নাওমীর বাবাকেও রিমান্ডে নেয়ার আবেদন করেছে পুলিশ

  



পিএনএস ডেস্ক: নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে সুযোগ নিয়ে মাঠে নামার বিষয়ে ‘বিএনপি নেতা আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরীর সঙ্গে’ মোবাইল ফোনে পরামর্শ করা মিলহানুর রহমান নাওমিকে ১২ দিনের রিমান্ডে নেয়ার দিন তার বাবাকেও রিমান্ডে নেয়ার আবেদন করেছে পুলিশ।

নাওমীর বাবা সিদ্দিকুর রহমান সুরুজ কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের ২০নং ওয়ার্ডের বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিল। তার সঙ্গে আটক হয়েছেন সিটি করপোরেশনের ১নং ওয়ার্ডের জামায়াত সমর্থিত কাউন্সিলর গোলাম কিবরিয়াও। দুই জনকেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে বিশেষ ক্ষমতা আইনে করা মামলায়।

রবিবার আটকের পরদিন সোমবার বিকালে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুই জনকে সাত দিন করে রিমান্ডের আবেদন জানিয়ে কুমিল্লার অতিরিক্ত মুখ্য বিচারিক হাকিম জয়নাব বেগমের আদালতে হাজির করা হয়। পরে বিচারক মঙ্গলবার রিমান্ড শুনানি দিন ঠিক করে দুই জনকে জেল হাজতে পাঠানোর আদেশ দেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও জেলা গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) এসআই সহিদুল ইসলাম।
রবিবার সকালে নাওমীকে আটক করে পুলিশ। আর বিকালে সদর দক্ষিণ উপজেলার উনাইসার এলাকার বাড়িতে ‘গোপন বৈঠক’ থেকে আটক হন তার বাবা। পরে তার দেয়া তথ্যে কাউন্সিলর গোলাম কিবরিয়াকে রাত ৮টার দিকে কুমিল্লা-বুড়িচং সড়কের পালপাড়া ব্রিজের কাছ থেকে আটক করা হয়।

নাওমীকে সোমবার ঢাকার একটি আদালত দুই মামলায় ১২ দিনের রিমান্ডে দিয়েছে।
নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন চলাকালে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর সঙ্গে নাওমী মোবাইল ফোনে কথা বলেন বলে প্রকাশিত একটি অডিও রেকর্ডে তথ্য পাওয়া যায়। এতে চার-পাঁচশ জন মিলে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে যোগ দিতে কুমিল্লা থেকে ঢাকায় আসতে নাওমীকে নির্দেশ দেন আমীর খসরুর সঙ্গে মিল থাকা কণ্ঠে।

যদিও আমীর খসরু এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। বলেছেন, তিনি কুমিল্লায় কাউকে চেনেন না। তবে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আমীর খসরু এই কথা বলে কোনো অপরাধ করেননি।

কুমিল্লায় নাওমীর বাবা ও অপর কাউন্সিলর গোলাম কিবরিয়ার বিরুদ্ধে উপপরিদর্শক শাহ কামাল আকন্দ দুটি মামলা করেন। এর একটি হয় নামে অস্ত্র আইনে কোতয়ালি থানায় এবং দক্ষিণ মডেল থানায় মামলাটি হয় বিশেষ ক্ষমতা আইনে।

পিএনএস/হাফিজুল ইসলাম

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech