ডিমলায় চুরির উপদ্রব বেড়েছে

  

পিএনএস, ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধি : কখনো চেতনা নাশক ঔষধ স্প্রে করে আবার কখনো দরজার তালা কেটে, কখনো বেড়া কেটে চুরি হচ্ছে মটরবাইক, সোনাদানা, গরু, মোবাইল ফোন সহ নগদ অর্থ। এমন ঘটনা ঘটছে অহ রহ, যা দেখার কেউ নেই। জন সাধারণের প্রশ্ন, কারা এরা? এদের নেটওয়ার্ক কোথায় ? এমনি ঘটনা ঘটেছে নীলফামারী ডিমলা উপজেলার ৮ নং ঝুনাগাছ চাপানী ইউনিয়নের দক্ষিণ ঝুনাগাছ চাপানী চাকলাপাড়া গ্রামের মৃত ছকি উদ্দিনের ছেলে ৪ নং ওয়ার্ড আওয়ামী-লীগের সাধারণ সাম্পাদক মোঃ নুরনবী ইসলাম (রিয়াদ) এর বাড়িতে।

রিয়াদ বলেন, ১৩ সেপ্টেম্বর দিবা গত রাতে প্রয়োজনীয় কাজ শেষে ডিমলা থানা থেকে আনুমানিক ১ টা ৩০ মিনিটে বাড়ি ফিড়ে গেটের সামনে থেকে আমার স্ত্রীকে ১০ থেকে ১২ বার ডাকার পর সে জেগে ওঠে এবং দরজা খুলতে চাইলে বাহির থেকে দরজা লক করা আছে বলে আমাকে জানায়। এমতাবস্থায় আমি বাসার পিছনের দরজা দিয়ে প্রবেশ করি এবং সেখানকার তালাও খোলা পাই। এর পর বাসার ভিতরে ঢুকে দেখি পূর্ব কক্ষে আমার স্ত্রী তালা বদ্ধ এবং পশ্চিম কক্ষের তালা ভাঙা। এরপর ভিতরে প্রবেশ করে দেখি স্টীলের মাইপেশে রাখা নগদ ৩ লক্ষ ২৫ হাজার টাকা নেই।

অপর দিকে গত সপ্তাহে ৩ নং ডিমলা ইউনিয়নের নটাবাড়ী গ্রামে তরিকুল ইসলামের বাড়ীতে প্রত্যেকটি ঘরে চেতনা নাশক ঔষধ প্রয়োগ করে একটি ডিসকভার মটর সাইকেল সহ সোনার গহনা ও নগদ অর্থ চুরি হয় এবং ঝুনাগাছ চাপনী ইউনিয়নের আতিয়ার রহমানের বাড়ীতে টিউব ওয়েলে চেতনা নাশক ঔষধ প্রয়োগ করে সবাইকে অবচেতন করা হয়। তাতে একই পরিবারের ১১ জন অসুস্থ হয়।

এ বিষয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আঃ লতিফ চৌধুরী, ডিমলা থানা সাব-ইন্সপেক্টর সুমন, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি মোজাম্মেল হক, সাঃ সম্পাদক বাবু সুনীল কুমার রায়, যুবলীগ যুগ্ন আহ্বায়ক মনিরুজ্জামান মানিক, ইউপি সদস্য সোলায়মান আলী, নিতাই ও তবিবর রহমান।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech