আম্পানের আঘাতে খুলনায় ব্যাপক ক্ষতি; বহু ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত

  

পিএনএস ডেস্ক : প্রবল ঘূর্ণিঝড় 'আম্পান'-এর প্রভাবে খুলনার কয়রা উপজেলার তিনটি স্থানে বেড়িবাঁধ ভেঙে গেছে। কয়রা ও দাকোপ উপজেলার অসংখ্য স্থানে বেড়িবাঁধ উপচে জোয়ারের পানি লোকালয়ে ঢুকে পড়েছে। ভেঙে গেছে কাঁচা ঘরবাড়ি ও গাছপালা।

স্থানীয় মানুষের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বিকেল ছয়টা থেকে ঝড়োহাওয়া বইতে শুরু করে। এরপর সন্ধ্যা সাতটা থেকে শুরু হয় ঝড়, যা রাত সাড়ে ৯টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত অব্যাহত ছিল। তবে খুলনায় এখনো পর্যন্ত কোনো প্রাণহানির খবর পাওয়া যায়নি।

খুলনা-৬ আসনের সদস্য শেখ মো. আক্তারুজ্জামান বাবু জানান, তিনি এখন কয়রা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে কন্ট্রোল রুমে অবস্থান করছেন। ইতিমধ্যে দক্ষিণ বেদকাশী ইউনিয়নের গোলখালি এবং সদর ইউনিয়নের হরিণখোলা এলাকায় বেড়িবাঁধ ভেঙে গ্রামে পানি ঢোকার কথা শুনেছেন। এছাড়া ঝড়ে অসংখ্য কাঁচা ঘরবাড়ি ও গাছপালা উপড়ে পড়েছে। অনেক গাছের ডাল ভেঙে গেছে।

স্থানীয় লোকজন জানান, কয়রা উপজেলার আংটিহারা এলাকায় বেড়িবাঁধ ভেঙে লোকালয়ে পানি ঢুকছে। দাকোপ উপজেলার কালাবগি, গুনারী ও সুতারখালীসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় বেড়িবাঁধ উপচে জোয়ারের পানিলোকালয়ে ঢুকছে।

দাকোপ উপজেলার চালনা এলাকার আজমীর হোসেন জানান, বুধবার দুপুর ১২টায় নদীতে জোয়ার শুরু হয়। ঝড়োবাতাসের কারণে এরপর আর নদীর পানি কমেনি। আবার রাত আটটা থেকে জোয়ার শুরু হয়। রাত দশটায় পূর্ণজোয়ার ছিল নদীতে। সে কারণে বেড়িবাধ ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

স্থানীয় লোকজন জানান, মঙ্গলবার রাতের অধিকাংশ সময় বিদ্যুৎ ছিল না। বুধবার দুপুর ২টা থেকে কয়রা ও দাকোপ উপজেলা বিদ্যুৎহীন রয়েছে।

দাকোপ ও কয়রা উপজেলার একাধিক বয়স্ক ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এর আগে যেসব ঝড় হয়েছে তা খুব অল্প সময়ের মধ্যে এসব এলাকা অতিক্রম করেছে। কিন্তু এবারের ঝড় অনেক দীর্ঘ সময় ধরে বয়ে যাচ্ছে।

পিএনএস/ এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন