মহাকাশে ভাসবে পৃথিবীর প্রথম হোটেল

  

পিএনএস ডেস্ক: হোটেলের নাম ‘অরোরা স্টেশন’। বৃহস্পতিবার (৫ এপ্রিল) যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের সান হোসেতে অনুষ্ঠিত স্পেস ২.০ সম্মেলনে ওই মহাকাশ হোটেল তৈরির ঘোষণা দেয়া হয়েছে। এ মহাকাশ হোটেলে তৈরি করবে যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ প্রযুক্তিবিষয়ক উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান ওরিয়ন স্প্যান। যে হোটেল থেকে এক দিনে ১৬ বার সূর্যোদয় দেখা যাবে।

সিএনএনের প্রতিবেদনে জানা যায়, চার বছর পরই এ হোটেলে থাকা যাবে। আর মহাকাশ হোটেলে থাকা-খাওয়ার বিল হিসেবে বাংলাদেশী টাকায় ৭৮ কোটি ৮১ লাখ ২০ হাজার টাকা বা ৯৫ লাখ মার্কিন ডলার লাগবে। ২০২২ সালে প্রথম অতিথি হিসেবে সেখানে যাওয়ার সুযোগ থাকবে। ১২ দিনের মহাকাশ সফরে এখানে দুজন ক্রু সদস্যসহ একসঙ্গে ছয়জন থাকতে পারবেন।

এজন্য যারা সুযোগ হারাতে চান না, তাদের কাছ থেকে অগ্রিম টাকা নিতে শুরু করেছে ওরিয়ন স্প্যান। ৮০ হাজার ডলার দিয়ে আগাম বায়না করে রাখতে হবে। তবে পরে যদি কেউ পুরো অর্থ না দিতে পারেন, তবে ওই অর্থ ফেরত দেওয়া হবে।

ওরিয়ন স্প্যানের প্রধান নির্বাহী ফ্র্যাঙ্ক বাংগার বলেন, তাদের লক্ষ্য সবার জন্য মহাকাশ ভ্রমণের সুযোগ করে দেয়া। দুই সপ্তাহের ভ্রমণে প্রায় ১০০ কোটি মার্কিন ডলার খরচের বিষয়টি একপ্রকার অনেকই বলা চলে। তবে ওরিয়ন স্প্যানের দাবি, সত্যিকারের মহাকাশচারীর অভিজ্ঞতা পাওয়া যাবে এতে।

বার্গনার আরও বলেন, ১২ দিনের এ রোমাঞ্চকর যাত্রা পৃথিবীর পৃষ্ঠ থেকে ২০০ মাইল ওপরে লো আর্থ অরবিটে (এলইপি) উড়বেন। এ হোটেল পৃথিবীকে প্রতি ৩০ মিনিটে প্রদক্ষিণ করবে। অর্থাৎ হোটেলের অতিথিরা প্রতি ২৪ ঘণ্টায় ১৬ বার সূর্যোদয় আর সূর্যাস্ত দেখতে পাবেন। থাকবে উচ্চগতির ওয়্যারলেস ইন্টারনেট সিস্টেম। সরাসরি পৃথিবীতে লাইভ ভিডিও চ্যাটও করা যাবে। এ ছাড়া পৃথিবীতে ফেরার পর তাদের জানানো হবে বিশেষ সম্মান ।

তবে বার্গনার বলছেন, ‘মহাকাশ ভ্রমণে খরচ যা-ই হোক, যাত্রী খুব কম পাওয়া যাবে। তবে অরোরা স্টেশন শুধু হোটেল হিসেবে কাজ করবে না, এটি মহাশূন্যে ভরশূন্য অবস্থায় বিভিন্ন গবেষণা ও মহাশূন্যে কারিগরি কাজে মহাকাশ সংস্থাগুলোর জন্য কাজ করবে’।

পিএনএস/আলআমীন

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech