দল আমাকে মনোনয়ন দিলে ধানের শীষ জয়লাভ করবে : ড. আরিফা জেসমিন

  

পিএনএস, নিজস্ব প্রতিবেদক : আগামী ৩০ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নেত্রকোনা -২ (সদর-বারহাট্টা) আসন থেকে ধানের শীষ প্রতিক নিয়ে প্রতিদ্বন্ধীতা করতে মাঠে নেমেছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও নেত্রকোনা জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ডক্টর আরিফা জেসমিন নাহীন।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলনের অংশ হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিতে নয়া পল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ব্যাপক শোডাউনের মধ্য দিয়ে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন ও জমা দেন।

ডক্টর আরিফা জেসমিন নাহীন বলেন, বিগত নির্বাচনে নেত্রকোনা -২ আসন বিএনপি হারানো হয়েছে। এ আসনটি উদ্ধার করার জন্য কয়েক বছর ধরে আমি কাজ করেছি। এবারের নির্বাচনে দল আমাকে মনোনয়ন দিলে এ আসন থেকে ধানের শীষ জয়লাভ করবে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ডক্টর আরিফা জেসমিন নাহীন ৩৪ বছর ধরে বিএনপির রাজনীতিতে সক্রিয়। তার পরিবারের সবাই বিএনপির রাজনীতিতে জড়িত। একারনে পুরো পরিবারকে চরম খেসারত দিতে হচ্ছে।পরিবারের সবার নামে একাধিক মামলা রয়েছে। এখন অসুস্থ ভাই ও ভাতিজা কারাগারে রয়েছে।

আরিফা জেসমিন নাহীন সুপ্রীম কোর্টের আইনজীবী। ১৯৮৬ সাল থেকেই আইন পেশায় জড়িত। তিনি নেত্রকোনা ল কলেজের অধ্যক্ষ। আইন পেশায় কারনে দলের যেকোন কর্মসূচিতে সুপ্রীম কোর্ট ও নেত্রকোনা আদালত প্রাঙ্গনে সব সময় সরব ছিলেন। এছাড়াও দলের যেকোন কর্মকান্ডে ঢাকা ও নেত্রকোনার রাজপথে সামনের সারিতে থেকে স্লোগানের নেতৃত্ব দিয়েছেন।

জানা গেছে, ৮ ফেব্রুয়ারি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া কারাবরন করেন। পরদিন ৯ ফেব্রুয়ারি সাবেক কেন্দ্রীয় কারাগারে বেগম খালেদা জিয়ার জন্য ফলমুল নিয়ে যান আরিফা জেসমিন নাহীন। এতে পুলিশী বাধার মুখে পড়েন। পরদিন ১০ ফেব্রুয়ারি নেত্রকোনায় গিয়ে মহিলাকর্মীদের নিয়ে রাজপথে মিছিল করেন। মিছিলে বাধা দেয় পুলিশ। বাধা উপেক্ষা করে মিছিল করতে চাইলে আরিফা জেসমিন নাহীনসহ কয়েকজন মহিলাকর্মী গ্রেপ্তার হন। এ কারনে নেত্রকোনায় জনপ্রিয় নেত্রী হিসেবে আরিফা জেসমিন নাহীনের নাম ভোটারদের মুখে মুখে।

সুত্রমতে, নেত্রকোনা -২ (সদর-বারহাট্টা) আসনে ৩ লাখ ৮৪ হাজার ভোটার। এরমধ্যে অর্ধেকও বেশি নারী ভোটার। তাই নারী ভোটারদের মধ্যে আরিফা জেসমিন নাহীন বিশেষভাবে আলোচনায় আছেন।

তাছাড়া, এ নির্বাচনী এলাকার সদর উপজেলা থেকে ওয়ার্ড, আর ওয়ার্ড থেকে প্রতিটি গ্রাম চষে বেড়িয়েছেন আরিফা জেসমিন নাহীন। বছরের পর বছর গণসংযোগ চলাকালীন সময় তার সাথে ছিলেন নারীকর্মীরা। নারীদের নিয়ে কাজ করার আগ্রহ উদ্দীপনা দেখে গ্রামীন নারীরাও বেশ উৎসাহী হয়েছেন।

কথা হয় আরিফা জেসমিনের সাথে। তিনি বলেন, দল থেকে মনোনয়ন পেলে ও সম্মানিত ভোটাররা তাদের সঠিক অধিকার প্রয়োগের মাধ্যমে আমাকে নির্বাচিত করলে নির্বাচনী এলাকার প্রতিটি ওয়ার্ড কিংবা গ্রামের মানুষের জন্য নিরলসভাবে কাজ করবো। সমাজ উন্নয়ন বেকারত্ব দূরীকরণ, রাস্তাঘাট উন্নয়ন, শিক্ষায় উন্নয়ন ও নারী শিক্ষার জন্য বিশেষায়িত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করা হবে। নারী ও শিশুর অধিকার সুরক্ষায় সর্বাত্মক প্রচেষ্টা গ্রহণ করা।

প্রযুক্তিতে যুবসমাজকে এগিয়ে নেয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করে তিনি বলেন, যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন, সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে বিকাশ ঘটানো হবে। সন্ত্রাস ও দুর্নীতি মাদক মুক্ত অঞ্চল হিসেবে নেত্রকোনা ২ নির্বাচনী আসনকে গড়ে তোলার ব্যাপারে সর্বাধিক গুরুত্ব দেব। দীর্ঘদিন দলের প্রতি সততা নিষ্ঠা এবং অনুগত থেকে দায়িত্ব পালন করেছি।

দলের যে কোনো বিপদে একজন নির্ভীক সৈনিক হিসেবে আপসহীন যোদ্ধার মতো পাশে থেকেছি। দল যদি সৎ, যোগ্য, দলের প্রতি অনুগত কর্মীদের সঠিক মূল্যায়নে ব্যারোমিটারে মাপ করে, তাহলে আমি নিজেকে নেত্রকোনা ২ আসনের একজন মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে যৌক্তিক দাবিদার।

খোজ নিয়ে জানা গেছে, শুধু নির্বাচনকে সামনে রেখে নয়, এলাকার মানুষের সুখে দু:খে পাশে ছিলেন সব-সময়। প্রাকৃতিক দূর্যোগ শীত ও বন্যায় ত্রাণ নিয়ে এলাকার মানুষের পাশে দাড়িয়েছেন। এলাকার সকল ধর্ম উদযানে সমানভাবে কাজ করছেন। এছাড়াও এলাকার বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডে উপস্থিত ছিলেন। এ আসনের সর্বস্তরের গণমানুষের জন্য নিরলস ভাবে কাজ করেছেন।

আরিফা জেসমিন বলেন, এ এলাকার মানুষ ধানের শীষ প্রতিক চায়। বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারুণ্যের অহংকার তারেক রহমানের হাতকে শক্তিশালী করতে এ আসনটি উপহার দেয়া হবে।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech