রাষ্ট্রপতির আগমন উপলক্ষে বাকৃবিতে উৎসবমুখর পরিবেশ

  

পিএনএস ডেস্ক : নব সাজে সজ্জিত হচ্ছে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বাকৃবি)-র সবুজ ক্যাম্পাস। ক্যাম্পাসের আকর্ষণীয় স্থাপনা, গুরুত্বপূর্ণ ভবন, রাস্তাঘাট সহ পুরো ক্যাম্পাস জুড়ে লেগেছে নতুন রঙের ছোঁয়া। সাজানো হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সবুজ ক্যাম্পাস। পুরো ক্যাম্পাসে চলছে পরিচ্ছন্নতা অভিযান।

আগামী ২২ জুলাই বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বাকৃবির ‘সাফল্য ও গৌরবের ৫৭ বছর উদযাপন এবং হাওর ও চর উন্নয়ন ইনস্টিটিউট’ এর উদ্বোধন। সেখানে উপস্থিত থাকবেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। আর বর্ণাঢ্য আয়োজন বাড়তি মাত্রা পেয়েছে রাষ্ট্রপতির আগমন সংবাদ।

বাকৃবি ও বাকৃবি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের যৌথ উদ্যোগে আয়োজন করা হয়েছে ‘বাকৃবি’র ৫৭ বছর উদযাপন এবং হাওর ও চর উন্নয়ন ইনস্টিটিউট’ এর উদ্বোধন’ অনুষ্ঠান।

এই অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেয়া হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। বিশ্ববিদ্যালয়ের রাস্তাঘাট, সমাবেশস্থল ছাড়াও আশপাশের চারপাশ তৈরি করা হচ্ছে নিরাপত্তা বলয়। রাষ্ট্রপতি হেলিকপ্টার যোগে ক্যাম্পাসে আসবেন বলে হেলিকপ্টার মহড়াও চোখে পড়ছে ক্যাম্পাসে। অনুষ্ঠানের জন্য তৈরি হচ্ছে একটি থিম সং ও পুরো বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে ডকুমেনটরি।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ২২ জুলাই দুটি পর্বে সাজানো এ অনুষ্ঠানের প্রথম পর্বে থাকবে আলোচনা অনুষ্ঠান, প্রযুক্তি মেলার উদ্বোধন এবং হাওর ও চর ইনস্টিউটের উদ্বোধন করবেন রাষ্ট্রপতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য মো.আবদুল হামিদ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের হেলিপ্যাডে ৬ অনুষদ, বিনা, বিএফআরআই, জার্মপ্লাজম ও ময়মনসিংহ ডিএইর উদ্ভাবিত বিভিন্ন আবিস্কার, প্রযুক্তি, গবেষণা নিয়ে প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে।

দ্বিতীয় পর্বে থাকবে বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু চত্বরে স্থাপিত অস্থায়ী মঞ্চে শুরু হবে সাফল্য ও গৌরবের ৫৭ বছর উদযাপন, অ্যালামনাই সমাবেশ, অ্যালামনাই সংবর্ধনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এতে বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের প্রায় ৫ হাজার অ্যালামনাই অংশ নেবেন বলে জানা গেছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. আতিকুর রহমান খোকন বলেন, অনুষ্ঠান নির্বিঘ্নে করতে ক্যাম্পাসের প্রধান ফটক, পাশাপাশি বহিরাগতদের ওপর নজরদারিও বাড়ানো হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরে রাস্তাঘাট সংস্কার শুরু হয়েছে। অনুষদ ভবনের করিডোর সংস্কার, বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তা জোরদার করাসহ ইতোমধ্যেই সরিয়ে দেয়া হয়েছে ভ্রাম্যমাণ সব দোকানপাট। চলছে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা কর্মসূচি। অনুষ্ঠান সফল করতে ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, রেলওয়ে, সড়ক ও জনপদ বিভাগসহ বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিভাগের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

সর্বোপরি পুরো ক্যাম্পাস জুড়ে উৎসবমুখর পরিবেশ। সবমিলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন, শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মাঝেও তৈরি হয়েছে অন্যরকম উদ্দীপনা।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল


 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech