অবিশ্বাস্য হলেও সত্য যে, মানুষও ডিম দিতে পারে!

  

পিএনএস ডেস্ক :অবিশ্বাস্য হলেও সত্য যে, পশুপাখির মতো এখন মানুষও নাকি ডিম দিতে পারে। সম্প্রতি এরকমই একটা ঘটনা ঘটেছে ইন্দোনেশিয়ায়।
গত দুই বছর ধরে ২০টি আস্ত ডিম দিয়েছে এক কিশোর! প্রথমে এই খবর বিশ্বাস করেননি চিকিৎসকরাও। কিন্তু তাঁদের সামনে যখন সে ২টি ডিম দেয় তখন অবাক হয়ে দেখা ছাড়া তাদের কিছুই করার ছিল না।

ডেইলি মেলএ প্রকাশিত একটি খবর থেকে জানা যায়, ইন্দোনেশিয়ার গোয়া গ্রামের বাসিন্দা কিশোর আকমল ২০১৬ সালে থেকে এ পর্যন্ত ২০টি ডিম পেড়েছে। এ কারণে প্রায়ই তাকে হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়।

আকমলের বাবা রুসলি বলছেন, তাঁর ছেলে যেসব ডিম পাড়ছে সেগুলো ভাঙার পর দেখা যাচ্ছে সেগুলো হয়তো পুরোটাই কুসুম, নয়তো পুরোটাই ডিমের সাদা অংশ।

ডিম দেয়া মানুষের এক্সরে

এখন ‘সায়েচ ইউসুফ সুংগুমিনাসা’ হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে আকমলের। এ দিকে এ ঘটনায় চিকিৎসকরা রীতিমতো অবাক। এক্সরে করে তার পেটের ভেতরে দুটি মুরগির ডিমের মতো বস্তুও খুঁজে পেয়েছে তারা। পরে পায়ু পথে সেই ডিমগুলো বের করে আনা হয়েছে ৷

হাসপাতালের মুখপাত্র মুহাম্মদ তাসলিম একটি বিখ্যাত সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছন, তাঁদের সন্দেহ আকমলের পায়ুপথ দিয়ে ডিমগুলো ইচ্ছাকৃতভাবে প্রবেশ করানো হয়েছে। তবে তাঁরা পায়ুপথ দিয়ে ডিম প্রবেশ করানোর মতো কোনও লক্ষণ খুঁজে পাননি ৷ বৈজ্ঞানিকভাবে মানুষের দেহের ভেতরে মুরগির ডিম সৃষ্টি হতে পারে না। মানুষের হজম প্রক্রিয়া বিবেচনায় এ অসম্ভব।

তবে আকমলের বাবা বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, ছেলের শরীরে ডিম ঢোকানোর ঘটনা ঘটেনি। আর কেনই বা তারা এটা করতে যাবেন?

ঘটনা যাই হোক, আজমলকে নিয়ে পুরো এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। এর পর থেকেই তাঁকে নিয়ে ইতিমধ্যেই পরীক্ষা নিরীক্ষা শুরু হয়েছে৷

পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech