৪০ বছরের পুরনো সরকারি গাছ কাটায় এলাকাবাসীর বিক্ষোভ

  

পিএনএস : পাবনার আটঘরিয়ার ২নং চাঁদভা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩০-৪০ বছরের পুরানো গাছ কাটা হয়েছে। এ গাছের মূল্য প্রায় পাঁচ লক্ষাধিক টাকা। বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির দাবি, বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণের স্বার্থে গাছ কাটা হচ্ছে। এ ব্যাপারে এলাকাবাসী আটঘরিয়া বাজারে গাছ কাটা বন্ধে বিক্ষোভ মিছিল করেছে।

আটঘরিয়ার ২নং চাঁদভা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি জাহিদুল ইসলাম মুকুল ও প্রধান শিক্ষিক মোছা: তাহমিনা খাতুন রেবা বিদ্যালয় থেকে মোটা অংঙ্গের টাকা আতœসাৎ করার লক্ষ্যে ৩০-৪০ বছরের পুরনো মূল্যবাদ কড়ই, মেহগনি ও কাঁঠাল গাছসহ মোট ৮টি গাছ অবৈর্ধ ভাবে কর্তন করে। যার আনুমানিক মূল্য প্রায় ৫ থেকে ৬ লক্ষাধিক টাকা।

বিষয়টি এলাকাবাসীর নজরে এলে দুপুরে স্থানীয়রা আটঘরিয়া বাজারে বিক্ষোভ-মিছিল বের করে। মিছিলটি আটঘরিয়া বাজার প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। পরে তারা পথ সভায় গাছ কাটার সাথে জড়িতদের শাস্তির দাবীর জানান।

চাঁদভা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তাহমিনা সুলতানা রেবা চিকিৎসার জন্য ভারতে থাকায় তার সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি। তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জনৈক বিদ্যলয়ের সহকারী শিক্ষক বলেন, স্কুলের প্রয়োজনেই এবং নতুন ভবনের নির্মান কাজে এই গাছ কাটা হয়েছে।

স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা আহসান উল্লাহ বলেন, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, ম্যানেজিং কমিটি , শিক্ষা কর্মকর্তার যোগ সাজসে স্কুলের মূল্যবান ৮টি গাছ কাটা হয়েছে। এ গাছের আনুমানিক মূল্য প্রায় ৫ থেকে ৬ লাখ টাকা।

চাঁদভা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি জাহিদুল ইসলাম মুকুল বলেন, বিদ্যালয়ের শিক্ষক, ম্যানেজিং কমিটির সদস্য, শিক্ষা অফিসের সাথে আলোচনা করেই ভবন নির্মাণের স্বার্থে গাছ কাটা হয়েছে।
এ ব্যাপারে আটঘরিয়া উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সিরাজুম মুনিরা বলেন, গাছ কাটার বিষয়টি আমার জানা নেই, তবে আমি শুনেছি গাছ কাটা হয়েছে। তবে কাল তিনি পরিদর্শন করে বিস্তারিত জানাবেন বলে সাংবাদিকদের জানান।

আটঘরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র শহিদুল ইসলাম রতন বলেন, স্কুলের প্রায় ৩০ থেকে ৪০ বছরের পুরনো কড়ই এবং মেহগুনি গাছ কেটে বিদ্যালয়ের পরিবেশ নষ্টসহ ব্যাপক আর্থিক ক্ষতি সাধিত করেছে। গাছ কাটার সঙ্গে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান তিনি।

এ ব্যাপারে আটঘরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আকরাম আলী বলেন, বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্মাণের স্বার্থে গাছ কাটা যেতে পারে, তবে সরকারি নিয়মের মধ্যে গাছ কাটতে হবে। তবে গাছ কাটা চলার সময়ে আমি খবর পেয়ে গাছ কাটা বন্ধ করে দিয়েছি।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল


 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech