‘নতুন সড়ক আইনে শৃঙ্খলা ফেরাতে জরিমানার পরিমাণ বেশি’

  

পিএনএস ডেস্ক : নতুন সড়ক আইন মেনে চলার আহ্বান জানিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন ‘নতুন সড়ক আইনে বেশি জরিমানা মানে বেশি অর্থ নেয়া নয়। বেশি জরিমানা দিলে শৃঙ্খলা ফিরে আসবে।’

তিনি বলেন, ‘এ আইনের মূল উদ্দেশ্য হলো শাস্তির ভয় পেয়ে কেউ যেন আইন ভঙ্গ না করে।'

রাজধানীর কুড়িলে আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ (এআইইউবি) স্থায়ী ক্যাম্পাসে, সড়ক নিরাপত্তা এবং সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ শীর্ষক আলোচনা সভায় সোমবার প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব বলেন।

সড়কে যথেষ্ট অবকাঠামোগত উন্নয়ন হয়েছে দাবি করে মন্ত্রী বলেন, এখন আমাদের দরকার রাস্তায় শৃঙ্খলা ফেরানো।

নতুন আইন নিয়ে তাদের ভয় পাওয়ার কোনো কারণ নেই জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আইনের মূল উদ্দেশ্য হলো শাস্তির ভয় পেয়ে কেউ যেন আইন ভঙ্গ না করে’।

নতুন সড়ক আইন বাস্তবায়নে অনেক চ্যালেঞ্জ আছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘তবে যত বাধাই আসুক না কেন আমি এগিয়ে যাব।’

সড়কে বিশৃঙ্খলার জন্য মোটরসাইকেলকে দায়ী করে কাদের বলেন, তারা নিজেদের পথের রাজা মনে করে। এটা একটা উপদ্রব।

এখন ঢাকা শহরে কোথাও হেলমেট ছাড়া চালক-যাত্রী পাবেন না জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আর যারা বাইকে হেলমেট পরে না, তারা হলো রাজনৈতিক কর্মী। এখন আগের চেয়ে উল্টো পথে চলার অভ্যাস কমেছে। ভিআইপি বিড়ম্বনাও অনেক কমেছে।’

নতুন আইনের শাস্তির প্রসঙ্গ টেনে মন্ত্রী বলেন, ‘এখানে গায়ে পড়ে কাউকে শাস্তি দেওয়া হচ্ছে না।’

তিনি বলেন, আইন অমান্য করলে প্রথমবারেই বড় জরিমানা হবে তা না এমনও হতে পারে অপরাধ কম হলে জরিমানাটা এক হাজার টাকা হতে পারে।

তিনি বলেন, ‘একই অপরাধ বারবার করলে তখন তার শাস্তির পরিমাণ বাড়বে।’

আইনের বিধিগুলো একেবারে হুবহু প্রথমেই বাস্তবায়ন করা হবে না জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘আস্তে আস্তে বাস্তবায়ন করা হবে। ’

বিএনপি-জামায়াত শিবির একই বৃন্তে গাঁথা দুটি সাম্প্রদায়িক শক্তি বলেও মন্তব্য করেছেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, তারা যাই বলুক, গলায়-গলায় তাদের ভাব। তারা যমজ ভাইয়ের মতো।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমি বিএনপি মহাসচিবকে বলব, আপনারা যখন ক্ষমতায় ছিলেন, তখন কোন চুক্তিটি সংসদে প্রকাশ করেছেন? আমি দৃঢ়ভাবে বলব, আওয়ামী লীগ দেশের স্বার্থবিরোধী কোনো চুক্তি করে না।’

বিএনপি অপপ্রচারের দল জানিয়ে তিনি বলেন, এটা তাদের অভ্যাস। তারা বলে, দেশ নাকি ভারতের অংশ হয়ে যাচ্ছে। এ ধরনের অপপ্রচার করা তাদের চরিত্র।

পেঁয়াজ প্রসঙ্গে এই আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, বর্তমানে পেঁয়াজ নিয়ে সংকট চলছে। বাইরে থেকে আমদানি করা ছাড়া কোনো উপায় নেই।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech