প্রধানমন্ত্রী বিকেলে ঢাকেশ্বরী মন্দির পরিদর্শন করবেন

  


পিএনএস ডেস্ক: সনাতন ধর্মের সবচেয়ে বড় উৎসব উপলক্ষে সোমবার বিকাল ৩ ঘটিকায় রাজধানীর ঢাকেশ্বরী পূজা মণ্ডপ পরিদর্শনে যাবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরিদর্শনকালে হিন্দু সম্প্রদায়ের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা কর্মীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন তিনি।

এরপর একটি আলোচনা সভায় অংশগ্রহণ করার কথা রয়েছে তার। পূজা উদযাপন কমিটির নেতা তাপস পাল জানান, ঢাকেশ্বরী মন্দিরে প্রধানমন্ত্রীকে বরণ করতে নেওয়া হয়েছে বিশেষ ব্যবস্থা।

বাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের সর্ব বৃহৎ ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা ষষ্ঠী পূজার মধ্যদিয়ে আজ থেকে আরম্ভ হচ্ছে। বিশুদ্ধ সিদ্ধান্ত পঞ্জিকা অনুসারে শুক্রবার বিজয়া দশমীতে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যদিয়ে সমাপ্ত হবে ৫ দিনব্যাপী এ শারদীয় উৎসবের। এর আগে রবিবার সায়ংকালে দেবীর বোধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এদিকে শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আলাদা বাণীতে দেশের হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

এর আগে রবিবার বেলা ১১টায় শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে রাজধানীর ঢাকেশ্বরী মন্দিরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শন করেন ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার (ডিএমপি) মো. আছাদুজ্জামান মিয়া।

ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার বলেন, 'শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে কোনো ধরনের শঙ্কা কিংবা নিরাপত্তা ঝুঁকি নেই। তবে সার্বজনীন নিরাপত্তার কথা বিবেচনায় এনে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এবার শুক্রবার বিসর্জনের দিন হওয়ায় কিছু ক্ষেত্রে বিধিনিষেধও আরোপ করা হয়েছে। দুর্গা উৎসবকে ঘিরে সমন্বিত ও সুদৃঢ় নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।'

তিনি বলেন, 'ঢাকা মহানগরীতে এবার ২৩৪টি সার্বজনীন দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এর মধ্যে বড় মন্দির ৯টি। এগুলো হচ্ছে- ঢাকেশ্বরী মন্দির, রামকৃঞ্চ মন্দির, কলাবাগন মন্দির, বনানী মন্দির, সিদ্ধেশ্বরী কালী মন্দির, রমনা কালী মন্দির, উত্তরা সার্বজনীন পূজা মণ্ডপ, কৃষিবিদ ইনস্টিটিউট সমাজ কল্যাণ সংঘ ও বসুন্ধরা সার্বজনীন পূজা মণ্ডপ। এর বাইরের সব মন্দিরেই কয়েক স্তরের নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলা হবে।’

ডিএমপি কমিশনার বলেন, 'প্রত্যেকটি মন্দির সিসিটিভি দ্বারা মনিটরিং করা হবে। প্রবেশকালে আর্চওয়ের ভেতর দিয়ে ভক্ত ও দর্শকদের প্রবেশ করতে হবে। পোশাকে পুলিশ, নারী পুলিশ ও সাদা পোশাকেও পুলিশ সদস্যরা মোতায়েন থাকবে। স্বেচ্ছাসেবকরা আর্ম ব্যাচ পরিহিত আলাদা পোশাকে নিয়োজিত থাকবেন। প্রত্যেক দর্শনার্থী ও ভক্তকে নিরাপত্তা বলয়, তল্লাশি ও মেটাল ডিটেকক্টর দিয়ে চেক করার পর প্রবেশ করতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, 'পূজা মণ্ডপে কাউকে ছুরি, কাচি, পোটলা, ব্যাকপ্যাক নিয়ে প্রবেশ করতে দেয়া হবে না। শোভাযাত্রার সময় শোভাযাত্রার রুটে অবাঞ্চিত লোক, হকারদের বসতে দেয়া হবে না। চলাচলের ক্ষেত্রে সড়কে ডাইভারশন (নিয়ন্ত্রণ) করা হবে।’

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার শাহাবউদ্দিন কোরাইশী, মনিরুল ইসলাম, কৃঞ্চপদ রায়।

পিএনএস/আনোয়ার

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech