লাইফ সাপোর্টে এরশাদ

  

পিএনএস ডেস্ক : জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে লাইফ সাপোর্টে নেয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টা ১০ মিনিটে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে চিকিৎসকরা তাকে লাইফ সাপোর্টে পাঠান।

এইচএম এরশাদের ভাই এবং জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জিএম কাদের বলেন, ওনার (এরশাদ) শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ার কারণে চিকিৎসকরা তাকে লাইফ সাপোর্টে নিয়েছেন। আমরা দেশবাসীর কাছে তার জন্য দোয়া কামনা করছি।

তিনি আরো বলেন, গত তিন দিন ধরে এরশাদের শারীরিক অবস্থা অপরিবর্তিত আছে। তিনি চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে বলেন, চিকিৎসকদের প্রত্যাশা অনুযায়ী এরশাদের শারীরিক অবস্থার উন্নতি হচ্ছে না। তবে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের চিকিৎসকরা এরশাদকে বিশ্বমানের চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছেন।

তিনি বলেন, সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের চিকিৎসকরা দেশী-বিদেশী বিশেষজ্ঞের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করেই চিকিৎসা দিচ্ছেন। সিএমএইচের চিকিৎসকরা মনে করলেই পল্লীবন্ধুকে বিদেশ নেয়া হবে অথবা বিদেশ থেকে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ডাকা হবে।

তিনি আরও বলেন, এরশাদের ড্রাউজিনেস বেড়ে গেছে। প্রায় সময় তিনি ঘুমিয়ে আছেন। ডাক্তারদের মতে, ব্লাডে ইউরিয়ার পরিমাণ বেড়ে গেছে। সে কারণে উনার ঘুমের ভাব বেশি হয়েছে। উনি এখন সচেতন অবস্থায় থাকছেন না, ঘুমিয়ে থাকছেন। এটা ডাক্তারদের কাছে ভালো মনে হচ্ছে না। চিকিৎসকরা এখন রক্তে ইউরিয়ার পরিমাণ কমানোর চেষ্টা করছেন।

এদিকে বুধবার জিএম কাদের এরশাদের ফুসফুসের সংক্রমণ কিছুটা ভালো অবস্থার কথা জানালেও আজ তিনি জানিয়েছেন ফুসফুসের সংক্রমণ প্রত্যাশা অনুযায়ী কমছে না। প্রয়োজন অনুযায়ী কিডনি কাজ করছে না, এ কারণে তার শরীরে কিছুটা পানি জমেছে।

আগামীকাল শুক্রবার দেশের সব মসজিদ, মন্দির, গীর্জা, প্যাগোডাসহ ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে এরশাদের রোগমুক্তি ও সুস্থতা কামনায় দোয়া প্রার্থনা করতে দেশবাসীর প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন জিএম কাদের।

ব্রিফিংয়ে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্রেসিডিয়াম সদস্য সুনীল শুভ রায়, লে. জেনারেল (অব.) মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী, আলমগীর সিকদার লোটন, উপদেষ্টা ড. মো. নুরুল আজাহার, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য মো. বেলাল হোসেন, মঞ্জুরুল হক, এম.এ. রাজ্জাক খান, জাকির হোসেন মিলন, কেন্দ্রীয় নেতা অ্যাডভোকেট তৈয়ব, আনোয়ার হোসেন প্রমুখ।

প্রসঙ্গত, গত ২২ জুন বারিধারার প্রেসিডেন্ট পার্কের বাসভবনে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে দ্রুত সিএমএইচে নেয়া হয়। সেখানেই তিনি এখনো চিকিৎসাধীন।

এর আগে, গত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সময় এরশাদের রক্তে হিমোগ্লোবিনের সমস্যা ধরা পড়ে। দুই দফায় সিঙ্গাপুর থেকে চিকিৎসা নিয়ে এলেও তার শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়নি। এরপর সিএমএইচে ভর্তি হলে এরশাদের ফুসফুস ও কিডনিতে সংক্রমণ ধরা পড়ে।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech