ফেসবুকে নিজ দলের সমালোচনা, বিজয়নগর আ.লীগ ও ছাত্রলীগের ২ নেতার গাঢাকা

  

পিএনএস ডেস্ক : ‘আওয়ামী লীগ এখন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গেছে। বাঁচাও বাঁচাও বলে চিৎকার করছেন! প্লিজ দুষ্ট লোকের মিষ্টি কথা থেকে বের হয়ে আসুন!’- সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিজের দল সম্পর্কে এমন মন্তব্য করে ফেসে গেছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক জাহাঙ্গীর মৃধা। অন্য আরেকটি পোষ্টে এই নেতা বলেন-‘চীনে করোনা ভাইরাস হওয়ার কিছুদিন পর প্রধানমন্ত্রী মসজিদগুলো মুসলমানদের জন্যে খুলে দিল! আর সৌদি আরব,কুয়েত ও বাংলাদেশ মসজিদে নামাজ পড়া নিষিদ্ধ করে দিল।

করোনা পরিস্থিতিতে মাঠে নিয়োজিত একটি বিশেষ বাহিনীর কর্মকান্ড নিয়ে সমালোচনা করে ফেসবুকে পোষ্ট দিয়ে ঘরছাড়া উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি এসএম মাহবুব হোসেনও । এরআগে তাদেরকে আটক করতে একাধিকবার অভিযান চালায় পুলিশ। তবে তারা দু-জন দলের নেতাদের চাপে ক্ষমা চেয়ে আবার পোষ্ট দিয়েছেন।

মার্চের শেষ সপ্তাহে এসব পোষ্ট দেয়ার পর দল থেকেও তাদের বহিস্কারের জন্যে নির্দেশ দেন জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপি। তিনি জেলার সাধারন সম্পাদক এবং জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাধারন সম্পাদককে এই নির্দেশ দেন।

যদিও এখন পর্যন্ত সেই পদক্ষেপ নেননি জেলার এই দায়িত্বশীলরা। বিজয়নগর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এডভোকেট তানভীর ভূইয়া জানান- তাদের পোষ্ট জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি র আ ম উবায়দুল মোক্তাদির চৌধুরী এমপি’র নজরে আসার পর তিনি তাদের দল থেকে বহিষ্কার এবং আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্যে জেলা আওয়ামী লীগ সাধারন সম্পাদককে নির্দেশ দেন। সংসদ সদস্যের নির্দেশে পুলিশ তাদের আটক করতেও অভিযান চালায়।

তবে জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি জহিরুল ইসলাম ভূইয়া জানান-তাদেরকে সতর্ক করা হয়েছে। একটা ভুল করে ফেলেছে। সেজন্যে ক্ষমা চেয়েছে। এরপর তাদেরকে জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক ক্ষমা করে দিয়েছেন। জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আল মামুন সরকার বলেছেন- করোনা পরিস্থিতির পর তাদের বিরুদ্ধে দলীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে। ক্ষমা চেয়ে যে তারা পাল্টা পোষ্ট দিয়েছেন সেটি জানান তিনি।

পিএনএস/ জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন