সুজনের ইসিকে সতর্ক হওয়ার আহ্বান

  

পিএনএস ডেস্ক : সেনাবাহিনী ছাড়া অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন করা সম্ভব নয় মনে করেন নির্বাচন সংশ্লিষ্টরা। তাঁরা বলেছেন, জাতীয় নির্বাচন সুষ্ঠু ভাবে করতে গেলে সেনাবাহিনী মোতায়েন করতে হবে।

আজ সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবে আসন্ন ‘সিটি করপোরেশন নির্বাচন: নাগরিক ভাবনা’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে বক্তারা এ কথা বলেন। সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) এ বৈঠক আয়োজন করে।

অনুষ্ঠানে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা এম হাফিজউদ্দিন খান বলেছেন, বর্তমান পরিপ্রেক্ষিতে সেনাবাহিনী ছাড়া অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন করা সম্ভব নয়। তাই নির্বাচন কমিশনকে সজাগ ও সতর্ক হতে হবে। কারণ তারা ঘুমিয়ে আছে।

হাফিজউদ্দিন খান বলেন, ‘সেনাবাহিনী মোতায়েন করার ব্যাপারে নির্বাচন কমিশন চিন্তা ভাবনার কথা বলেছিল। তখন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছিলেন নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের সিদ্ধান্ত কমিশনের এখতিয়ার বহির্ভূত। নির্বাচন কমিশন এ বক্তব্যের কোনো প্রতিবাদ করেনি, এটা দুঃখের বিষয়। কারণ নির্বাচন সুষ্ঠু করা কমিশনের দায়িত্ব। নির্বাচন সুষ্ঠু করতে যা যা করা দরকার কমিশন তাই করবে এটা আমরা আশা করি।’

সাবেক নির্বাচন কমিশনার এম সাখাওয়াত হোসেন বলেন, সেনাবাহিনী ছাড়া সিটি নির্বাচন সুষ্ঠু হবে কি না জানি না। তবে জাতীয় সংসদ নির্বাচন সেনবাহিনী ছাড়া হবে না। তিনি বলেন, নির্বাচনে সেনা মোতায়েন নিয়ে সরকার ও বিরোধী দল মুখোমুখি অবস্থান নেয়। বিরোধী দলে থাকলে তারা সেনাবাহিনী চায়। অথচ ২০০৩ সালে বিএনপি ক্ষমতায় থাকতে তৎকালীন প্রধান নির্বাচন কমিশনার এম এ সাঈদ স্থানীয় সরকার নির্বাচনে সেনা মোতায়েন করতে চেয়েছিলেন, কিন্তু বিএনপি দেয়নি।

সুজনের সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদারের সঞ্চালনায় আলোচনায় আরও অংশ নেন বাসদের খালিকুজ্জামান, সুজনের জ্যোতির্ময় বড়ুয়া, বিএনপির রুমিন ফারহানা এবং বিধান চন্দ্র পাল। আলোচনা শেষে ‘নগরায়ণ ও নগর সরকার’ শীর্ষক বইয়ের মোড়ক উন্মোচন হয়। বইটির লেখক স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ তোফায়েল আহমেদ, সহলেখক বিধান চন্দ্র পাল।।

পিএনএস/জে এ/মোহন

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech