নির্বাচনের আগেই নাব্য সংকটে কেনা হচ্ছে ৩৫ ড্রেজার

  

পিএনএস ডেস্ক: নাব্য সংকটে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে দেশের অধিকাংশ নৌ-রুট। এসব নৌ-রুট উদ্ধারে প্রয়োজন নাব্য সংকট দূর করা। এ নিয়ে অনেক আগে থেকে আলাপ-আলোচনা চললেও প্রয়োজনীয় ড্রেজারের সংকট ছিল। এবার নাব্য সংকটে ড্রেজার কেনার পরিকল্পনা নেয়া হচ্ছে। নির্বাচনের আগেই কেনা হবে ৩৫টি নতুন ড্রেজার। এ জন্য বরাদ্দ দেয়া হবে সাড়ে চার হাজার কোটি টাকা। আজ (মঙ্গলবার) এ সংক্রান্ত একটি প্রকল্প অনুমোদনের জন্য জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় তোলা হতে পারে।

পরিকল্পনা কমিশন সূত্রে জানা গেছে, ‘৩৫টি ড্রেজার ও সহায়ক জলযানসহ আনুষঙ্গিক সরঞ্জামাদি সংগ্রহ এবং প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নির্মাণ’ সংক্রান্ত একটি প্রকল্প একনেকে অনুমোদনের জন্য উপস্থাপন করা হতে পারে। অনুমোদন পেলে ২০২৩ সালের জুনের মধ্যে ড্রেজারগুলো বহরে যোগ করবে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের অধীন বিআইডব্লিউটিএ। প্রকল্পটির মাধ্যমে আট হাজার কিলোমিটার নৌপথে নাব্য উন্নয়নের মাধ্যমে নিরাপদ নৌপরিবহন নেটওয়ার্ক গড়ে তোলা হবে। এ জন্য বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে চার হাজার ৪৮৯ কোটি টাকা। এই অর্থের পুরোটাই সরকারি কোষাগার থেকে ব্যয় করা হবে।

সূত্র জানায়, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) ও বিআইডব্লিউটিএ দেশের নদীগুলোর ড্রেজিং কাজ পরিচালনা করে। এর মধ্যে বিআইডব্লিউটিএ ১৭৮টি নদীতে, আর পাউবো ড্রেজিং করে বাকি নদীগুলোতে। তকে এগুলো চাহিদার তুলনায় একেবারে অপ্রতুল। কেননা বিআইডব্লিউটিএর কাছে ৩৫টি ড্রেজার রয়েছে। যেগুলো অনেক ছোট ও পুরাতন। ড্রেজিংয়ের সক্ষমতাও কম।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দেশের বিভিন্ন নদীর তলদেশের মাটির গঠন ও উপাদানের পার্থক্য রয়েছে। এ কারণে আলাদা আলাদা ড্রেজার প্রয়োজন, যা সংস্থাটির কাছে নেই। এ জন্য প্রস্তাবিত প্রকল্পের মাধ্যমে প্রায় পাঁচ ধরনের ড্রেজার আনার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এগুলোর বর্তমান ড্রেজারের দ্বিগুণ ক্ষমতার বড় আকারের হবে।

প্রকল্পের মাধ্যমে প্রস্তাবিত মূল কাজ হবে ৩৫টি ড্রেজার সংগ্রহ করা। এর মধ্যে রয়েছে প্রয়োজনীয় যন্ত্রাংশসহ ২৮ ইঞ্চি ২টি, ২৪ ইঞ্চি ৮টি, ২০ ইঞ্চি ৮টি, ১৮ ইঞ্চি ৯টি ও ১২ ইঞ্চি ২টি সাকশন ড্রেজার, ২টি ট্রেইলিং সাকশন হোপার ড্রেজার, ২টি ওয়াটার ইনজেকশন/জেটিং ড্রেজার এবং ২টি সেলফ প্রপেল্ড পন্টুন মউনটেড গ্রাব ড্রেজার।

একইসঙ্গে ৩৫টি কাটার সাকশন ড্রেজার ক্রেনবোট, অফিসার ও ক্রু হাউজবোট ৩৫টি, পাইপ কেরিং ডার্ম্ব বার্জ ১৫টি, বোলার্ড পুলের টাগবোট ১৭টি সংগ্রহ করা হবে। এছাড়া ৫টি করে ওয়েল ও ওয়াটার বার্জ, ১০টি সার্ভে ওয়ার্কবোট, ২টি ইন্সপেকশন ভেসেল, ১টি কেবিন ক্রুজার সংগ্রহ, ৮৬ হাজার বর্গমিটার অফিসার ও স্টাফ কোয়ার্টার এবং ডরমিটরি নির্মাণ করা হবে।

পিএনএস/হাফিজুল ইসলাম

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech