পুলিশের সাথে একি করল লাব্বাইক বাস চালক!

  

পিএনএস ডেস্ক : বেলা একটার কিছু পরে সার্ক ফোয়ারা মোড় থেকে একটু সামনে আয়াত ও লাব্বাইক পরিবহনের দুটি বাস ফার্মগেটের দিকে যাচ্ছিল। ডিএমপির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মসিউর রহমান বাস দুটিকে থামার নির্দেশ দেন। কিন্তু দুটিই পালানোর চেষ্টা করে। প্রজাপতি গুহার সামনে আয়াত ধরা পড়ে। তবে লাব্বাইক ছুটতে থাকে।

পাশ থেকে পুলিশ সদস্য লাব্বাইকের দরজার হ্যান্ডেল ধরে বসলেও চালক থামেননি। বাস চলছে আর পুলিশ সদস্য বাসের সঙ্গে তাল মিলিয়ে দৌড়াচ্ছেন। তখন পুলিশের পাশ দিয়ে যাচ্ছে আরেকটি বাস। ওই সময় বাসের হ্যান্ডেল থেকে হাত ছিটকে পড়লে ঘটতে পারত বড় দুর্ঘটনা। তবে বাসটি পালাতে পারলেও ওই পুলিশ সদস্য লাব্বাইকের সহকারীকে ধরতে সক্ষম হন।

আজ বৃহস্পতিবার বেলা একটার দিকে কারওয়ান বাজার ও সার্ক ফোয়ারা মোড়ের পুলিশ বক্সের সামনে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসে। বেপরোয়া গাড়ি চলাচল ও রাস্তায় সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মসিউর রহমানের নেতৃত্বে এ আদালত পরিচালনা করা হয়। এ সময় চারজনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

আয়াত পরিবহনের চালক রুহুল আমিনকে আটক করা হয়। তিনি অবশ্য বারবার বোঝানোর চেষ্টা করছিলেন যে তিনি নির্দেশ বুঝতে পারেননি। তাঁকে এক মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়। অন্যদিকে লাব্বাইকের বাসটি না থামার কারণে ওই পুলিশ সদস্য একপর্যায়ে হাত ছেড়ে দেন। এতে তিনি হাতে ব্যথা পান। পরে বাসটি কিছু দূর গিয়ে থেমে সহকারীকে নামিয়ে ছুট দেয়। পরে বাসের সহকারী মো. স্বপনকে দেওয়া হয় তিন মাসের কারাদণ্ড।

এরপরে নিউ ভিশন বাসকে থামার নির্দেশ দিলে সেটাও থামেনি। পরে একজন সার্জেন্ট মোটরসাইকেলে করে বাসটির পেছনে ছোটেন। ফার্মগেটে গিয়ে সেটা ধরা হয়। আর চালকসহ আরও একজনকে এক মাস করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

অভিযানের শুরুতে কারওয়ান বাজারের পাতালপথ প্রজাপতি গুহায় উচ্ছেদ অভিযান চালিয়ে ভিক্ষুক ও ভবঘুরেদের তুলে দেওয়া হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মসিউর রহমান বলেন, ডিএমপির ট্রাফিকের চারটি বিভাগই মাসে চার দিন করে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে। সম্প্রতি রাজীবের ঘটনাসহ বেশ কয়েকটি দুর্ঘটনা ঘটে। এসব কিছু বিবেচনায় নিয়েই আজকের এ অভিযান। তিনি বলেন, রাজধানীতে মানুষ ও গাড়ি বাড়ছে কিন্তু রাস্তা বাড়ছে না। জরিমানার উদ্দেশ্যে নয়, মানুষকে সচেতন করার জন্য এ অভিযান।

প্রজাপতি গুহায় পরিচালিত উচ্ছেদ নিয়ে তিনি বলেন, ‘এ কাজ সিটি করপোরেশনের। আন্ডারপাসের পরিবেশ ভালো হলে মানুষের যত্রতত্র দিয়ে রাস্তা পারাপার বন্ধ হবে।’

সার্ক ফোয়ারা মোড়ে বেশ বড় করে সাইনবোর্ড আছে বাস না থামানোর জন্য। কিন্তু একদিকে অভিযান চলছে, অন্যদিকে ওই সাইনবোর্ডের সামনে বাস থামছে, যাত্রী উঠছে। এ ব্যাপারে সেখানে দায়িত্বরত ট্রাফিক ইন্সপেক্টর খাদেমুল ইসলাম বলেন, এখান থেকে সম্প্রতি ২১টি বাস ডাম্পিং করা হয়েছে। কিন্তু এ জায়গায় সুনির্দিষ্ট কোনো স্টপেজ নেই। মানুষের দিকটাও বিবেচনা করা হয়। তবে তাঁরা চেষ্টা করেন শৃঙ্খলা বজায় রাখতে।

পিএনএস/জে এ /মোহন

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech