প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে মামলা করবেন ব্যারিস্টার সুমন

  



পিএনএস ডেস্ক: মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন্য করার অপরাধে প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা করবেন বলে জানিয়েছেন সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী ও আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন।

আজ শুক্রবার (১৯ জুলাই) ব্যারিস্টার সুমন তার ফেসবুক পেজে লাইভে এসে এই মামলা করার ঘোষণা দেন। তিনি বলেন, আগামী রবিবার আদালত খোলার সাথে সাথে আমি এই মহিলার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করবো। যেখানে খোদ মার্কিন রাষ্ট্রদূত বলেছেন বাংলাদেশ হলো সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির উদহরণের দেশ সেখানে একজন মহিলা মার্কিন প্রেসিডেন্টের কাছে গিয়ে দেশের বিরুদ্ধে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার যে অপচেষ্টা চালিয়েছেন তা অবশ্যই রাষ্ট্রদ্রোহিতার শামিল। তার বিরুদ্ধে তাই আদালতে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলা করা হবে।

তিনি আরও বলেন, যেখানে বাংলাদেশে আমরা সংখ্যালঘুদের অধিকার রক্ষায় সর্বোচ্চ সতর্ক থাকছি সেখানে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে এমন মিথ্যা অভিযোগ করা কারো ব্যাপারে আমরা বসে থাকতে পারি না। তার ব্যাপারে মামলা করা এখন জরুরী হয়ে পড়েছে। তিনি জনগণকে পাশে থাকার আহবান জানিয়ে বলেছেন, আমি তার বিরুদ্ধে অবশ্যই মামলা করবো, আপনারা আমার পাশে থাকবেন।

প্রসঙ্গত : সোশ্যাল মিডিয়া থেকে জানা যায়, মহিলা পরিষদের সাবেক সাধারণ সম্পাদক প্রিয়া সাহা আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে অভিযোগ করে বলেন, বাংলাদেশের প্রায় ৩৭ মিলিয়ন (৩ কোটি ৭ লাখ) সংখ্যালঘুদেরকে বিভিন্ন ভাবে খুন, গুম করা হয়েছে। এমনকি সে নিজেও দাবি করেছে তার ঘর বাড়ি জ্বালিয়ে দিয়েছে মুসলিমরা। এবং এসবই হয়েছে রাষ্ট্রীয় মদদে। কিন্তু বাস্তবিকভাবে বাংলাদেশে সংখ্যালঘুরা সবচেয়ে নিরাপদ এবং সুন্দর জীবন যাপন করে থাকে যা বিশ্বব্যাপী স্বীকৃত বিষয়। কেবলমাত্র হিংসার বশবর্তি হয়ে দেশের বিরুদ্ধে এমন ভয়ংকর মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে সারাদেশে নিন্দিত হচ্ছেন এই প্রিয়া সাহা।

এদিকে প্রিয়া সাহার এই রাষ্ট্রবিরোধী কর্মকান্ডের প্রতিবাদ জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান কামাল বলেছেন, বাংলাদেশ নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ট ট্রাম্পের কাছে নালিশের বিষয়টি চক্রান্তের অংশ ছাড়া কিছু নয়। তিনি বলেন, বাংলাদেশে এ ধরণের কোনো ঘটনা ঘটেনি। শুক্রবার সন্ধ্যায় স্বরাস্ট্রমন্ত্রী তার নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, “নালিশ সংক্রান্ত ভিডিওটি দেখলাম। এ ধরণের ঘটনা বাংলাদেশে ঘটেনি। আমাদের বাংলাদেশটা প্রধানমন্ত্রীর কঠোর পরিশ্রমের ফলে আমরা পেয়েছি, যেটা কিনা বঙ্গবন্ধু স্বপ্ন দেখেছিল। এই মহিলাটি আমাদের কাছেও কখনো এ ব্যাপারে আসেননি কিংবা পুলিশ প্রশাসনের কাছেও যাননি। আমাদের পুলিশ প্রশাসন অত্যন্ত সজাগ থাকেন যাতে কোথাও কোনো সংখ্যালঘু নির্যাতনের শিকার না হন”। মন্ত্রী আরও বলেন, এই মহিলা যা বলেছেন তা চক্রান্তের অংশ বলে মনে করছি। আমি এখনো বলব, কোথাও এ ধরনের ঘটনা থাকলে আমাদের বলুক বা পুলিশকে বলুক।

কে এই প্রিয়া সাহা:
খোজ নিয়ে জানা গেছে, প্রিয়া সাহা মহিলা ঐক্য পরিষদ’র কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন, উনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র ইউনিয়ন করতেন এবং রোকেয়া হলে থাকতেন। এখন একটি এনজিও আছে ওনার। বিভ্রান্তিমূলক কর্মকাণ্ডের জন্য গতবছর তাকে মহিলা ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। নিজের বাড়ি পুড়িয়ে দেওয়ার নাটক করে প্রচুর বিদেশি ফান্ড কালেক্ট করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। তার গ্রামের বাড়ি পিরোজপুর জেলার নাজিরপুরের মাটিভাঙ্গার চরবানী এলাকায়।

তার স্বামী মলয় সাহা দূর্নীতি দমন কমিশনের সহকারী পরিচালক। তাদের দুই মেয়ে কয়েক বছর ধরে আমেরিকায় বসবাস করছে বলে জানা গেছে। এমনকি প্রিয়া সাহা আমেরিকা যাওয়ার আগে মলয় সাহা নিজেই তাকে বিমানবন্দরে পৌঁছে দিয়েছে বলেও জানা গেছে। জানা যায়, সকালের ফ্লাইট মিস করায় ওই দিন রাতের ফ্লাইটে আমেরিকায় যান প্রিয়া সাহা। এসময় যুদ্ধাপরাধী আকবর কবিরের কন্যা তথাকথিত মানবাধিকার কর্মী খুশী কবির বিমানবন্দরে উপস্থিত প্রিয়ার সাহার এই দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রের সঙ্গী হওয়ায় তার স্বামী মলয় সাহাকে অভিযুক্ত করে শাস্তির আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন অনেকে। সোশ্যাল মিডিয়ায় তার ব্যাপারে সর্বস্থরের জনগণ প্রতিবাদে সোচ্চার হয়েছেন। কঠোর প্রতিবাদ জানিয়ে তাকে আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন নেটিজেনরা।

পিএনএস/ হাফিজুল ইসলাম

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech