স্বাস্থ্যকথা

প্রেশার নর্ম্যাল রাখতে 'সফেদা'!

  

পিএনএস ডেস্ক : সফেদা আমরা সকলেই চিনি। অত্যন্ত সুস্বাদু ও পুষ্টিকর একটি ফল। স্বাদের দিক দিয়ে এটি আম কিংবা কলার মতই পরিচিত। সারাবছরই বাজারে পাওয়া যায়। দামেও সস্তা। এছাড়াও শখ করে অনেকেই এই গাছ বাড়ির বাগানে লাগান।কিন্তু আমরা অনেকেই এই অতি সুস্বাদু ফলটির পুষ্টিগুণ জানি না। সফেদায় আছে অনেক ভিটামিন, মিনারেল, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা আমাদের দেহের জন্য অত্যন্ত কার্যকরী। এছাড়াও এর স্বাদ আর গন্ধ তো রয়েইছে।সবেদার যে যে উপকারিতা আছে...১. সফেদাতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ এবং সি থাকে। নিয়মিত

রক্তচাপের ঔষধ বাদ দিলে যা হয়

  

পিএনএস ডেস্ক : কিছু ঔষধ সারাজীবন ধরে গ্রহণ করতে হয়, যা বেশিরভাগ মানুষই অপছন্দ করে। সারা জীবন ধরে ঔষধ সেবন করতে হলে ভালো লাগার কথাও না। কিন্তু আপনার শরীরের জন্য এটা প্রয়োজনীয় হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, উচ্চ রক্তচাপের ঔষধ নিয়মিত সেবন করাই এটি নিয়ন্ত্রণে রাখার এবং নিরাময়ের উপায়। যদিও চিকিৎসক প্রথমেই আপনাকে এই ঔষধ সেবন করার নির্দেশনা দেবেন না। মূলত উচ্চ রক্তচাপের ঔষধ দেয়ার ক্ষেত্রে চিকিৎসক অনেক কিছু বিবেচনা করেন।একজন ব্যক্তির রক্তচাপ কখনোই স্থিতিশীল থাকেনা, এমনকি সারা দিনেও। মনে রাখবেন

নাইট শিফটে যারা কাজ করেন,তারা মেনে চলুন ৫টি নিয়ম!

  

পিএনএস ডেস্ক : বেসরকারি যে কোনও অফিসে নাইট শিফট প্রায় বাধ্যতামূলক৷ সে ছেলে হোক বা মেয়ে, নাইট শিফটে কাজ করতে হয় আজকাল প্রায় সবাইকেই৷ আর স্বাভাবিকভাবেই রাতের ঘুম কাটিয়ে কাজ করে দিনের ঘুম সেই শূণ্যতা পূরণ করতে পারে না৷ ফলে তৈরি হয় নানা শারীরিক সমস্যা৷ তবে একটু সচেতন থাকলেই সেই সমস্যা বা অসুবিধা গুলো কাটিয়ে উঠতে পারবেন৷ নাইট শিফট হয়তো এড়াতে পারবেন না, কিন্তু এর জন্য শরীরের অসুস্থতাকে এড়ানো যায় খুব সহজেই৷মাত্র পাঁচটা নিয়ম মানলেই আপনার শরীর সামলে নেবে দিনের পর দিন নাইট শিফটের

এইডস প্রতিরোধ করবে কলা!

  

পিএনএস ডেস্ক : কলার মধ্যে রয়েছে এমন এক পদার্থ যা মানব দেহে রোগ সংক্রামক ও মারণাত্মক ভাইরাসের সঙ্গে মোকাবিলা করতে সাহায্য করে। কলার মধ্যে যে পদার্থ রয়েছে তা এইডস, হেপাটাইটিস সি এবং ইনফ্লুয়েঞ্জার মত মারাত্মক ব্যাধির ঔষধ হিসেবেও কাজ করে।গবেষকদের দাবি কলার মধ্যে যে প্রোটিন রয়েছে তার নাম ব্যানানা ল্যাকটিন। এই ল্যাকটিন মানব শরীরের কোষ গুলির মধ্যে ভাইরাস সংক্রমণকে প্রতিরোধ করতে পারে।গবেষকদের মতে BanLec (ব্যানানা ল্যাকটিন) মানব শরীরে এইডস, হেপাটাইটিস সি এবং ইনফ্লুয়েঞ্জার মত ভাইরাস গুলিকে

যেভাবে বুঝবেন আপনি রক্তশূন্যতায় ভুগছেন?

  

পিএনএস ডেস্ক : আপাত দৃষ্টিতে রক্তশূন্যতাকে খুব বড় কোনো রোগ বলে মনে না হলেও, যে কোনো বড় অসুখের শুরু হতে পারে এই রক্তশূন্যতা থেকেই। পুষ্টিবিদদের মতে, রক্তশূন্যতা বিশ্বের সবেচেয়ে বড় অপুষ্টিজনিত সমস্যা। বিশেষজ্ঞদের মতে, একজন পূর্ণবয়স্ক নড়ি জন্য রক্তে হিমোগ্লোবিন ১২.১ থেকে ১৫.১ গ্রাম/ডেসিলিটার, পুরুষের রক্তে ১৩.৮ থেকে ১৭.২ গ্রাম/ডেসিলিটার, শিশুদের রক্তে ১১ থেকে ১৬ গ্রাম/ডেসিলিটার থাকা স্বাভাবিক। রক্তে হিমোগ্লোবিন এর চেয়ে কমে গেলে তাকে ‘রক্তশূন্যতা’ বলেই ধরে নেন চিকিৎসকরা। আসুন এবার চীনে নেওয়া

গরমে বাড়ছে ডায়রিয়া

  

পিএনএস ডেস্ক: চলছে দেশব্যাপী প্রচণ্ড গরম। বাড়ছে ডায়রিয়া, আমাশয়ের মতো জীবাণু সংক্রমণ। রাজধানী ঢাকার আইসিডিডিআরবি হাসপাতালে তাঁবু টানিয়ে ডায়রিয়ার রোগীর জন্য জায়গা ও বিছানা বাড়ানো হয়েছে। গত কয়েক দিন থেকে এই হাসপাতালে দিনে ৭০০ এর বেশি ডায়রিয়া আক্রান্ত আসছে। সোমবার সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত ৭২১ জন চিকিৎসা নিতে এসেছেন।রোববার রাত ১২টার আগ পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় এই হাসপাতালে ৭৬৮ জন এসেছেন চিকিৎসা নিতে। ডায়রিয়া ছাড়াও এই গরমে হিট স্ট্রোকের ঝুঁকিও বেড়েছে।আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, সামনে আরো কমপক্ষে এক সপ্তাহ

একমাস রোজা রাখলে শরীরে কী প্রভাব ফেলে?

  

পিএনএস ডেস্ক : পবিত্র রমজান মাস আসলে ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা দীর্ঘ একমাস রোজা রাখেন। সূর্যোদোয় হতে সূর্যাস্ত পর্যন্ত পানাহারে বিরত থেকে। আর এসময় সুবহে সাদিক থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত সকল প্রকার পানাহার থেকে বিরত থাকেন রোজাদাররা। এই যে দীর্ঘ সময় ও ধারাবাহিকভাবে ৩০ দিন রোজা রাখা হচ্ছে। এটি আমদের শরীরে কি প্রভাব ফেলে? আসুন সেটা জেনে নেই।প্রথম কয়েকদিন: সবচেয়ে কষ্টকরশেষ বার খাবার খাওয়ার পর আট ঘন্টা পার না হওয়া পর্যন্ত কিন্তু মানুষের শরীরে সেই অর্থে উপোস বা রোজার প্রভাব পড়ে না। আমরা যে

থানকুনি পাতার যত গুণ!

  

পিএনএস ডেস্ক : আমরা অনেকেই থানকুনি পাতা চিনি। গ্রামে যেখানে-সেখানে অযত্নে-অবহেলায় জম্মানো এ গাছের রয়েছে অনেক গুণাগুণ। থানকুনির রসে রয়েছে শরীরের জন্য প্রচুর উপকারী খনিজ ও ভিটামিন জাতীয় পদার্থ। থানকুনি নানা রোগ সারাতে দারুণ কার্যকরী। কোথায় পাওয়া যায়উপকারী এই ভেষজ উদ্ভিদটি সাধারণত স্যাঁতস্যাঁতে পরিবেশেই বেশি জন্মে। তাই পুকুরপাড় বা জলাশয়ের পাশে থানকুনির দেখা মেলে বেশি। গ্রামাঞ্চলে বাড়ির আশেপাশে, রাস্তার পাশে কিংবা ক্ষেতের আইলে ছোট ছোট তারার মতো খাঁজকাটা এই পাতাগুলো দেখতে পাওয়া যায়।

কোন খাবার খেলে রাতে ভালো ঘুম হয়!

  

পিএনএস ডেস্ক : এমন অনেকেই আছেন যাদের রাতে ঘুম আসে না। আজকে রইলো কয়েকটা খাবারের নাম যা খেলে আপনার ঘুম পাবে। রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে এই খাবারগুলো খেলে খুব ভালো ঘুম হবে ঠিকই‚ কিন্তু একই সঙ্গে মনে রাখুন দিনের বেলা বা যখন আপনি ঘুমোতে চাইছেন না তখন কিন্তু এই খাবারগুলো এড়িয়ে চলাই ভালো।মিষ্টি আলু: রাঙা আলুতে বেশি মাত্রায় পটাশিয়াম‚ ম্যাগনেসিয়াম আর ক্যালসিয়াম থাকে। এই তিনটেই শরীরকে রিল্যাক্স করতে সাহায্য করে। তাই রাতে যাদের সহজে ঘুমোতে অসুবিধা হয় শোয়ার অগে বেকড সুইট পট্যাটো খেতে পারেন বা সিদ্ধ করে

সফেদার এতো গুণ!

  

পিএনএস ডেস্ক : আমাদের খুবই পরিচিত ফল সফেদা। ফলটি দেখতে যেমন সুন্দর, খেতেও তেমন সুস্বাদু। শুধু দেখতে ও খেতে নয়, সফেদা গুণেও অনন্য। ১. সফেদায় প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন এ ও সি থাকে। ভিটামিন এ চোখের পক্ষে খুবই ভাল। আর শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে ভিটামিন সি’র জুড়ি মেলা ভার।২. সফেদায় প্রচুর পরিমাণে শর্করা রয়েছে। এটি শরীরকে চাঙ্গা রাখতে সহায়তা করে। ৩. যারা পেটে জ্বালাপোড়া ভাব অনুভব করেন তারা সফেদা খেতে পারেন। কয়েকদিন খেলেই উপকার পাবেন। সফেদা হজমশক্তি বৃদ্ধিতেও কাজ করে। ৪.

Developed by Diligent InfoTech