জেনে নিন লাইলাতুল কদরের রাতের মর্যাদা-গুরুত্ব ও তাৎপর্য - ইসলাম - Premier News Syndicate Limited (PNS)

জেনে নিন লাইলাতুল কদরের রাতের মর্যাদা-গুরুত্ব ও তাৎপর্য

  

পিএনএস ডেস্ক : রমজানের শেষ দশকের প্রতিটি মুহূর্তই অত্যন্ত দামি। তার মধ্যেও আবার সবচেয়ে বেশি দামি হলো লাইলাতুল কদর। হাজার মাসের চেয়ে শ্রেষ্ঠ রাত। এক কথায় বছরের শ্রেষ্ঠ রাত। এ রাতে মর্যাদা ও বৈশিষ্ট্য বর্ণনা করে আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কোরআনে ‘কদর’ নামে স্বতন্ত্র একখানা সুরা নাজিল করেছেন। ফলে এ রাত গুরুত্ব ও তাৎপর্যের দিক থেকে বছরের অন্যান্য রাতের চেয়ে শ্রেষ্ঠত্ব লাভ করেছে। বছরের বারো মাসের মধ্যে যেমন শ্রেষ্ঠ মাস, তেমনি রমজানের একটি রাত ‘লাইলাতুল কদর’ রমজানের অন্যান্য রাতের চেয়ে মর্যাদাপূর্ণ।

সুরা কদরে বর্ণিত লাইলাতুল কদরের বৈশিষ্ট্যগুলো হলো : ১. এ রাতে আল-কুরআনুল কারীম অবর্তীর্ণ হয়েছে। ২. এ রাত হাজার মাস অপেক্ষা শ্রেষ্ঠ। ৩. এ রাতে হযরত জিবরাঈল (আঃ) এক দল ফেরেশতাসহ জমিনে অবতরন করেন। তারা ওইসব লোকদের জন্য দোয়া করতে থাকেন, যারা রাতজেগে আল্লাহর ইবাদতে মশগুল থাকেন। ৪. এ রাতটি ভাগ্য রজনী।

লাইলাতুল কদর কোরআন নাজিলের রাত। কোরআন নাজিলের কারণেই এ রাতের মর্যাদা এত বেশি। যেমন রমজানে কোরআন নাজিল হওয়ায় রমজানের মর্যাদা অন্যসব মাসের চেয়ে বেশি। লাইলাতুল কদর হাজার মাসের চেয়ে উত্তম। লাইলাতুল কদর নবীজি (সা.) এর উম্মদের জন্য আল্লাহ তায়ালার পক্ষ থেকে এক বিশেষ করুণা। হজরত আনাস ইবনে মালিক (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, নিশ্চয়ই আল্লাহ তায়ালা আমার উম্মতকে লাইলাতুল কদর দিয়েছেন। যা পূর্বেকার কোনো উম্মতকে দেওয়া হয়নি। (কানযুল উম্মাল : ৮/৫৩৬)।

লইলাতুল কদরের মাধ্যমে কম হায়াত পেয়েও বেশি হায়াত পাওয়া পূর্বেকার উম্মতের চেয়ে বেশি সওয়াবের অধিকারী হবে এ উম্মত। ইমাম মালেক (রহ.) বলেন, রাসুলুল্লাহকে (সা.) পূর্ববর্তী উম্মতদের বয়স দেখানো হয়েছে যতটুকু আল্লাহ তায়ালা কর্তৃক নির্ধারিত ছিল। তখন রাসুলুল্লাহ (সা.) নিজের উম্মতের বয়সকে কম মনে করলেন।

তিনি ভাবলেন, আমার উম্মত এই অল্প সময়ে পূর্বেকার উম্মতদের মতো আমল করতে পারবে না। তখনই আল্লাহ তায়ালা নবীজি (সা.) প্রতি সুরা কদর নাজিল করলেন। যা হাজার মাসের চেয়ে উত্তম। (মুআত্তা ইমাম মালেক : ২৬০)। হাজার মাস হলো ৮৩ বছর ৪ মাস।

সুতরাং যে ব্যক্তি একটি লাইলাতুর কদর পেল এবং এ রাতে ইবাদত করতে পারল সে অন্য উম্মতদের ৮৩ বছরেরও বেশি সময়ের ইবাদতের চেয়ে বেশি সওয়াব লাভ করল। মুজাহিদ (রহ.) থেকে বর্ণিত, নবীজি (সা.) বনি ইসরাইলের এক আবেদের (ইবাদতকারী) কথা বর্ণনা করলেন। যে সারারাত ইবাদতে লিপ্ত থাকত। সকাল হলেই আল্লাহর পথে জিহাদের জন্য বের হতো। এবাবে এক হাজার মাস ইবাদতে কাটিয়ে দিল। নবীজির এ কথা শুনে মুসলমানরা বিস্মিত হলো।

আল্লাহ তায়ালা সুরা কদর নাজিল করে জানিয়ে দিলেন যে, লাইলাতুল কদরের ইবাদত সওয়াবের দিক থেকে বনি ইসরাইলের ওই ব্যক্তির হাজার মাসের ইবাদতের চেয়েও উত্তম। (তাফসিরে ইবনে কাসির : ১৮/২২২)। এ তো একটি লাইলাতুল কদর প্রাপ্তির সওয়াব। কেউ যদি জীবনে ৫০ বার লাইলাতুল কদর পাওয়ার সৌভাগ্য অর্জন করেন তাহলে তিনি অন্য উম্মতদের ৪ হাজার ১৬৬ বছর ইবাদতের সমান সওয়াব লাভ কববেন।

এ রাতে হজরত জিবরাঈল (আ.) একদল ফেরেশতাসহ জমিনে নেমে আসেন। নবীজি (সা.) বলেন, যখন লাইলাতুল ক্বদর উপস্থিত হয়, তখন হযরত জিবরাঈল আমীন একদল ফেরেশতাসহ পৃথিবীতে নেমে আসেন। তাদের সাথে সবুজ রঙের একটা ঝান্ডা থাকে যা কা'বা শরীফের উপর উড্ডীন করে দিয়ে ফেরেশতাগণ পৃথিবীময় ছড়িয়ে পড়েন এবং আল্লাহর বান্দা-বান্দিরা যে যেখানে যে অবস্থায় দাঁড়িয়ে, বসে, আল্লাহর ইবাদতে মশগুল থাকে, দুআ করে, তাদেরকে সালাম করে, তাদের সাথে মুসাফাহা করে এবং তাদের দুয়ায় আমীন আমীন বলতে থাকে। (বায়হাকি)।

লাইলাতুল কদরের অনন্য বৈশিষ্ট্য হলো এ রাত ভাগ্য রজনী। আল্লাহ তায়ালা সুরা দুখানের ৩-৪ নং আয়াতে বলেছেন, ‘নিশ্চই আমি একে (পবিত্র কোরআন) এক মুবারক রজনীতে অবতীর্ণ করেছি, আমি তো সতর্ককারী। এ রাতেই প্রত্যেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় স্থিরকৃত হয়। (সুরা দুখান : ৩-৪)। এখানে একটি ব্যাপার স্পষ্ট যে, যে রাতে (লাইলাতুম মাবারাকা) গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো স্থির হয় তা হলো কোরআন নাজিলের রাত। আর কোরআনুল কারিম কোন রাতে নাজিল হয়েছে তা তো কোরআনুল কারিমে সুস্পষ্টভাবে বর্ণিত।

আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘নিশ্চই আমি একে (কোরআনকে) লাইলাতুল কদরে অবতীর্ণ করেছি। (সুরা কদর : ১)। সুতরাং এখানে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়সমূহ স্থির হওয়ার যে রাতের কথা বলা হয়েছে তা নিঃসন্দেহে লাইলাতুল কদর। সুরা দাখানের ৩য় আয়াতের ‘লাইলাতুম মুবারাকা’র ব্যখ্যায় আল্লামা ইবনে কাসির বলেন, ‘এ রাত অবশ্যই লাইলাতুল কদর। কেননা কোরআনের স্পষ্ট ও পরিষ্কার কথা দ্বারা কোরআনের রমজান মাসে নাজিল হওয়া সাব্যস্ত হয়েছে। আল্লাহ তাআলা সুরা বাকারার ১৭৭ নং আয়াতে বলেছেন, ‘রমজান ওই মাস যাতে কোরআনুল কারিম অবতীর্ণ করা হয়।’ (তাফসিরে ইবনে কাসির : ১৬/৬১০)।

আল্লাহ তায়ালার দরবার থেকে গুনাহ মাফ করিয়ে নেওয়ার এক অবারিত সুযোগ লাইলাতুল কদর। যে ব্যক্তি এ রাতে ইবাদত করবে আল্লাহ তায়ালা তার অতীতের সব (সগিরা) গুনাহ মাফ করে দেবেন। রাসুলুল্লাহ (সা.) এরশাদ করেন, ‘যে ব্যক্তি ইমান ও সওয়াব লাভের আশায় লাইলাতুল কদরে ইবাদতে কাটায় করবে আল্লাহ তার পূর্ববর্তী সব গুনাহ মাফ করে দেবেন।’ (বুখারি : ১/২৭০; মুসলিম : ১/২৫৯)। তওবার মাধ্যমে কবিরা গুনাহও মাফ করিয়ে নেবার এক অনন্য সুযোগ লাইলাতুল কদর।

লাইলাতুল কদর কোন রাত তা নির্দিষ্ট করে বলা যায় না। রাসুলুল্লাহ (সা.) এ ব্যাপারে স্পষ্ট করে কিছু বলেননি। তবে এতটুকু জানা যায় যে এ রা রমজানের শেষ দশকে। রমজানের শেষ দশকের বেজোড় রাতগুলোর একটিই হবে লাইলাতুল কদর। এ প্রসঙ্গে রাসূল সাঃ) বলেন, "তোমরা রমাযানের শেষ দশকে বেজোড় রাতে লাইলাতুল ক্বদর তালাশ করো।’ তাই রমজানের ২১, ২৩, ২৫, ২৭ ও ২৯তম রাতগুলোর যে কোনো একটি হতে পারে লাইলাতুল কদর। তাই ২৭ রমজানের রাতও লাইলাতুল কদর হবার সম্ভাবনা। তাই ২৭ রমজানের রাতসহ শেষ দশকের অন্যান্য বেজোড় রাতগুলো বিশেষভাবে আমল করে আল্লাহর দরবার থেকে অফুরন্ত কল্যাণ অর্জনে মনযোগী হওয়া প্রতিটি মুসলমানের কর্তব্য। যারা এমনকি করবে না তারা সত্যিকারে অনেক বড় প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত। কেননা হজরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত, নবীজি (সা.) বলেন, ‘যে ব্যক্তি লাইলাতুল কদরের বরকত থকে বঞ্চিত সে হাজারো কল্যাণ ও বরকত থেকে বঞ্চিত।’ (শুআবুল ইমান : ৩/৩৪০)।

লাইলাতুল কদরে পড়ার মতো একটি বিশেষ দুয়ার কথা বর্ণিত হয়েছে হাদিসে। হজরত আয়েশা (রা.) বলেন, আমি নবীজিকে (সা.) জিজ্ঞেস করলাম, ইয়া রাসুলাল্লাহ, আমি যদি জানি যে এটা লাইলাতুল কদর তাবে আমি কী দোয়া পড়ব? নবীজি (সা.) বললেন, তুমি এই দোয়া পড়বে ‘আল্লাহুম্মা ইন্নাকা আফুয়্যুন তুহিব্বুল আফওয়া ফা’ফু আন্নি’ (হে আল্লাহ আপনি অনেক বড় ক্ষমাশীল। ক্ষমা করতে পছন্দ করেন। আমাকে ক্ষমা করে দিন! (তিরমিজি : ২/১৯১)।

লেখক : কলামিস্ট, গবেষক ও মুফাসসিরে কোরআন

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech