ইসলাম

নামাজের ওয়াক্তের যে উপকারিতাগুলো চিন্তাও করেননি

  

পিএনএস ডেস্ক: মানুষের দেহ চলমান। সুস্থতার জন্য নড়া-চড়া, হাঁটা-চলা ও ওঠা-বসা দরকার। ৫ ওয়াক্ত সালাতে মসজিদে যাওয়া-আসা করতে হয়। নামাজে ওঠা-বসা করতে হয়। এ সবই উপকারী।৫ ওয়াক্ত সালাতের জন্য ৫টি সময় রয়েছে। এছাড়াও সুন্নত ও নফল নামাজের সময় রয়েছে। এ সময়গুলোর চিকিৎসা বিজ্ঞানগত উপকারিতা রয়েছে।ফজরের সময় ও চিকিৎসা বিজ্ঞানফজরের সময় নামাজ আদায় করলে সারা রাত ঘুমের পর হালকা অনুশীলন হয়ে যায়। এ সময় পাকস্থলী খালি থাকে তাই কঠিন অনুশীলন শরীরের জন্য ক্ষতিকর। এ সময়ে নামাজ আদায় করলে নামাজি অবসাদগ্রস্ততা

যে কাজের বিনিময়ে জান্নাত নিশ্চিত

  

পিএনএস ডেস্ক: মহানবী হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, ‘যে ব্যক্তি আমাকে তার দুই চোয়ালের মধ্যবর্তী জিনিস (জিহ্বা) এবং দুই উরুর মধ্যবর্তী জিনিসের (লজ্জাস্থান) হেফাজতের নিশ্চয়তা দিবে। আমি তার জন্য, জান্নাতের নিশ্চয়তা দেব।’ হাদিসে বর্ণিত এই তাৎপর্যপূর্ণ বক্তব্য বর্তমান প্রেক্ষাপটে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ বর্তমান সমাজের বাস্তবতা হচ্ছে, দুনিয়ার যত গোনাহ, মারামারি, কাটাকাটি, দাঙ্গা-হাঙ্গামা, জেল-জুলুম, খুন-খারাবি, নারী-নির্যাতন, বেহায়াপনা, অশ্লীলতা থেকে শুরু করে যত ধরনের

পশু কিনে এতিমখানায় দিলে কি আকিকা হবে ?? জানুন

  

পিএনএস ডেস্ক:নামাজ, রোজা, হজ, জাকাত, পরিবার, সমাজসহ জীবনঘনিষ্ঠ ইসলামবিষয়ক প্রশ্নোত্তর অনুষ্ঠান ‘আপনার জিজ্ঞাসা’। জয়নুল আবেদীন আজাদের উপস্থাপনায় বেসরকারি একটি টেলিভিশনের জনপ্রিয় এ অনুষ্ঠানে দর্শকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন বিশিষ্ট আলেম ড. মুহাম্মদ সাইফুল্লাহ।প্রশ্ন : আমরা যদি আকিকার পশু কিনে কোনো এতিমখানায় দিয়ে আসি, তাহলে কি আকিকা আদায় হবে?উত্তর : আকিকার পশু জবেহ করে দিতে হবে। আকিকা এবং মানতের পশু যদি কেউ এতিমখানায় দিতে চান, তিনি দিতে পারেন; কিন্তু জবেহ করে দিতে হবে। কারণ,

ইসলামে নারীর মর্যাদা

  

পিএনএস ডেস্ক: মানুষ সৃষ্টির সেরা জীব। মানুষকে আল্লাহ তাআলা নারী-পুরুষে বিভক্ত করে পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন। মানুষের সৃষ্টি সম্পর্কে আল্লাহ তাআলা বলেন-‘হে মানব সম্প্রদায়! তোমরা তোমাদের প্রতিপালককে ভয় কর। যিনি তোমাদের (নারী-পুরুষ) কে একটি প্রাণ থেকে সৃষ্টি করেছেন এবং তা থেকে তার সঙ্গীনি সৃষ্টি করেছেন। যিনি তাদের দু’জন থেকে বহু নর-নারী (পৃথিবীতে) বিস্তার করেছেন। সেই আল্লাহকে ভয় কর, যার নামে তোমরা একে অপরকে যাঞ্চা করে থাক এবং আত্মীয়তার বন্ধন ছিন্ন করাকে ভয় কর। নিশ্চয় আল্লাহ তোমাদের ওপর তীক্ষ্ণ দৃষ্টি

জোড়া কলা খেলে কি জমজ সন্তান হয়, ইসলাম কি বলছে?

  

পিএনএস ডেস্ক: আমাদের সমাজে কিছু প্রচলিত কুসংস্কার রয়েছে যেগুলো অধিকাংশই মানুষের তৈরি করা। কোথাও রওনা দিলে ঝাড়ু, খালি কলসি বা কেউ হাছি দিতে দেখলে অযাত্রা হয়! আসলে ইসলামে এ ধরনের কুসংস্কারের কোনো ভিত্তি নেই।আমাদের আজকের আলোচনা সমাজের প্রচলিত কুসংস্কারগুলোর মধ্যে অন্যতম একটি। আর তা হলো জোড়া কলা খাওয়া। শুধু জোড়া কলা কেন কোনো খাবারেরই জোড়া সন্তান জন্মানোর ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখার কোনো ক্ষমতা নেই।এ প্রসঙ্গে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন পবিত্র কোরআনে পাকে ইরশাদ করেছেন :لِلَّهِ

ইসলামে অবৈধ শারীরিক সম্পর্কের শাস্তি কি ?? জানুন !!

  

পিএনএস ডেস্ক: অবৈধ শারীরিক সম্পর্কের- যে তিনটি শাস্তি দুনিয়াতে হয় তা হচ্ছে, তার চেহারার ঔজ্জ্বল্য বিনষ্ট হয়ে যাবে, তার আয়ুষ্কাল সংকীর্ণ হয়ে যাবে এবং তার দারিদ্রতা চিরস্থায়ী হবে। আল্লাহ তায়ালা বলেন,“তোমরা ব্যভিচারের নিকটবর্তী হয়ো না। এটা অশ্লীল কাজ এবং নিকৃষ্ট আচরণ”। (সূরা বনী ইসরাঈল -৩২)“আর যারা আল্লাহ ব্যতীত অপর কোন ইলাহের ইবাদত করে না, আল্লাহর নিষিদ্ধকৃত প্রাণী যথার্থ কারণ ব্যতীত হত্যা করে না এবং ব্যভিচার করে না। আর যে ব্যক্তি এসব কাজ করে, সে শাস্তি ভোগ করবে। কিয়ামতের দিন

যে দোয়া একবার পাঠ করলে দূর হবে ৭০টি বিপদ !

  

পিএনএস ডেস্ক: হযরত আবু নাঈম ও ইবনে আবি শায়বা রহ. একটি আমলের কথা বর্ণনা করেছেন।তাঁরা বলেন, যে ব্যক্তি নিম্নের দুয়া একবার পাঠ করবে- একশ’ বার নয়, মাত্র একবার- আল্লাহ তায়ালা তার সত্তরটি বিপদ দূর করে দিবেন। আর সর্বনিম্ন বিপদ হল দারিদ্রতা। আর অন্যান্য বিপদগুলো এর চেয়ে অনেক বড় বড়।দোয়াটি হলো:- لاحول ولاقوة الا بالله ولاملجا ولامنجا من الله الا اليهবাংলা উচ্চারণ:- লা হাওলা ওয়া লা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহি ওয়ালা মালজাআ ওয়ালা মানজাআ মিনাল্লাহি ইল্লাহ ইলাইহি।দোয়াটি মুখস্থ থাকলে তো ভালো। না

আল্লাহ পাক কোন ধরণের মানুষকে অপছন্দ করেন?

  

পিএনএস ডেস্ক: আল্লাহ ক্ষমাশীল। অশেষ দয়ালু। কিন্তু কিছু বিষয় আল্লাহ-তায়ালা পছন্দ করেন না। আর যে কাজ গুলো আল্লাহ পাক পছন্দ করেন না, সেই কাজ যে বা যারা করেন আল্লাহ তাদেরকেও পছন্দ করেন না। এ সম্মন্ধে কুরআন হাদীসের আলোকে আলোচনা করা হলো আল্লাহ পাক কোন ধরণের মানুষকে অপছন্দ করেন?প্রতিটি বান্দায় সৃষ্টিকর্তার তৈরি। নিজের তৈরি কোনো কিছু তখনই অপছন্দ হয়। যখন তা মনের মত হয় না। আল্লাহ অশেষ ক্ষমাশীল, দয়ালু হওয়া শর্তেও কিছু জিনিসে বিধি নিষেধ আরোপ করে দিয়েছেন। আর প্রত্যেকের উচিত সেই বিধি নিষেধ মেনে

যে ঘরে স্বামী ও স্ত্রী এক সাথে তাহাজ্জুত এর নামায পড়বে, সে ঘরে..

  

পিএনএস ডেস্ক:যে ঘরে স্বামী ও স্ত্রী এক সাথে তাহাজ্জুত এর নামায পড়বে, সে ঘরে জীবনে কোনো দিন অশান্তি হবেনা।১) তাহাজ্জুদে উঠে দোয়ারাসূলুল্লাহ (সঃ) বলেন, ‘যখন তোমাদের কেউ রাত্রে জাগ্রত হয় ও নিম্নের দোআ পাঠ করে এবং আল্লাহর নিকট প্রার্থনা করে, তা কবুল করা হয়। আর যদি সে ওযূ করে এবং ছালাত আদায় করে, সেই ছালাত কবুল করা হয়’।উচ্চারণ : লা ইলা-হা ইল্লাল্লা-হু ওয়াহ্দাহু লা শারীকা লাহু; লাহুল মুলকু ওয়ালাহুল হামদু ওয়াহুয়া ‘আলা কুল্লি শাইয়িন ক্বাদীর। সুবহা-নাল্লা-হি ওয়াল হামদু লিল্লা-হি ওয়ালা

নারীদের চুলে সোনালি রং করা কি ইসলামের দৃষ্টিতে বৈধ?

  

পিএনএস ডেস্ক: নারীরা চুলের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে অনেক সময় কিংবা প্রতিনিয়ত রং করেন। সোনালী,বাদামী, লালচে প্রভৃতি রং নিজের চুলে ধারণ করার ক্ষেত্রে অনেক মুসলিম নারী দ্বিধাগ্রস্ত থাকেন। মনে প্রশ্ন জাগে নারীদের চুলে সোনালি রং করা কি ইসলামের দৃষ্টিতে বৈধ?এমন প্রশ্নে মাওলানা উমায়ের কোব্বাদী নকশবন্দী হাদিসের উদ্ধৃতি দিয়ে জানান, নারীদের চুল কালো কলপ ব্যবহার করা বৈধ নয়।এছাড়া স্বামীর দৃষ্টি আকর্ষণের উদ্দেশ্যে এবং পরপুরুষকে দেখানো উদ্দেশ্য না হলে নারীরা চুল বাদামী,সোনালী,লালচে প্রভৃতির কলপ দিয়ে

Developed by Diligent InfoTech