলায় ইতিমধ্যে ইজতেমা হয়েছে সে সব জেলার মুসল্লিরা এ বিশ্ব ইজতেমায় অংশগ্রহণ করবেন না।

ইজতেমা ময়দানে প্রস্তুতির কাজে অংশগ্রহণকারী মো. আব্দুল কাইয়ুম জানান, বরিশাল জেলায় তার বাড়ি। তিনি সাভারে থেকে একটি কারখানায় কাজ করেন। প্রতি বছরের মতো এবারও ছুটির দিনগুলোতে ইজতেমা ময়দানে কাজ করতে আসেন। এখানে মুসল্লিদের সহযোগিতা করেন। সকাল থেকে বিকাল পাঁচটা পর্যন্ত কাজ করে সাভারে ফিরে যান তিনি।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সাল থেকে টঙ্গীর তুরাগ তীরে অনুষ্ঠিত বিশ্ব ইজতেমায় যোগদানের ব্যাপারে ৬৪ জেলার অংশগ্রহণকারীদেরকে ৪ ভাগে ভাগ করা হয়েছে। এক বছর পর পর সবাই ইজতেমায় অংশগ্রহণ করতে পারবে। অর্থাৎ প্রতি বছর ৩২ জেলার লোকজন ইজতেমায় অংশগ্রহণ করতে পারবে। আর এ ৩২ জেলার অংশগ্রহণকারীদেরকেও আবার দুই পর্বে বিভক্ত হয়ে অংশগ্রহণ করতে হবে। তবে বিদেশি অতিথি অংশগ্রহণকারীরা প্রতি বছরই বিশ্ব ইজতেমা অংশগ্রহণ করতে পারবে।

পিএনএস/আলআমীন

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech