সরাইলে ১৭ বছর পর জাপা’র কমিটি বাতিল

  

পিএনএস, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রতিনিধি : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলা জাতীয়পার্টিতে দীর্ঘ টানা ১৭ বছর আহবায়ক কমিটি থাকার পর গত ১৪ সেপ্টেম্বর পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠিত হয়। জাপা’র ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা এবং সরাইল উপজেলা কমিটির আহবায়ক ও মহাজোটের সাবেক সাংসদ অ্যাডভোকেট জিয়াউল হক মৃধার নেতৃত্বে গঠিত পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে সভাপতি পদে মো. হুমায়ূন কবির ও সাধারণ সম্পাদক পদে এমদাদুল হক ছালেককে নির্বাচিত করা হয়েছিল।

এদিকে সম্মেলন ব্যতিরেখে সরাইল উপজেলা জাতীয় পার্টির কমিটি গঠন করার অভিযোগে কেন্দ্রিয় কমিটির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের, এমপি গঠনতন্ত্রের ২০/১/ক ধারার ক্ষমতাবলে তিনি এই কমিটি বাতিল করেছেন। গত ১৯ অক্টোবর জেলা কমিটির আহবায়ক ও সদস্য সচিব বরাবর কেন্দ্রিয় কমিটির যুগ্ম দফতর সম্পাদক এম এ রাজ্জাক খান স্বাক্ষরিত এক পত্রে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। ওই চিঠিতে উল্লেখ, জাপা’র চেয়ারম্যান যথাযথ কাউন্সিলের মাধ্যমে সরাইল উপজেলা জাতীয় পার্টির পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের জন্য নির্দেশ দিয়েছেন।

এরআগে ১৪ সেপ্টেম্বর সরাইল উপজেলা জাতীয় পার্টির নবগঠিত কমিটিকে পকেট কমিটি আখ্যায়িত করে ১৫ সেপ্টেম্বর সংবাদ সম্মেলন করেছিলেন জাপা’র স্থানীয় বিক্ষুব্ধ নেতারা। সেই সংবাদ সম্মেলনে জাপা’র জেলা কমিটির যুগ্ম আহবায়ক মো. রহমত হোসেন দাবি করেন, জিয়াউল হক মৃধা একসঙ্গে জেলা কমিটির আহবায়ক আবার সরাইল উপজেলা কমিটির আহবায়ক। এখন সরাইল উপজেলা কমিটির সভাপতি হতে তিনি নানা ভাঁওতাবাজি শুরু করেছেন। সরাইল উপজেলা জাতীয় পার্টির যুগ্ম আহবায়ক মোজাহিদুল ইসলাম সেলিম মাস্টার বলেন, জিয়াউল হক মৃধা জাতীয় পার্টির এমপি ছিলেন ১০ বছর। এই সময়ের মধ্যে তিনি জাতীয় পার্টির একটি সভা পর্যন্ত করতে পারেননি। জাতীয় পার্টি এখানে তাঁর পারিবারিক পার্টি হিসেবে পরিচালিত হচ্ছে। সরাইল উপজেলা ছাত্র সমাজের সাবেক সভাপতি মো. আলমগীর মিয়া উজ্বল বলেন, ১৭ বছর যাবত উপজেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক জিয়াউল হক মৃধা। এখন নিজে মনগড়া পকেট কমিটি গঠন করেছেন তাঁর ব্যক্তিগত ফায়দা হাসিল করতেই, আমরা তা মেনে নিব না।

এ ব্যাপারে রোববার (২০ অক্টোবর) সরাইল উপজেলা জাতীয় পার্টির নবগঠিত কমিটির সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক ছালেক এ প্রতিবেদককে বলেন, নিয়মনীতি অনুসরণ করেই এই কমিটি গঠিত হয়েছে। “জামাই-শ্বশুর” এর অন্তদ্বন্দের কারণেই জিয়াউল হক মৃধার বড় মেয়ের জামাই কেন্দ্রিয় কমিটির প্রেসিডিয়াম সদস্য অ্যাডভোকেট রেজাউল ইসলাম ভূইঁয়া এসব করাচ্ছেন। আমরা বিষয়টি নিয়ে দলের মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা’র সঙ্গে দেখা করেছি। তিনি আমাদের জানিয়েছেন, ‘সরাইল উপজেলা কমিটি বাতিলের বিষয়ে তাঁর কিছুই জানা নেই।’ অচিরেই পার্টির চেয়ারম্যানের সঙ্গে দেখা করে এ বিষয়ে কথাবার্তা হবে বলে সম্পাদক এমদাদুল হক জানান।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা জাতীয়পার্টির সদস্য সচিব কাজী মামুনুর রশিদ রোববার বিকেলে এ প্রতিবেদককে বলেন, সরাইল উপজেলা জাতীয় পার্টির কমিটি বাতিলের চিঠি অফিসিয়ালভাবে আমি এখনও পাইনি।

পিএনএস/মো. শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech