এটিএম বুথে যেভাবে খুন করা হয় তৌহিদুলকে - আইন-আদালত - Premier News Syndicate Limited (PNS)

এটিএম বুথে যেভাবে খুন করা হয় তৌহিদুলকে

  

পিএনএস ডেস্ক : ঢাকা আদালতে মাজিস্ট্রেটের কাছে রাজধানীর ক্যান্টনমেন্ট এলাকায় ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেডের (ইবিএল) এটিএম বুথের নিরাপত্তাকর্মী (সিকিউরিটি গার্ড) শেখ তৌহিদুল ইসলাম নুরুন্নবীকে হত্যার বিবরণ দিল রাসেল শেখ ওরফে নয়ন (১৯)।

ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় দেওয়া জবানবন্দিতে সে জানায়, গত বছর নিহতের হাতে মার খাওয়ার প্রতিশোধ নিতে ছুরি মেরে খুন করার পর মৃত্যু নিশ্চিত করে সে পালিয়ে যায়।

আদালতে তার দেওয়া জবানবন্দি থেকে জানা গেছে, গত বছরের জুলাইয়ে খুলনার বাগেরহাটের একটি নৌকাবাইচ অনুষ্ঠান দেখতে গিয়ে নিহত তৌহিদুলের গায়ে অসাবধানবশত রাসেলের সাইকেল লাগে। এ নিয়ে দুইজনের মধ্যে চরম তর্কাতর্কি হয়। ফেরার পথে রাসেলকে মারধর করে তৌহিদুল।

চলতি বছর ঢাকায় এসে রাসেল আইকন ফর সিকিউরিটি সার্ভিসে রিক্রুটিং এজেন্ট হিসেবে কাজ নেয়। গত ২০ মে সে ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় লোক নিয়োগের পোস্টারিং করার সময় ক্যান্টনমেন্ট এলাকায় ওই বুথে তৌহিদুলকে দেখতে পায়। পুরোনা ক্ষোভ রাসেলের ভেতর চাড়া দিয়ে উঠে। ওই ঘটনা নিয়ে ফের দুইজন ঝগড়ায় লিপ্ত হয়। সে সময় হাতাহাতি শুরু হলে উপস্থিত লোকজন তাদের সরিয়ে দিলে রাসেল চলে যায়। আনুমনিক ভোর প্রায় ৪ টার দিকে ফিরে এসে ছুরি নিয়ে আক্রমণ চালায়। এতে গুরুতর জখম হয় তৌহিদুল। পরে মৃত্যু নিশ্চিত করে বুথের লাইট বন্ধ করে হত্যায় ব্যবহৃত ছুরিটি পাশের ড্রেনে ফেলে দিয়ে খুলনা চলে যায়।

আজ বৃহস্পতিবার ঢাকার মহানগর হাকিম সত্যব্রত সিকদারের কাছে রাসেল এ ভাবেই বর্ণনা দেয় নির্মম ওই হত্যাকাণ্ডের। স্বীকারোক্তি দেওয়ার পর তাকে কারাগারে পাঠিয়ে দেন বিচারক।

চলতি বছরের ১ মে থেকে 'গ্লোব সিকিউরিটি সার্ভিস' নামে একটি নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠানের অধীনে সেনানিবাসের ইবিএল বুথে নিরাপত্তা কর্মীর কাজ শুরু করে তৌহিদুল। গত সোমবার সকালে ক্যান্টনমেন্টের পোস্ট অফিসের পাশের ইবিএল বুথের নিরাপত্তাপ্রহরী শেখ তৌহিদুলের গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ওইরাতেই নিহতের বাবা শেখ আবু বক্কর সিদ্দিক অজ্ঞাত আসামিদের বিরুদ্ধে ক্যান্টনমেন্ট থানায় হত্যা মামলা করেন।

সিসিটিভির ভিড়িও ফুটেজ দেখে সনাক্ত করার পরেরদিন র‌্যাব-১ এর একটি দল মঙ্গলবার দিবাগত রাতে খুলনার সোনাডাঙ্গা থেকে রাসেলকে গ্রেপ্তার করে। পুলিশের কাছে হস্তান্তর করার পর তাকে ওই মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক আসাদুজ্জামান আদালতে হাজির করে আসামি হত্যার দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দিতে চায় বলে প্রতিবেদন দাখিল করেন।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech