ছাত্রলীগের কমিটি পুনর্মূল্যায়ন করে পুনঃবহাল?

  

পিএনএস (জে এ মোহন) : ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ছাত্রসংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের দুই দিনের সম্মেলন শেষ হয়েছে। এখনো নতুন কমিটি ঘোষণা আসেনি। তাই নতুন কমিটি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তৈরী হয়েছে নানা গুঞ্জন। অনেক ছাত্রনেতা আশঙ্কা করছেন পুনর্মূল্যায়ন করে পুনঃবহাল রাখা হতে পারে আগের কমিটি।

কারা আসছেন নেতৃত্বে তা নিয়ে সর্বত্র আলোচনা।নতুন নেতৃত্বকে বরণ করে নিতে মুখিয়ে আছেন নেতাকর্মীরা।তবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে কিছু নেতাকর্মী পছন্দের প্রার্থীদের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক বানিয়ে স্ট্যাটাস দিচ্ছেন।এ নিয়ে বির্তক তৈরী হয়েছে।এক প্রার্থীর সমর্থকরা আরেক প্রার্থীকে হেয় করার জন্য স্ট্যাটাস দিচ্ছেন।

তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমঝোতার মাধ্যমে ছাত্রলীগের নেতৃত্বের আসার ইঙ্গিত দিয়েছেন।

চলিত নির্বাচনি বছর হওয়ায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে অনেক হিসেব-নিকেশ কষতে হচ্ছে। নতুন কমিটি নেতৃত্বে যারা আসবে তাঁদের মাধ্যমে নির্বাচনি বছরে কতটা লাভবান হবে আওয়ামী লীগ এ নিয়েও হিসেব চলছে। কর্মীদের চাঙ্গা করতে এবং নতুন কমিটি নেতৃত্ব গুছাতে সময় লাগবে।

সম্মেলনের দ্বিতীয় দিন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন বলেন, আমরা প্রার্থীদের তালিকা নেত্রীর হাতে পৌঁছে দিয়েছি। তিনি আমাদের জানিয়ে দেবেন। নতুন কমিটি ঘোষণা হতে হয়তো দু’তিন দিন সময় লাগবে।এরপর সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ সম্মেলনের সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

তবে নতুন কমিটি ঘোষণা পিছিয়ে যাওয়ার কারণে অনেক নেতা-কর্মীদের মনে সংশয় তৈরী হয়েছে। নির্বাচনী বছরের কারণে হয়তো আগের কমিটিতে কিছু রতবদল করে পুনর্মূল্যায়ন করা হতে পারে।

অনেক ছাত্রনেতারা সামাজিক মাধ্যমে পুনর্মূল্যায়ন করে সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের পুনঃবহাল থাকার গুঞ্জন ছড়িয়েছে। এ নিয়ে নতুন নেতৃত্বের আশা যারা ছিলেন তাঁদের মধ্যে শঙ্কা কাজ করছে।

তাই নতুন নেতৃত্বে কে আসছে? এ নিয়ে জল্পনা তৈরি হয়েছে নেতা-কর্মীদের মধ্যে। তবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্বপক্ষ নেতাদের নামে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন কর্মীরা।

সম্মেলনের উদ্বোধনী পর্বে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, এবারের কমিটি হবে সমঝোতার মাধ্যমে এবং বয়স হবে ২৮ বছর।

বিষয়টি নিয়ে খোদ ছাত্রলীগের অনেক নেতাকর্মীদের মধ্যে আগামী দিনের নেতৃত্বে কে বা কারা আসছেন তা নিয়ে ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে।

তবে সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন বরাবরই বলে আসছেন সভানেত্রী ও ছাত্রলীগের সাংবিধানিক নেত্রী হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত।

কবে নতুন কমিটি ঘোষণা করা হবে, সে বিষয়েও সিদ্ধান্ত নিবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তবে নতুন নেতৃত্বে কারা আসতে পারেন তার একটি সংক্ষিপ্ত তালিকা শেখ হাসিনার হাতে রয়েছে। তাদের বিষয়ে এখনো গোয়েন্দারা খোঁজ খবর নিচ্ছেন বলে জানা গেছে।

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech