ডিমলায় ইউপি সচিবের কর্মময় জীবন

  

পিএনএস, ডিমলা নীলফামারী প্রতিনিধি : নীলফামারীর ডিমলায় ১৬ বছর যাবৎ বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদে সচিবের দায়িতে কর্মরত সুবাস চন্দ্র রায়। বর্তমানে তিনি ৮নং ঝুনাগাছ চাপানী ইউনিয়ন পরিষদের সচিবের দায়িত্বে। তার বাড়ি একই উপজেলা গয়াবাড়ি ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডে।

তার কর্মময় জীবন সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বর্তমান উক্ত ইউনিয়নের দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি ৯নং টেপাখড়িবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদেরও সচিবের দায়িত্ব পালন করছি। চাকুরি জীবনের প্রথম পণ ছিল মানব সেবা। সৃষ্টিকর্তা সে আশা পুরণ করেছেন। ১৬ বছর যাবৎ সেবা দিয়ে যাচ্ছি, আমার সেবায় জনগণ কতটুকু সন্তুষ্টতা বলার অবকাশ রাখে না। দীর্ঘ ১৬ বছরের সেবায় ইতিমধ্যে একজনও আমার নামে কোনো প্রকার অভিযোগ দ্বায়ের করেনি। আমি বিশ্বাস করি কাজের প্রতি দায়িত্ব ও আন্তরিকতা থাকলে সেখানে অকৃতকার্য হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। দেশ আজ উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় যে সিংহ ভাগ সফলতা অর্জন করেছে যার ফলে ইউনিয়ন পরিষদ আজ ‘ওয়ান স্টপ’ সার্ভিসে পরিণত হয়েছে। পরিষদ গুলোতে ডিজিটালের ছোঁয়া লেগেছে। প্রতিটি কাজ এখন অনলাইনে হচ্ছে। হাতের লেখার কাজ এখন অনেকাংশে কমেছে, আমরা জনগণের সেবায় সর্বদা নিয়োজিত আছি। তবে নেই আমাদের প্রশাসনিক ক্ষমতা।

বাস্তবতা হচ্ছে একজন সচিবের প্রশাসনিক ক্ষমতা না থাকলে একটা অফিস সুষ্ঠ ভাবে চলতে পারে না। অপরদিকে চাকুরি টি রাজস্ব খাত না হওয়ায় আমরা আর্থিক ভাবে অনেক ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছি। পরিতাপের বিষয় আমাদের চেয়েও কম যোগ্য সম্পন্ন হয়েও অনেকে অন্য বিভাগে অফিসার হয়ে যাচ্ছে। আমরা এখনও একই স্থানে বসে আছি।

উল্লেখ্য যে জনগণের কল্যান সাধনে যদি কোনো বড় ধরনের সমস্যা দেখা দেয় তখন উপজেলা ও জেলা প্রশাসনের দারস্ত হই, এসব মিলেই চলছে সচিবদের ব্যস্ত ও কর্মময় জীবন।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech