সরাইল সম্মিলিত নাগরিক সমাজের প্রতিবাদ সামাবেশ

  

পিএনএস, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রতিনিধি : ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সরাইল উপজেলা গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রীর, বিশেষ সহকারি শাহ আলী ফরহাদ (প্রিন্স) এর বাবা বিশিষ্ট আওয়ামীলীগ নেতা ও সাবেক অতিরিক্ত সচিব ফরহাদ রহমান (মাক্কির) বিরুদ্ধে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন সংবাদ প্রকাশের প্রতিবাদে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রোববার বেলা ১১টার দিকে সরাইল কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে সম্মিলিত নাগরিক সমাজের ব্যানারে এ প্রতিবাদ সমাবেশ করা হয়। সমাবেশে ফরহাদ রহমান মাক্কি কুচক্রি মহলের ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছেন বলে মন্তব্য করেছেন বক্তারা। সম্মিলিত নাগরিক সমাজের সভাপতি সরল ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ইদ্রিছ আলী সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন, সরাইল উপজেলা যুবলীগের সভাপতি এডভোকেট আশরাফ উদ্দিন মন্তু, সরাইল উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক শের আলম মিয়া, সরাইল উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার ইছমত আলী প্রমুখ। চুন্টা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আরব আলী, সরাইল উপজেলা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহ রহমত আলী, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাহফুজ আলী, যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হাফিজুল ইসলাম সেলবি, সরাইল ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য শাহ আলম মেম্বার, আরো উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগ ছাত্রলীগ যুবলীগ ওলামা লীগের নেতৃবৃন্দ, ও বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা এ প্রতিবাদ সমাবেশ উপস্থিত ছিলেন, অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সাবেক স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি হাজী ইকবাল হোসেন, সভায় বক্তারা বলেন, ফরহাদ রহমান মাক্কি ছাত্র জীবন থেকেই আওয়ামী লীগের জন্য নিবেদিত হয়ে কাজ করছেন। তিনি সরাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে সভাপতি প্রার্থী হওয়ার পর থেকেই একটি কুচক্রি মহল তার বিরুদ্ধে নানা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। এই ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে মাক্কিকে ছোট করার জন্য পত্রিকায় মাক্কির বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে। এ ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে ষড়যন্ত্রকারীদের সরাইলে ঢুকতে দেয়া হবে না বলে হুশিয়ারি দেন বক্তারা।

উল্লেখ্য, গত ৯ সেপ্টেম্বর একটি জাতীয় দৈনিকে সরাইল উপজেলার রাজাকারদের তালিকা নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা ছাড়াই ফরহাদ রহমান মাক্কির প্রভাবে উপজেলা প্রশাসন শীর্ষ রাজাকারদের বাদ দিয়ে ওই তালিকা প্রণয়ন করে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। ১৯৭১ সালের অক্টোবরে সরাইল থানা শান্তি কমিটির চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নাফ ঠাকুর মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে নিহত হবার পর মাক্কির বাবা ফয়েজ আহমেদ খন্দকার শান্তি কমিটির চেয়ারম্যার নিযুক্ত হন বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

পিএনএস/মো. শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech