যাত্রী বোঝাই ফেরি পাটুরিয়া ঘাটে ভিড়তে দিল না পুলিশ, মিশ্র প্রতিক্রিয়া

  

পিএনএস ডেস্ক : করোনাভাইরাসের সংক্রমণের ঝুঁকি ঠেকাতে গত কয়েক দিন ধরে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌ-রুটে ফেরি চলাচল সীমিত করেছে ঘাট কর্তৃপক্ষ। শুধু মাত্র রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্স, পচনশীল পণ্যবাহী ট্রাক পারাপারের কথা থাকলেও নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বুধবার দুপুরের দিকে কয়েকটি অ্যাম্বুলেন্সসহ ঈদে ঘরমুখো সহস্রাধিক যাত্রী নিয়ে ছোট ঢাকা নামের ফেরি পাটুরিয়া ঘাট থেকে দৌলতদিয়ার উদ্দেশে ছেড়ে দেয় বিআইডব্লউটিসির ঘাট কর্তৃপক্ষ।

এ সময় দৌলতদিয়া প্রান্তে ফেরি ভিড়ার আগেই পুনরায় পাটুরিয়া ঘাটের দিকে যাত্রীসহ ফেরি ফিরিয়ে দেয় রাজবাড়ীর পুলিশ প্রশাসন। পরে বিকেলে মানিকগঞ্জ জেলা পুলিশের নেতুত্বে এসকল যাত্রীদের কয়েকটি যাত্রীবাহী বাস ভাড়া করে পাটুরিয়া ঘাট থেকে ঢাকার দিকে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। সমন্বয় না করে একক সিদ্ধান্তে ফেরি ছাড়ায় অনেকেই মিশ্র প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করে। এ সময় ফেরিতে থাকা বেশ কয়েকজন যাত্রী উত্তেজিত হয়ে ফেরির গ্লাস ভাঙচুর করেন।

জানা গেছে, সম্প্রতি করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি কমাতে ঈদের ছুটিতে কেউ বাড়ি ফিরতে না পারে তার জন্য নিষেধাজ্ঞা দেয় সরকার। একারণে গত দুইদিন ধরে জেলা পুলিশ প্রশাসনের সাথে সমন্বয় করে শুধু মাত্র রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্স ও প্রয়োজনীয় ত্রাণসামগ্রীসহ পচনশীল পণ্যবাহী ট্রাক পারের সিদ্ধান্ত নেয় ঘাট কর্তৃপক্ষ। কিন্তু সে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বুধবার দুপুরে কয়েকটি অ্যাম্বুলেন্সসহ সহস্রাধিক যাত্রী নিয়ে পাটুরিয়া ঘাট থেকে কে-টাইপের ঢাকা নামের ফেরি ছেড়ে দেয়। এ সময় দৌলদদিয়া প্রান্তে ফেরি ভিড়ার আগেই রাজবাড়ীর পুলিশ প্রশাসন পুনরায় যাত্রী বোঝাই ফেরিটি পাটুরিয়া ঘাটের দিকে ফিরিয়ে দেয়। এতে ফেরির যাত্রীরা উত্তেজিত হয়ে যান। পরে মানিকগঞ্জ পুলিশ সুপার রিফাত রহমান শামীম খবর পেয়ে ঘাটে এসে কয়েকটি গাড়ি ভাড়া করে যাত্রীদের ঢাকার দিকে পাঠিয়ে দেন। স্থানীয় প্রশাসনের সাথে সমন্বয়হীনতা না করে ঘাট কর্তৃপক্ষের এমন হঠকারিতা সিদ্ধান্তের জন্য উপস্থিত সবাই বিস্মিত হন।

রাজবাড়ী পুলিশ প্রশাসনের বরাত দিয়ে জানান, করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে কয়েক দিন ধরে কঠোর অবস্থানে রয়েছে। নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ঈদে ঘরমুখো যাত্রীরা আসলেই তাদের ফিরিয়ে দেওয়া হচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় সহস্রাধিক যাত্রী বোঝাই ওই ফেরিটিকে পাটুরিয়া ঘাটে পুনরায় ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

ফেরিতে থাকা কয়েকজন যাত্রী ক্ষোভের সাথে জানান, আমাদেরকে যদি ঘুরিয়েই দেওয়া হবে তাহলে ফেরিতে উঠালো কেন। আবার আমাদের কাছ থেকে নিধারিত ভাড়া থেকে বেশি ভাড়া নিয়ে টিটিক কেন দিল। এখন এরকম দুর্য়োগপূর্ণ আবহাওয়ার ভেতর আমাদের ফিরে যেতে হবে। ঢাকার বাহিরে যাবার নিষেধাজ্ঞার থাকার পর কেন আসলেন জানতে চাইলে তারা আরো বলেন, অফিস নাই। সাথে থাকা টাকা পয়সা ফুড়িয়ে গেছে এ কারণে ছুটিতে গ্রামের বাড়ি যাচ্ছি।

মানিকগঞ্জ পুলিশ সুপার রিফাত রহমান শামীম জানান, গত দুই দিন আগে সিদ্ধান্ত হয়েছে শুধু মাত্র জরুরি পচনশীল পণ্যবাহী ট্রাক ও রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্স পার করা হবে। কিন্তু আজকের যাত্রী পারের বিষয়টি ঘাট কর্তৃপক্ষ পুলিশকে অবগত করেনি। আমরা জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে ঢাকা-আরিচা মহসড়কের গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে চেকপোস্ট বসিয়েছি। যাতে করে কোনো প্রাইভেটকার বা যাত্রী ঘাটের দিকে না আসতে পারে। এর মধ্যে কিছু লোকজন আঞ্চলিক সড়ক দিয়ে ঘাটে এসে পৌঁছলে গত দুই দিনে ৫/৬টি গাড়ি করে তাদের পুনরায় ঢাকার দিকে ফিরিয়ে দিয়েছি। এ ছাড়া আরিচা-কাজীর হাট রুটে অবধ্য নৌকা দিয়ে যাত্রী পারের অপরাধে ১০টি ট্রলার ডুবিয়ে দেওয়া হয়েছে।

বিইডব্লিউটিসির আরিচা কার্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত ডিজিএম মো. জিল্লুর রহমান জানান, ফেরিতে কয়েটি অ্যাম্বুলেন্স পার করা হচ্ছিল। এ সময় শত শত যাত্রী হুমড়ি খেয়ে ফেরিতে উঠে পরে। এ কারণে তাদের আটকানো সম্ভব হয়নি। এ ছাড়া বিষয়টি মানবিক উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, ওই সময় আমার কিছু করার ছিল না। আমি যাত্রীদের ফেরি থেকে নামানোর চেষ্টা করেছি কিন্তু তারা নামেনি। স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনকে অবগত করেছিলেন কিনা জানতে চাইলে তিনি কোনো উত্তর না দিয়ে চুপ থাকেন।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন