চট্টগ্রামে বাস থেকে ফেলে হত্যার ঘটনায় চালক গ্রেফতার

  

পিএনএস ডেস্ক : চট্টগ্রামে বাস থেকে ফেলে হত্যার ঘটনায় বাসটির চালককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

সোমবার গভীর রাতে কুমিল্লা সদর উপজেলার জগন্নাথপুর ইউনিয়নের বালুতুপা গ্রাম থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার দিদারুল আলম সন্দ্বীপ জেলার কুচিয়া মোড়া গ্রামের মোহাম্মদ ইয়াসিনের ছেলে।

গত ২৭ আগস্ট নগরের সিটি গেইট সংলগ্ন ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কালিরহাট এলাকায় চালক ও হেলপাররা মিলে রেজাউল করিম রনি নামের এক যুবককে চলন্ত বাস থেকে ফেলে নির্মমভাবে হত্যা করে। পরদিন নিহতের মামা আব্দুর রহমান বাদি হয়ে আকবরশাহ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরে মামলাটির তদন্তের ভার নেয় পিবিআই।

পিবিআই পরিদর্শক সন্তোষ কুমার চাকমা জানান, ঘটনার দিন ভাটিয়ারী থেকে ছাড়ে তাজিল পরিবহন ও বক্কর পরিবহনের দুইটি সিটি বাস। সড়কে বাস দুইটি প্রতিযোগিতা শুরু করে। তাজিল পরিবহনের যাত্রী ছিল রেজাউল করিম রনি। যেটি বক্কর পরিবহনের পেছনে ছিল। গ্ল্যাক্সো কারখানা এলাকায় বাস থামলে তাজিল পরিবহন থেকে নেমে এসে বক্কর পরিবহনে উঠেন রনি। পেছনের গাড়িকে কেন সাইড দেওয়া হয়নি চালকের কাছে তা জানতে চান। চালকের আসনে বসা ছিলেন হেলপার সাদেকুল ইসলাম। পাশের আসনে বসা ছিলেন মূল চালক দিদারুল আলম। এসময় চালকের কাছ থেকে গাড়ির কাগজপত্র দেখতে চেয়ে তা কেড়ে নেন রনি। এক পর্যায়ে চালক ও হেলপারদের সঙ্গে রনির বাকবিতণ্ডা শুরু হয়। এ সময় গাড়ি থেকে নামতে চাইলে রনিকে নামতে না দিয়ে বাস জোরে চালানো শুরু করেন চালক। পরে কালিরহাট এলাকায় পৌঁছালে চলন্ত বাস থেকে চালক ও হেলপাররা মিলে রনিকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেন। একই বাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই নিহত হন রনি। ঘটনার দেড়মাস পর দিদারুল আলমকে গ্রেফতার করেছে পিবিআই।

এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তার পাঁচ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান পিবিআইয়ের এই কর্মকর্তা।

ওইদিন চালকের আসনে থাকা হেলপার সাদেকুল ইসলামকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলেও জানান তিনি।

এরআগে গত ১ সেপ্টেম্বর লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলার চর হাসান এলাকা থেকে গাড়িটির আরেক হেলপার মানিক সরকারকে গ্রেফতার করে পুলিশ। হত্যাকাণ্ডের কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দেন মানিক।

এনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech