বউয়ের বদলে শালী অতঃপর….

  


পিএনএস ডেস্ক : মাস্টার্স কমপ্লিট করে সবে মাত্র একটা এন-জি-ওতে জয়েন করেছি। বাড়ি থেকে মা-বাবার পেড়াপেড়িতে বিয়ে করতে হল। মা-বাবাই পছন্দ করে রেখেছে বউকে, আর পছন্দ করবেই না কেন, অমন অনিন্দ্য সুন্দরী মেয়ে কজন আছে? আমি শুধু দেখলাম আর বিয়ে করলাম। আমার বউ, সবে মাত্র ক্লাস টেনে পড়ে, বয়স ১৫ হবে। খুবই সুন্দরী মেয়ে, ইন্ডিয়ান নায়িকা মাধুরীর মত সুন্দরী। আমাদের পাশের থানা শহরে ওদের বাড়ি।
যেদিন আমাদের বিয়ে হয়, যখন আমার বৌকে আমাদের বাড়িতে সন্ধ্যায় নিয়ে আসবো, তখন আমার নানী শ্বাশুড়ী আমার কানের কাছে এসে আস্তে আস্তে বলল, তোমার বৌয়ের অল্প বয়স, সাবধানে কাজ করবে।
রাতে আমাদের যখন বাসর ঘরে শুতে দিল তখন রাত বারোটার উপরে বেজে গেছে। লাল কাতান শাড়িতে আমার বালিকা বৌকে অসম্ভব সুন্দরী লাগছিল। আমার বৌ যখন আমার পাশে এসে শুলো, তখন তার মুখের আলপনা, সুন্দর চোখের চাহনি, নিস্পাপ অবয়ব আমাকে দারুণ মুগ্ধ করে তুলেছিল। আমি অবাক বিস্ময়ে ওকে শুধু দেখছিলাম।
বাসর ঘরে আমার নব বধুর সাথে কিছু মধুর আলাপ করার চেষ্টা করলাম, কথা বলতে না বলতেই দেখলাম আমার বৌ ঘুমিয়ে গেছে, একেবারে গভীর ঘুম। আমি ওকে আর জাগালাম না, শুধু ওর বুকের উপর হাত রেখে আমি ঘুমাবার চেষ্টা করলাম। আমাদের বাসর রাতে আর কোনো কিছু হলো না। ঘুম ভাঙার পর দেখলাম সকাল হয়ে গেছে।
চতুর্থ দিন আমার বৌকে নিয়ে শ্বশুরবাড়ি গেলাম। বাড়ির সবাই আমাদের দেখে খুশি হল। আমার শ্বশুরবাড়িতে শ্বশুর, শ্বাশুড়ি, একটা শ্যালিকা ছাড়া আর কেউ নেই, আর যে একজন আছে তিনি আমার নানী শ্বাশুড়ি।
বিকালে নানী শ্বাশুড়ি এসে বললো, আমি সামিয়ার (আমার বৌয়ের নাম সামিয়া) কাছ থেকে সব শুনেছি। তোমাদের এখনো কিছুই হয় নি।
আমি সামিয়াকে বুঝিয়েছি। দেখ আজ রাতে কি করে, নানী হাসতে হাসতে বলল, আমার যৌবন থাকলে প্রক্সি দিতাম।
রাতে আমি বিছানায় শুয়ে আছি, সামিয়ার আসতে দেরি হচ্ছে, বোঝা গেলো ও আসতে চাচ্ছেনা আমার রুমে। দেখলাম আমার শ্বাশুড়ি ওকে অনেকটা জোর করে আমার রুমে নিয়ে এলো। সামিয়া খাটে বসল, আমার শ্বাশুড়িও বসল। শ্বাশুড়ি আমাকে বোঝালো, তুমি কিছু মনে করো না, ও ছোটো মানুষ, আস্তে আস্তে সব ঠিক হয়ে যাবে।
রাতে বিছানায় শুয়ে আমার বৌকে কাছে টানলাম, গল্প করলাম, আদর করলাম, ঠোঁটে মুখে চুমা দিলাম, বুকে হাত দিলাম।
আমার বৌকে আমার শ্বশুর-শ্বাশুড়ি নিয়ে আসে। শ্বশুর রেলওয়ের স্টেশনমাষ্টার, একদিন পরে সে চলে গেলো। বলে গেল সপ্তাহখানেক পরে শ্বাশুড়ি এবং শালিকাকে নিয়ে যাবে। বাসায় প্রথম রাতে আমার বৌকে মিলন করার চেষ্টা করলাম, দেখলাম ওর মধ্যে ভীতি এখনো কাটেনি। আমি একটু রাগারাগি করলাম, তারপরেও আমার বৌ সহবাসের ব্যাপারে নির্বিকার। কোনো সেক্স নেই, কোনো আগ্রহ নেই, এমন হলে কি আর মজা পাওয়া যায়?
আমার শ্যালিকা রিমি, আমার বৌয়ের এক বছরের ছোটো, ক্লাস নাইনে পরে। রিমিও আমার বৌয়ের মতো সুন্দরী। সেক্সি সেক্সি চেহারা। দুলাভাই হিসাবে আমাকে খুব পছন্দ করে। আমার বৌ আমার কাছে যে সেক্স করে না, এটা রিমিও জানে। রিমি ওর বোনকে এই ব্যাপারে বুঝিয়েছে অনেক, কিন্তু আমার বৌয়ের আসলেই এখনোও সেক্সের ব্যাপারে ডিমান্ড নেই। সেদিন রাতে আমার বৌ আমার কাছে আর এলো না। আমি খুব করে ডাকলাম, তারপরেও এলো না, আমার শ্বাশুড়ির কাছে শুয়ে থাকলো। আমি রাগ করলাম তবুও এলো না। আমি বিছানায় শুয়ে আছি, এমন সময় রিমি এলো। বলল, আম্মু আমাকে আপনার কাছে পাঠিয়ে দিল গল্প করার জন্য। আমি রিমিকে আমার পাশে শোয়ালাম, কম্বলের মধ্যে নিয়ে ওকে জড়িয়ে ওর সাথে গল্প করতে থাকলাম। বললাম… -তোমার বোনের সেক্স নাই। -হবে একদিন। -কবে হবে? -হবে। -তোমার সেক্স আছে? -আছে। -কোনো এক্সপিরিয়েন্স? -কিছু কিছু… -আমার সাথে করবে? -আপনি চেষ্টা করেন… আমি রিমির বুকে হাত দিলাম। রিমি কেমন যেন নীরব শীৎকার করছে। আমি বললাম, তোমার আপু আসবে না? ও বলল, না। রিমি আমার কাছে শুয়ে পড়লো আর দুজনেই ঘুমিয়ে পড়লাম। যখন ঘুম ভাঙ্গলো তখন দেখলাম সকাল, ঘরময় আলো। রিমি আমার কাছে শুয়ে। আমি ওকে জড়িয়ে ধরলাম, ওর ঘুম ভেঙ্গে গেল। আমি রিমিকে আবারো চুমু খেলাম গভীরভাবে, রিমিও খুব রেসপন্স করল। বিকালে অফিস থেকে বাসায় ফিরলাম, রাতে খাওয়া দাওয়া করলাম। আমার বৌ এমনি খুব লক্ষ্মী ঘরের কাজে, নতুন সংসার পেয়ে খুব খুশি। রান্না বান্না, আদর যত্ন করে খাওয়ানো সবই সুন্দর করে। রাতে দেখলাম, আমার বৌ আমার কাছে শুতে এলো। দুজন শুয়ে আছি। ভাবলাম, ও আমাকে কাছে টানবে, না। আমি কাছে টানার চেষ্টা করলাম , বিরক্ত হচ্ছে। আমি আর কিছু করলাম না। এভাবেই সে রাত কেটে গেল। পরেরদিন অফিস থেকে এসে বিছানায় রেস্ট নিচ্ছি, এমনসময় রিমি এলো। আমি রিমিকে বললাম, কালকের ঘটনায় আম্মা কিছু বলেছে কিনা? রিমি বলল, কিছু বলেনাই, আম্মাকে খুশি মনে হল।

পিএনএস/আনোয়ার

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech