একটি দলের সঙ্গে বন্ধুত্ব মানে জনগণের সঙ্গে বন্ধুত্ব নয়: ভারতকে গয়েশ্বর

  



পিএনএস ডেস্ক: বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় সমাবেশে বলেন, বিএনপি ও খালেদা জিয়াকে বাদ দিয়ে আর কোনো নির্বাচন নয়। এই সরকার এই দেশের বৈধ সরকার নয়। তাই তাদের অধীনে কোনো নির্বাচন হবে না।

শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবিতে আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে মির্জা আব্বাস এইসব কথা বলেন।

ভারতের উদ্দেশে গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, বাংলাদেশের একটি দলের সঙ্গে বন্ধুত্ব মানে এই দেশের জনগণের সঙ্গে বন্ধুত্ব নয়। তাই বন্ধুত্ব করতে হলে জনগণের সঙ্গে বন্ধুত্ব করতে হবে। ১৯৭১ সালে পাকিস্তানের সঙ্গে যুদ্ধ করে দিল্লির গোলামি করতে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়নি।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের মন্ত্রিসভা হবে এদেশের জনগণের ভোটে নিবাচিত জনপ্রতিনিধি দিয়ে। ভিন দেশের কারো সমর্থন নিয়ে নয়। সাবধান, বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক গলাবেন না। এদেশের মানুষ সহ্য করবে না।

গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, “আমরা খালেদা জিয়ার মুক্তি চাই, সরকারের পদত্যাগ চাই, নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগ চাই। এর আগে বাংলাদেশে কোনো নির্বাচন হবে না। নির্বাচনের আগে নিরপেক্ষ সরকার গঠন করতে হবে। সবার অংশগ্রহণে নির্বাচনের ব্যবস্থা করতে হবে।”

বিএনপির এই নেতা বলেন, “জনগণের আন্দোলনের মাধ্যমে খালেদা জিয়া মুক্ত হবেন। আর যেদিন খালেদা জিয়ার মুক্ত হবেন সে দিন দেশের গণতন্ত্র মুক্ত হবে।”

১৯ জুলাই বিকেল ৩টায় পূর্বঘোষিত এই সমাবেশ শুরু হওয়া কথা থাকলেও প্রখর রোদ ও তাপপ্রবাহ উপেক্ষা করে দুপুর ১২টার পরপরই নেতাকর্মীরা আসতে শুরু করেন। নয়াপল্টনের আশেপাশের মসজিদে জুম্মার নামাজে অংশ নিতে দেখা গেছে বিএনপির নেতাকর্মীদের। নামাজ শেষে তারা দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে জড়ো হতে থাকেন। কিছুক্ষণের মধ্যেই পুরো নয়াপল্টন এলাকা লোকে লোকারণ্য হয়ে পড়েন। নেতাকর্মীর উপস্থিতির কারণে দেড়টার পরপরই অনানুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়। দীর্ঘদিন পর সমাবেশ করার সুযোগ পাওয়ায় বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে উৎসাহের কমতি ছিল না। তাঁরা স্লোগানে স্লোগানে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি জানান। সমাবেশে শেষ হয় বিকেল সোয়া ৫টায়।

পিএনএস/হাফিজুল ইসলাম

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech