জাপানে মার্কিন ঘাঁটি লকডাউন

  

পিএনএস ডেস্ক : জাপানের ওকিনায়ায় দুটি মার্কিন সামুদ্রিক ঘাঁটি লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। কয়েক ডজন লোক করোনভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার পর এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। জাপানের স্থানীয় কর্মকর্তারা আমেরিকান সেনাবাহিনীর করোনা নিয়ন্ত্রণ চেষ্টার সমালোচনা করার প্রেক্ষাপটে এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

দক্ষিণ জাপানের দ্বীপে কয়েক হাজার মার্কিন সেনা মোতায়েন রয়েছে, যেখানে প্রায় ১৫০ জন বেসামরিক কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়েছে।

সোমবার জাপানের সরকারি মুখপাত্র ইয়োশিহিদ সুগা বলেছেন, মার্কিন বাহিনীর মধ্যে সাম্প্রতিক দিনগুলোতে ৬২ জন শনাক্ত হয়েছে। এদের বেশিরভাগ মার্কিন মেরিন কোর এয়ার স্টেশন ফুটেঞ্জা ও ক্যাম্প হানসেনে কর্মরত রয়েছেন।

সংক্রমণের বৃদ্ধির বিষয়টি ওকিনাওয়ার গভর্নর ডেনি তামাকিসহ স্থানীয় কর্মকর্তাদের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি করেছে।

সংক্রমণ বাড়ার প্রতিক্রিয়া হিসেবে, রোববার থেকে প্রায় সমস্ত অফ-বেস ভ্রমণ বন্ধ করা হয়েছে। মেরিন কোর ইন্সটলমেন্ট প্যাসিফিক ফেসবুক পেজে এই বিষয়ে গাইডলাইন পোস্ট করা হয়েছে। মেরিন কর্পস সার্ভিসের সদস্য, তাদের পোষ্য ও বেসামরিক ব্যক্তিরা চিকিত্সকের অনুমতিতে ঘাঁটিতে অবাধে চলাচল করতে পারবে।

পরবর্তী নির্দেশনা বিজ্ঞপ্তি না দেয়া পর্যন্ত কর্মীদের ঘাঁটিতে প্রবেশ ও কার্যকর্ম সীমাবদ্ধ রাখার আদেশ রয়েছে বলে ফোর্স জানিয়েছে।

তবে কোন ঘাঁটি আক্রান্ত হয়েছে তা নির্দিষ্ট করে জানানো হয়নি। মার্কিন সামরিক কর্মকর্তারা তাত্ক্ষণিকভাবে এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য জানায়নি।

ওকিনাওয়ার এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, দফতরে জানিয়ে দেয়া হয়েছিল আদেশটি কেবল ফুটেমা ও ক্যাম্প হানসেনের জন্যই প্রযোজ্য। তিনি আরো বলেন, ‘নিরাপত্তাজনিত কারণে’ ঘাঁটিতে সেনাবাহিনীর সংখ্যা প্রকাশ করা হবে না।

শনিবার এক বক্তব্যে তামাকি বলেন, ঘাঁটিতে আক্রান্তের সংখ্যা শুনে তিনি হতবাক হয়েছেন।

তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আমার সংক্রমণের বিরুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের যথেষ্ট ব্যবস্থা গ্রহণ সম্পর্কে সন্দেহ রয়েছে।

তামাকী বলেন, তিনি মার্কিন বাহিনীকে দেশে প্রবেশকারী সেনাদের আগমন বন্ধ করতে এবং সংক্রমণ-বিরোধী ব্যবস্থা বাড়ানোর জন্য বলেছি। এটি স্পষ্ট নয় কোন ঘাঁটি থেকে সংক্রমণ উদ্ভব হয়েছে।

ওকিনাওয়ার একজন সরকারি কর্মকর্তা বলেন, এই অঞ্চলটি কেন্দ্রীয় সরকার ও মার্কিন বাহিনীকে সেনাবাহিনীর মধ্যে আক্রান্তের সংখ্যা দ্রুত জানাতে বলা হয়েছে।

আগত সেনাবাহিনী ও তাদের পরিবারকে আলাদা থাকতে বলা হয়েছে।
সূত্র : ডেইলি সাবাহ

পিএনএস/এসআইআর


 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন