প্রতিবেশীর প্রতিহিংসায় পঙ্গু শিশু সুরাইয়া

  

পিএনএস, নরসিংদী প্রতিনিধি : নরসিংদী জেলার মাধবদী থানাধীন দড়িপাড়া এলাকায় প্রতিবেশী প্রতিহিংসার অনলে দগ্ধ হয়ে অকালে পঙ্গুত্ব বরণ করেছে শিশু সুরাইয়া (৮)। দীর্ঘ সাড়ে চার মাস ধরে সুরাইয়া বাবা-মা মেয়র ও এলাকাবাসীর দ্বারস্থ হয়েও কোনো প্রকার আর্থিক সহায়তাসহ উপযুক্ত বিচার পাননি। এ অবস্থায় সুরাইয়ার মা নাজমা বেগম মেয়ের ওপর অমানবিক নির্যাতনের সুষ্ঠু বিচার চেয়ে নরসিংদী জেলা দায়রা জজ আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ডাব বিক্রেতা শাহিনের স্ত্রী নাজমা বেগম দীর্ঘদিন ধরে দড়িপাড়া পাকার মাথা এলাকায় বসবাস করে আসছেন। এরই সুবাদে পাশবর্তী বাড়িতে তাদের যাতায়াত ছিল। নাজমা বেগমের স্বামী শাহীন মিয়া পেশায় একজন ডাব বিক্রেতা। সেই প্রেক্ষিতে পাশের বাড়ির জয়নাল আবেদীন নাজমাকে তাদের বাড়িতে কাজ করার কথা বলে। নাজমা তার প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় জয়নাল আবেদীন ও তার ছেলে নাঈম ক্ষিপ্ত হয়ে তাদের বাড়িতে না আসার জন্য হুমকি দেয়। অবুঝ শিশু সুরাইয়া তাদের এসব দ্বন্দ্বের কথা বুঝতে না পেরে খেলার ছলে তাদের দ্বিতল ভবনের ছাদে উঠে অন্য শিশুদের সঙ্গে খেলা করতে থাকে। সেই সুযোগে গত ২১ জুন শুক্রবার দুপুরে ক্ষিপ্ত জয়নাল আবেদীন, ছেলে নাঈম ও রুহুল আমীন কৌশলে ছাদে বিদ্যুতের অবৈধ সংযোগ দিয়ে রাখে। খেলার ছলে শিশু সুরাইয়া যখন সেই তারে হাত দেয় তখন সে বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়ে দ্বিতল ভবনের ছাদ থেকে মাটিতে পড়ে যায়। এ সময় অন্য শিশদের চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করে নরসিংদী জেলা হাসপালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক অবস্থা বেগতিক দেখে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢামেক হাসপাতালে পাঠায়। চিকিৎসার স্বার্থে সুরাইয়ার ডান হাতের কব্জি ও বাম হাতের তিনটি আঙুল কেটে ফেলা হয় এবং শরীরের ১৩ শতাংশ অঙ্গ পুড়ে যায়। সেখানে দীর্ঘদিন চিকিৎসা শেষে সুরাইয়া বাসায় ফিরে এলেও বর্তমানে তাকে মানবেতর জীবন যাপন করতে হচ্ছে। অবুঝ শিশু সুরাইয়ার সুস্থ সুন্দর জীবনে হঠাৎ করে প্রতিবন্ধী হওয়া মেনে নিতে পারছে না তার মা-বাবা।

উল্লেখ্য, মাধবদী পৌর মেয়র মোশাররফ হোসেন প্রধান মানিক আশ্বস্ত করেন তিনি ভুক্তভোগীর পরিবারকে শিশু সুরাইয়ার চিকিৎসা ব্যয় আদায়সহ উপযুক্ত বিচারের ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। কিন্তু দীর্ঘ সাড়ে চার মাস ধরে সুরাইয়া বাবা-মা মেয়র ও এলাকাবাসীর দ্বারস্থ হয়েও কোনো প্রকার আর্থিক সহায়তাসহ উপযুক্ত বিচার পাননি। মেয়ের চিকিৎসার পেছনে সর্বস্ব বিক্রি করে তারা আজ নিঃস্ব হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে। একমাত্র শিশু সন্তানের এমন করুণ পরিণতিতে ন্যায় বিচারের আশায় আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন অসহায় এ পরিবারটি।

পিএনএস/মো. শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech