...দালালি করার তো দরকার নেই: মান্না

  

পিএনএস ডেস্ক : নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, যদি মনে হয়, ভয়ের কারণে কথা বলতে পারছেন না, লিখতে পারছেন না, চুপ করে থাকেন, দালালি করার তো দরকার নেই। সাহিত্য ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য সাক্ষী হয়ে থাকবে।

রাজধানীতে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে শুক্রবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে নিজের লেখা দ্বিতীয় উপন্যাস ‘আটকে পড়া শব্দরাজি’ নিয়ে আলোচনা অনুষ্ঠানে মাহমুদুর রহমান মান্না এসব কথা বলেন। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে প্রকাশিত হয় মাহমুদুর রহমান মান্নার দ্বিতীয় উপন্যাস ‘আটকে পড়া শব্দরাজি’। ১৮৪ পৃষ্ঠার এই বইটি প্রকাশ করেছে অনন্যা প্রকাশনী।

মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ‘এই বইটাতে আমি এনেছি বাংলাদেশের ছাত্র রাজনীতির অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যৎ।’

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক রাষ্ট্রপতি এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘অনেক রাজনীতিবিদ আছেন লিখতে পারেন অথচ লেখেন না। যাঁরা লেখেন তাঁদের সংখ্যাটা খুব কম। তবে আমি মনে করি, রাজনীতিবিদদের লেখা উচিত। কারণ তাঁরা মানুষের অনেক কাছাকাছি যেতে পারেন। রাজনীতিবিদদের মানুষের সঙ্গে দেখার সুযোগ হয়, মেশার সুযোগ হয়, তাঁরা দেখেন ঠিকই, কিন্তু লেখেন না।’

অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক আসিফ নজরুল বলেন, ‘দেশে যাঁরা বাক্‌স্বাধীনতা, প্রগতিশীলতার কথা বলেন, মুক্তচিন্তার কথা বলেন, লক্ষ করে দেখবেন কেউ কিন্তু এর প্রতিবাদ করেননি। আমার মনে হয়, পৃথিবীর ইতিহাসে এটা একটা বিরল ঘটনা, যে আদালত বলে দেয় যে উপন্যাসটা ওইভাবে লেখেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘যারা সুপারস্টার লেখক আছেন, বিভিন্ন আলোচনায় যান, আমাদের সময়ে যাঁরা রাজনৈতিক উপন্যাস লেখেন, তাঁদের মধ্যে একটা প্রবণতা প্রচণ্ড কাজ করে। মনে হয় যেন তাঁরা চিন্তা করেন, বইটা লিখে একটা প্রগতিশীল ব্যাচ পেতে চাই, কোনো এক নেত্রীর মন জয় করতে চাই। কোনো একটা পুরস্কার পেতে চাই। এ ধরনের প্রবণতা তাঁদের কাজ করে, সততা থাকে না। রাজনৈতিক হাওয়া বুঝে উপন্যাস লেখার প্রবণতা চলে আসছে।’

আলোচনায় কবি আবদুল হাই শিকদার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক গওহার নঈম ওয়ারা, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক এ কে এম শাহনেওয়াজ, অনন্যার প্রকাশনীর প্রকাশক মনিরুল হক প্রমুখ বক্তব্য দেন।

পিএনএস/জে এ মোহন

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech