কষ্ঠে দিন কাটাচ্ছে বরিশালে শতাধিক এতিম শিশু!

  

পিএনএস, বরিশাল প্রতিনিধি : এতিম শিশু হ্নদয় কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন, আমার মা-বাবা কেউ বেঁচে নেই। আমি এতিম। তাই কেউ আমার মত এতিমকে খোঁজ খবর নেয় না। ছেড়া পোষাক ও ডাল-ভাত খেয়েই দিনের পর দিন কাটাতে হচ্ছে। অনেক সময়ই পান্তা ভাত খেয়ে থাকতে হয়। মাদ্রায় কেউ চাল অথবা টাকা দান করলে আমাদের মত এতিমের কষ্ট যদি একটু কমে।

এই কথা গুলো বলেন বরিশাল নগরের পলাশপুর ৫ নং ওয়াড ৭ নং আর্দশ গুচ্ছগ্রাম মধ্য কালভার্ট সংলগ্ন রহমানিয়া কেরাতুল কোরআন হাফিজি ও মাদ্রাসা লিল্লাহ বোডিংটি শতাধিক এতিম শিশুরা। অর্থের সহযোগীতা না পাওয়ায় ছাত্রদের নিয়ে পথে পথে কেঁদে বেড়াচ্ছে মাদ্রাসার পরিচালক। অন্য দিকে এতিম শিশুরা কেঁদে কেঁদে বলেন, আমাদের কেউর মা নেই। আবার কেউর বাবা নেই। তাই আমরা পোষাক ও একটু ভালো খাবারের মূখ দেখতে পাচ্ছিনা। আমাদের একটা প্যাঞ্জামি কিনে দেওয়ার মত কেউ নেই। কোন সরকারী অথবা বেসরকারী সহযোগীতারও পাচ্ছিনা মাদ্রাসায়।

সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে,প্রায় শতাধিক এতিম গরীব রয়েছে এই মাদ্সায়। এতিম ছাত্ররা আরো জানায়, আমরা গরীব ঘরের ছাত্র দেখে আমাদের স্থান হয়েছে এতিম খানায়। আর যারা ধনি বংশে জম্ম নিয়েছে তাদের খোঁজ খবর রাখে সবাই। তারা চলে গাড়িতে খাচ্ছে তিন বেলাই পোলাউ মাংস বিরানী। আমরা খাচ্ছি পান্তা ভাত। তাও মাদ্রাসায় চাল না থাকলে পান্তা ভাতও পেটে পরে না।

মাদ্রাসাটিতে গিয়ে জানা গেছে, কয়েক জন এতিম শিশুর জীবন কাহিনীর গল্প। দেখা গেছে কি ভাবে তাদের জীবন কাটাচ্ছে মাদ্রারায়। এতিম শিশু নাঈম,মানিক,রুম্মানসহ এতিমরা জানায়, আমার বাবা মা কেউই এই পৃথিবীতে বেঁচে নেই, শুধু রয়েছে নানু তাই আমার ঠিকানা হয়েছে এতিম খানায়। মা-বাবা বেঁচে থাকলে নতুন পোষাক ও ভালো খাবার দিতেন আমাকে এনে। নেই বলে তিন বেলার খাবারও জুটেনা আমার মত আনেক এতিমের।

মাদ্রাসার পরিচালক নুরুল ইসলাম ফিরোজী জানায়, মাদ্রাসায় জায়গা কম ছাত্রদের থাকতে হচ্ছে কস্টে এবং কি গোসল পানিও নেই সংকট। অর্থের অভাবে কাজ শেষ করতে পারছিনা। দ্বীন দরদী ভাই বোনদের খেদমতে এই যে মাদ্রাসায় চাল,কাপড়,অর্থ, মান্নত দান করলে ছাত্রদের নিয়ে মাদ্রাসাটি চলাতে বেশি একটা সমস্যা হয়ে দারাতো না। কিন্তু কোন ব্যাক্তি এই এতিম শিশু গুলোর দিকে একটু নজর অথবা অর্থের সহযোগীতা করছেনা। তিনি আরো জানায়,দানশীল ব্যক্তিরা এই মাদ্রাসার এতিম গরীব ছাত্রদের মুখে দিকে তাকিয়ে একটু দান করেন। এতিম ছাত্রদের খাবার ,কাপড়, অর্থ দিয়ে সকলের সহযোগীতা একান্ত ভাবে কাম্য। সহযোগীতা করার জন্য যোগাযোগ করুন মাদ্রাসার পরিচালকের মোবাইল নাম্বার: ০১৭৬২-১০০৫৩১ ।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech