শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে যাত্রী শূন্য

  

পিএনএস ডেস্ক : মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে বুধবারও ফেরি চলাচল বন্ধ ছিল। কিছু পণ্যবাহী ট্রাক থাকলেও নেই কোনো যাত্রী ও যাত্রীবহনের গাড়ি। বুধবার দিনভর শিমুলিয়া ঘাট ছিল যাত্রী শূন্য।

সোমবার বিকেল থেকে নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ করে রাখা হয়। মঙ্গলবার হাজার হাজার যাত্রী শিমুলিয়া ঘাটে ভিড় জমালেও বুধবার ভোগান্তি এড়াতে কোনো যাত্রী নৌরুট পারাপার হতে আসেননি বলে জানা গেছে।

এদিকে বুধবার বিকেলে মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. আব্দুল মোমেন পিপিএম শিমুলিয়া ঘাট পরিদর্শন করেছেন। এ সময় তিনি বলেন, নির্দেশনা অমান্য করে কোনো যাত্রীকে নৌরুট পারাপার হতে দেওয়া হবে না। সরকারি সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে জেলা পুলিশ বিভাগ কঠোর অবস্থানে রয়েছে। শিমুলিয়া ঘাট এলাকায় কয়েকটি স্তরে পুলিশের একাধিক টিম তৎপর রয়েছে।

পুলিশ সুপার আব্দুল মোমেন আরও বলেন, শুধু শিমুলিয়া ঘাটেই নয়, ঢাকা-মাওয়া এক্সেপ্রেসওয়ে সড়কের একাধিক পয়েন্টে চেকপোস্ট বসিয়ে সেনাবাহিনী ও পুলিশ সদস্যরা সার্বক্ষণিক কাজ করছে।

এদিকে মুন্সীগঞ্জের সহকারী পুলিশ সুপার (ট্রাফিক) নাজমুর রায়হান জানান, মঙ্গলবার দিনভর শিমুলিয়া ঘাটে থাকা যাত্রীদের ৩৩টি যাত্রীবাহি বাসে বিশেষ ব্যবস্থায় ঢাকায় ফেরত পাঠানো হয়েছে। মঙ্গলবার দিনগত রাতের মধ্যেই তাদের ফেরত পাঠানো হয়।

লৌহজং থানার ওসি মো. আলমগীর হোসাইন বলেন, সোমবার থেকে নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ রয়েছে। তারপরও মঙ্গলবার ভোর থেকে হাজার হাজার ঈদ ঘরমুখো যাত্রী দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় যাওয়ার জন্য এসে আটকা পড়েছিল। আর ফেরি চালু না হওয়ায় যাত্রীদের ভোগান্তি লাঘবে বিশেষ বাসের ব্যবস্থা করে পুলিশ তাদের ঢাকায় ফেরত পাঠায়।

তিনি আরও জানান, আজ বুধবারও ফেরি বন্ধ রয়েছে। আর যাত্রীদের উপস্থিতিও ছিল না। তাই শিমুলিয়া ঘাট ফাঁকা। তারপরও পুলিশের তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন